ভবদাহে জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধানের দাবিতে যশোর জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাউ ও স্বারকলিপি প্রদানের মধ্যো দিয়ে শেষ হলো ৪ দিনব্যাপী পদযাত্রা

0
379

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভবদাহে জলাবদ্ধতার স্থায়ী সমাধানের দাবিতে রোববার দুপুরে যশোর জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাউ ও স্বারকলিপি প্রদানের মধ্যো দিয়ে শেষ হলো ৪ দিনব্যাপী পদযাত্রা । ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটি গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টার দিকে ভবদহ স্লুইজ গেটের সামনে থেকে এ পদযাত্রা শুরু করে।
আজ সকালে যশোরের চাচড়ার মোড় থেকে মিছিল সহকারে সংগ্রাম কমিটির কয়েক হাজার পানিপন্দি মানুষ হাজির হয় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে।
এ সময় জেলা প্রশাসক মোঃ আশরাফ উদ্দীন পানিপন্দি জনতার মধ্যে এসে পানি নিস্কাসনের জন্য সকল ধরনের পদক্ষেপ নেওয়ার আশ্বাস দেন। তিনি বলেন আমি এ ব্যাপরটি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এবং পানি সম্পাদ মন্ত্রীর সাথে কথা বলেবা।
আগামী ২২ নভেম্বর ২০১৭ বুধবার বেলা ১১টায় ঢাকার শাহবাগ মোড়ে মানববন্ধন এবং জাতীয় সংসদের মাননীয় স্পিকার ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান।
২৩ নভেম্বর ২০১৭ বৃহস্পতিবার মাননীয় পানিসম্পদ মন্ত্রী, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাসচিব ও চিফ ইঞ্জিনিয়ারের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হবে।

জেলা প্রশাসকের কার্যালয় ঘেরাউ ও স্বারকলিপি প্রদানের সময় উপস্থিত ছিলেন ভবদহ পনি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটি যশোরের উপেদেষ্টা ইকবাল কবির জাহিদ,

ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির আহ্বায়ক রনজিত বাওয়ালী,যুগ্ম আহ্বায়ক গাজী হামিদ, বৈকুন্ঠ বিহারী, মনিরামপুর কল্যান সমিতির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল গণি, সদস্য ডি এইচ দিলসানসহ আরো অনেকে।

স্বারকলিপি
দুই দুইবার আপনার মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে ভবদহ অঞ্চলের মহাবিপর্যয়ের চিত্র তুলে ধরে স্মারকলিপি প্রদান করে হস্তক্ষেপ কামনা করেছিলাম। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন ‘নদী বাঁচলে দেশ বাঁচবে’ এটি চরম সত্য। ইতোমধ্যে সরকার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী কপোতাক্ষ নদ সংস্কারে ২৬১ কোটি টাকার একটি প্রকল্প সমাপ্তির পথে। তার সুফল হিসাবে কপোতাক্ষ অববাহিকায় এবার বন্যা হয়নি। নদীর ভরবেগ বেড়েছে। নদী গভীর হয়েছে। এলাকা জলাবদ্ধতামুক্ত হয়েছে। তার ফলে কপোতাক্ষ অববাহিকায় এবার সোনার ফসল ফলেছে। পুনশ্চ দক্ষিণ-পশ্চিমঞ্চলের প্রধান নদী প্রবাহ ভৈরব উজানে পদ্মা মাথাভাঙ্গার সাথে সংযোগ দিয়ে সরকার ২৭৪ কোটি টাকার আরোও একটি সংস্কার প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে। যা একটি ঐতিহাসিক ঘটনা। আমরা যুক্তিযুক্তভাবে বিশ্বাস করি, এই প্রকল্প সঠিকভাবে বাস্তবায়িত হলে এ অঞ্চলে জলাবদ্ধতা, লবণাক্ততা, আর্সেনিকসমস্যা ও সুন্দরবন রক্ষায় সুদুরপ্রসারী প্রভাব ফেলবে। এখন প্রয়োজন, ভৈরব-প্রবাহের সাথে সম্পর্কিত শাখাগুলিকে সংযুক্ত ও সংস্কার করা।

ভবদহ সমস্যা সম্পর্কে সকলেই ওয়াকিবহাল। ২০০৮ সালের নির্বাচনপূর্ব ১৪ দলের ২৩ দফা কর্মসূচীতে এই অঞ্চলের পানিসমস্যা সমাধানে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো। ভবদহ সমস্যা এখন এই জনপদের শুধু নয়, দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলে ব্যাপকভাবে বিস্তৃত হবে। ফলে নদী পলি ভরাটের কারণে কপোতাক্ষ-ভৈরবের সুফল ভেস্তে যাবে। এসমস্যার একমাত্র সমাধান উজানের পানি প্রবাহ ও সমুদ্রের উঠে আসা পলি-ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে নদীর নাব্যতা বৃদ্ধি করা। সেক্ষেত্রে সরকার যথার্থভাবেই জনগণের অভিজ্ঞতা গ্রহণ করে টিআরএম পদ্ধতি গ্রহণ করেছে।

গত ২১ জুলাই ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটি ভবদহের ভাটিতে সরেজমিনে নদী পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণে গিয়েছিল। দেখা যায়, ভরজোয়ারে পর্যায়ক্রমে-
ক) কপালিয়া ব্রিজের পাশে জলের গভীরতা ৭ হাত, খ) তার ভাটিতে বিল খুকশিয়া টিআরএমের সংযোগ-খালের মুখে মাত্র ৮ হাত, গ) তারও ভাটিতে শোলমারি ব্রিজের নিচে ৬ হাত, ঘ) গ্যাংরাইলে ব্রিজের নিচে ৮ হাত, ঙ) বারো আড়িয়ায় চারমোহনায় গ্যাংরাইলের গভীরতা মাত্র ২০ হাত।

বারো আড়িয়ায় স্থানীয় অধিবাসীরা আর জানিয়েছেন, গত বছর ওই মোহনায় গ্যাংরাইলের গভীরতা ছিল ১০০ হাত: আর এ বছর মাত্র ২০ হাত।

পাইলট চ্যানেল খননের কারণে ভবদহ গেটের নীচে জোয়ারে পানির গভীরতা ৭ হাত গভীর দেখা গেলেও ভাটিতে গভীরতা কমছে। বিল খুকশিয়ায় টিআরএম চালুর এক বছরে নদীর গভীরতা বৃদ্ধি পেয়ে কাট পয়েন্টে ৫০/৬০ ফুট হয়। বর্তমানে তা নেই মারাত্মকভাবে কমেছে।

এ পরিস্থিতি প্রমাণ করে যে, এবারই যদি বিল কপালিয়ায় টিআরএম বাস্তবায়ন না হয় এবং পরবর্তী বিলে টিআরএম’র প্রস্তুতি না নেয়া হয় তা হলে ৫০/৬০ কিলোমিটার নদী ভরাট হয়ে হামকুড়ার মতো এ নদীও নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে। পরিস্থিতি দারুন অবনতি ঘটবে এবং মহাবিপর্যয় দেখা দিবে।

বিল খুকশিয়ার টিআরএম’র মেয়াদ শেষে বিলকপালিয়ায় টিআরএম-প্রকল্প গৃহীত হয়। ২০১২ সালের ২ জুন সেই প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গিয়ে একটি কুচক্রি মহলের হাতে তৎকালীন মাননীয় হুইপ সহ পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা শারীরিকভাবে নিগৃহীত হয়েছিলেন। তখন এলাকার লোকজনের আপত্তির ওজুহাত তুলে সরকারকে বিভ্রান্ত করা হয়। সরকার প্রকল্পটি বাতিল করে। তৎকালীন ঐ সিদ্ধান্ত জনপদের জন্য সমূহ ক্ষতির কারণ হয়েছে। সে সময় প্রকৃত ঘটনা ছিল, জনপদের ২৫০ গ্রামের মানুষ টিআরএম’র পক্ষে এবং বিলকপালিয়ার মুষ্টিমেয় ঘের মালিক যারা ছিলেন টিআরএম’র বিপক্ষে। এখনও সেই চক্রটি নানাভাবে টিআরএম’র বিরোধিতা করে চলেছেন। সম্প্রতি পানি সম্পদ মন্ত্রী বলেছেন, ‘ভবদহে এবার কোন বন্যা হয়নি। সেখানে কৃষকরা ফসল ঘরে তুলেছেন।’ মন্ত্রীর এ বক্তব্যে আমরা উদ্বিগ্ন। তাঁর এ বক্তব্যে টিআরএম-বিরোধী চক্র উৎসাহ পেয়েছে। বর্তমানে এলাকার ৯০ ভাগ জমি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এবং বহু বাড়িঘর এখনো পানির নিচে। বরং এবার বিলে পানির গভীরতা বেশি। দুঃখজনক ও উদ্বেগের বিষয় হলো- গত ১৬ই মার্চ মাননীয় পানিসম্পদ মন্ত্রীর উপস্থিতিতে আপনার সভাকক্ষে বিল কপালিয়ায় টিআরএম প্রকল্প প্রস্তাব গৃহীত হলেও তা সম্প্রতি পানি উন্নয়ন বোর্ড যশোর প্রস্তাব আকারে ঢাকা অফিসে পাঠিয়েছে। প্রকল্পটি এখনও পানি উন্নয়ন বোর্ডেই পড়ে আছে। তারা সরকারের কাছে প্রকল্প উত্থাপনই করেনি। এই ঘটনায় প্রমাণ করে পানি উন্নয়ন বোর্ড এই জনপদের বিপর্যয় সম্পর্কে কতটুকু উদাসীন এবং দায়িত্বহীন।

আমরা আপনার মাধ্যমে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছিলাম। মাঘীপূর্ণিমার সমাসন্ন। এ পরিস্থিতিতে জরুরিভিত্তিতে উর্ধ্বতন সকল কর্তৃপক্ষের কাছে যথাযথ গুরুত্ব সহকারে তুলে ধরার জন্য আপনার কাছে আকুল আবেদন করছি।

এই মুহূর্তে করণীয় বিষয় তুলে ধরছি ঃ-

১) এবছর বিল কপালিয়ায় টিআরএম’র গৃহীত সিদ্ধান্ত অবিলম্বে বাস্তবায়ন করতে হবে। আমডাঙ্গা খাল সংস্কার, ভবদহ স্লুইচগেটের ২১ ও ৯ ভেন্টের মাঝ দিয়ে সরাসরি নদী সংযোগ দিতে হবে।

২) হরিহর, আপারভদ্রা ও বুড়িভদ্রায় জরুরিভিত্তিতে পুনঃখনন করতে হবে। জলাবদ্ধতা নিরসনে সংস্কার কাজে দুর্নীতির বিচার করতে হবে।

৩) এলাকার সকল নদী খাল পুনরুদ্ধার ও অবমুক্ত করতে হবে। প্রবাহে প্রতিবন্ধক সকল পাটা, জাল, শেওলা অপসারণ করতে হবে।

৪) মানবিক বিপর্যয়রোধে খাদ্য নিরাপত্তা ও চিকিৎসার দায়িত্ব নিতে হবে। ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করতে হবে।

৫) অপরিকল্পিত ঘের নয়, পানিপ্রবাহের সকল বাঁধা উচ্ছেদ করতে হবে এবং ঘের সংক্রান্ত সরকারি নীতিমালা প্রণয়ন করতে হবে।

 

 

অনুলিপি ঃ

১) মাননীয় প্রধানমন্ত্রী
বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা।

২) মাননীয় পানিসম্পদ মন্ত্রী
বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা।

৩) সচিব
পানিসম্পদ মন্ত্রণালয়,
বাংলাদেশ সচিবালয়, ঢাকা।

৪) মহাপরিচালক
পানি উন্নয়ন বোর্ড, ঢাকা।

৫) প্রধান প্রকৌশলী
পানি উন্নয়ন বোর্ড, ঢাকা।

৬) তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী
পানি উন্নয়ন বোর্ড, খুলনা।

৭) নির্বাহী প্রকৌশলী
পানি উন্নয়ন বোর্ড, যশোর।

স্মারকলিপি প্রদানের সময় উপস্থিত ছিলেন এবং বক্তব্য দেন- ইকবাল কবির জাহিদ, রনজিত বাওয়ালী, গাজী আব্দুল হামিদ, বৈকুণ্ঠ বিহারী রায়, অনিল বিশ্বাস, আবু বক্কার সিদ্দিকী, আতাউর রহমান বাবলু, চৈতন্য পাল, মো. আব্দুল গনি, অশোক রায়, জিল্লুর রহমান ভিটু, জাকির হোসেন হবি, আব্দুল মাজেদ, আহসান উল্লাহ ময়না, সঞ্চয় মল্লিক। একাত্মতা প্রকাশ করে বক্তব্য দেন চাঁচড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আব্দুল আজিজ প্রমুখ।
হাজার হাজার বানভাসী মানুষ পদযাত্রা সহকারে যশোর ডিসি অফিস চত্বরে এসে হাজির হন।

পরবর্তী কর্মসূচি :
আগামী ২২ নভেম্বর ২০১৭ বুধবার বেলা ১১টায় ঢাকার শাহবাগ মোড়ে মানববন্ধন এবং জাতীয় সংসদের মাননীয় স্পিকার ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি প্রদান।
২৩ নভেম্বর ২০১৭ বৃহস্পতিবার মাননীয় পানিসম্পদ মন্ত্রী, পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাসচিব ও চিফ ইঞ্জিনিয়ারের কাছে স্মারকলিপি প্রদান করা হবে।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here