ব্যর্থ মিরাজের ঘূর্ণিজাদু, জয়ে শুরু সাকিবের বরিশাল

0
78

অনলাইন ডেস্ক : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) উদ্বোধনী ম্যাচে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সকে ৪ উইকেটে হারিয়েছে সাকিবের ফরচুন বরিশাল।

শুক্রবার মিরপুর শের ই বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে উদ্বোধনী ম্যাচে বেনি হাওয়েলের ব্যাটে ভর করে ৮ উইকেট হারিয়ে ১২৫ রানের সংগ্রহ গড়ে চট্টগ্রাম। জবাবে ৬ উইকেট হারালেও ৮ বল হাতে রেখেই লক্ষ্য পেরিয়ে যায় সাকিববাহিনী।

১২৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নামা বরিশালের নিয়ন্ত্রণেই ছিল ম্যাচ। তবে মিরাজের এক ওভারে ৩ উইকেট পড়ে যাওয়ায় খেলা জমে ওঠে। সেই অবস্থা থেকে বরিশালকে জিতিয়েছেন জিয়াউর এবং ব্র্যাভো। স্বল্প পুঁজি নিয়েও মেহেদী হাসান মিরাজের ঘূর্ণিজাদু শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়।
১২৬ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৩ রানে মেহেদি মিরাজের ঘূর্ণিতে বোল্ড হয়ে যান বরিশালের নাজমুল হোসেন শান্ত (৬ বলে ১)। অন্য ওপেনার সৈকত আলীর সঙ্গে যোগ দেন অধিনায়ক সাকিব। স্বভাবসুলভ আক্রমণাত্মক এই ব্যাটার মিরাজের দ্বিতীয় শিকার হওয়ার আগে ১৬ বলে ১৩ রান করতে পেরেছেন। মেরেছেন ২টি বাউন্ডারি। এরপর ৩৪ রানের জুটি গড়ে বিপদ সামাল দেন অপর ওপেনার সৈকত আলী এবং তৌহিদ হৃদয়। প্রথম ১০ ওভারে আসে ৫৫ রান। ১২তম ওভারে মুকিদুলের বলে তৌহিদ হৃদয় (১৬) আউট হলে ভাঙে সেই জুটি।

সৈকতের সঙ্গী হন ইরফান শুকুর। ১৫ নম্বর ওভারে ম্যাচের মোড় ঘুরিয়ে দেন মিরাজ। তার করা প্রথম বলে স্ট্রেইট ড্রাইভে বল সীমানার বাইরে উড়িয়ে ফেলেন সৈকত। পরের বল মিডউইকেট দিয়ে ওড়াতে গিয়ে একবারে সীমানা দড়ির ওপর তিনি ধরা পড়েন। শেষ হয় তার ৩৫ বলে চার ২ ছক্কায় ৩৯ রানের ইনিংস। পরের বলে ইরফান শুকুরকেও (১৬) লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন মিরাজ। কিন্তু হ্যাটট্রিক হয়নি। পঞ্চম বলে আফিফ হোসেনের দারুণ থ্রোয়ে রান-আউট হয়ে যান সালমান হোসেন (০)।

দ্রুত উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়ে যায় বরিশাল। ৪ ওভারে মাত্র ১৬ রান দিয়ে চট্টগ্রাম অধিনায়কের সংগ্রহ ৪ উইকেট। এমন পরিস্থিতিতে হাত খুলে মেরে বরিশালের আশা ফের জাগিয়ে তোলেন জিয়াউর রহমান। সঙ্গী ডোয়াইন ব্র্যাভো। তাদের ব্যাটে চড়ে কাঙ্ক্ষিত জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় ফরচুন বরিশাল। ব্র্যাভো ১০ বলে ১ ছক্কায় ১২* এবং জিয়াউর ১২ বলে ২ চার ১ ছক্কায় ১৯* রানে অপরাজিত থাকেন।

এর আগে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নামে চট্টগ্রাম। বরিশালের অধিনায়ক সাকিব আল হাসান দুই দিক থেকে স্পিন দিয়ে আক্রমণ শুরু করে। এতে সফলতার মুখও দেখে বরিশাল। নির্ধারিত ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে চট্টগ্রাম তোলে মাত্র ১২৫ রান।

চট্টগ্রামের ব্যতিক্রম ছিলেন অলরাউন্ডার হাওয়েল। দেশি-বিদেশি অন্য ব্যাটসম্যানরা যেখানে খাবি খেয়েছেন সেখানে রানের ফোয়ারা ছুটিয়েছেন তিনি। আলজারি জোসেফের করা ১৯তম ওভারে নিয়েছেন ১৬ রান। ৩টি করে চার-ছয়ে শেষ পর্যন্ত তিনি থামেন ২০ বলে ৪১ রান করে। এছাড়া কোনো ব্যাটসম্যান পেরোতে পারেনি ২০ রানের ঘর।

প্রথম ৫ ব্যাটসম্যানের মধ্যে একমাত্র লড়াই করেছিলেন উইল জ্যাকস। তবুও নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি এই ইংলিশ ব্যাটসম্যান। টি-টোয়েন্টিতে তার স্ট্রাইক রেট দেড়শর বেশি (১৫৪.৮২)। আজ ২০ বলে ১টি ছয়ের মারে করেন ৬ রান। বাকি চার ব্যাটসম্যান লুইস, আফিফ হোসেন, সাব্বির রহমান ও মেহেদী হাসান মিরাজ আউট হয়েছেন দুই অঙ্কের ঘর ছোঁয়ার আগেই।

বরিশালের হয়ে দারুণ বোলিং করেছেন তিন স্পিনার নাঈম হাসান, সাকিব ও জ্যাক লিনটট। নাঈম ২টি ও সাকিব-লিনটট ১টি করে উইকেট নেন। ৪ ওভারে নাঈম দিয়েছেন ২৫ রান ও আর সাকিব ১৬ ও লিনটট দেন মাত্র ৯ রান। আলজারি জোসেফ সর্বোচ্চ ৩ উইকেট নিয়েছেন ৩২ রান দিয়ে। সবচেয়ে খরুচে ছিলেন ব্রাভো। ৪ ওভারে দিয়েছেন ৩৯ রান। নিয়েছেন ১টি মাত্র উইকেট।