ভরা বৈশাখে সূর্ষের চোখ রাঙ্গানি, বিপর্যস্থ যশোরের জনজীবন

0
56

ডি এইচ দিলসান : ভরা বৈশাখ, সূর্ষের চোখ রাঙ্গানি, সহ্যহীন তপ্ততায় হাঁসফঁস জনজীবন। জলবায়ু পরির্বতনের প্রভাবে বৃষ্টির অভাবে এহনবস্থার মধ্যে চলছে পবিত্র রমমজান। ঠিক এমন প্রতিকুল আবহার মধ্যে তীব্র রোদের আগুনে পুড়ছে যশোরের প্রাণীকুল। পাশাপাশি বিপন্ন হয়ে উঠেছে প্রকৃতি । প্রচন্ড গরমে একদিকে যেমন নষ্ট হচ্ছে ক্ষেতের ফসল, ব্যহত হচ্ছে মাছ চাষ, কর্মহীন হয়ে পড়ছে নী¤œ আয়ের খেটে খাওয়া মানুষ তেমনি গরমজনিত রোগীর ভিড় বাড়ছে যশোরের বিভিন্ন হাসপাতালে । যশোর জেনারেল হাসপাতালে বর্তমানে নির্দিষ্ট শয্যার বাইরেও রোগীরা মেঝেতে অবস্থান করে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তীব্র গরমে সুস্থ্য হতে এসে আরো বেশি অসুস্থ্য হয়ে পড়ছে রোগীরা। বিশেষ করে শিশুদের অবস্থা ভয়াবহ।
যশোর আবহাওয়া অফিস সূত্রে জানা যায়, খুলনা বিভাগের ওপর দিয়ে তাপ প্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। এ কারণে গোটা যশোরাঞ্চল তীব্য রোদের আগুনে পুড়ছে। সোমবার যশোরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৪০ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিন দেশে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল চুয়াডাঙ্গায় ৪১ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সোমবার দুপুর ৩টায় যশোরে তাপমাত্রা ছিল ৪০ডিগ্রি সেলসিয়াস। আগামী তিনদিন ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত এ তাপমাত্রা অব্যাহত থাকবে বলে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে। আবহাওয়া দফতর বলছে, তাপ প্রবাহ থাকবে আরো কিছুদিন।
গরমে শিশু, বৃদ্ধ ও শ্রমজীবী মানুষেরা বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। চাপ বাড়ছে হাসপাতালে।
হাসপাতাল সূত্র জানায়, রোববার রাত পর্যন্ত হাসপাতালের পুরুষ মেডিসিন ওয়ার্ডে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ছিল ৬৭ জন। এখানে বেডের সংখ্যা ৩২টি। সকাল আটটা থেকে থেকে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত ১৭ জন রোগী ভর্তি হয়েছেন। ছাড়পত্র নিয়েছেন ১১ জন।
এদিকে, মহিলা মেডিসিন ওয়ার্ড ঘুরে একই চিত্র পাওয়া যায়। এ ওয়ার্ডে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ৩১ জন। এখানে বেডের সংখ্যা ১৭টি। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন সাতজন, ছাড়পত্র নিয়েছেন নয়জন। এসব রোগীর বেশিরভাগ গরমজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়েছেন বলে ডাক্তাররা জানিয়েছেন।
হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক আখতারুজ্জামান বলেন, প্রচন্ড গরমে হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। বিশেষ করে, ডায়রিয়া, অ্যাজমা, জ্বর, শ্বাসকষ্ট, হৃদরোগসহ নানাবিধ সমস্যায় পড়ছেন সাধারণ মানুষ। রোগীর একটু চাপ বেড়েছে সত্য। তবে, হাসপাতালে ওষুধ ও স্যালাইন পর্যাপ্ত মজুত আছে। গরমে সুস্থ থাকতে বেশি পরিমাণে পানি পান করার পরামর্শ দেন তিনি।
যশোর ইবনে সিনা হাসপাতালের চিকিৎসক আজম বলেন, ‘গরমে সবচেয়ে বেশি সমস্যার সম্মুখীন হয় শিশু ও বৃদ্ধরা। ফলে তাদের বিষয়ে একটু বেশি সচেতন থাকতে হবে। তিনি আরও বলেন, প্রচন্ড তাপদাহে বাচ্চাসহ বড়রাও অসুস্থ হচ্ছে। এ গরমের কারণে তারা পানি শূন্যতা, আমাশয়, ডায়রিয়া, জন্ডিস ও হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হতে পারে। সাধারণত দিনমজুর শ্রেণির মানুষ হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হন বেশি। হিটস্ট্রোকে আক্রান্ত হলে তাকে দ্রুত ঠান্ডা কোনও স্থানে নিয়ে পানি স্প্রে করতে হবে। তার শরীরে যাতে বাতাস লাগে সে ব্যবস্থা করা জরুরি। পরে আশপাশের স্বাস্থ্যকেন্দে নিয়ে যেতে হবে। ডায়রিয়া প্রতিরোধে শিশু, বৃদ্ধসহ সবাইকে বাসি খাবার, রাস্থার পাশের কড়া ভাজা পোড়া ও অপরিচ্ছন্ন খাবার না খাওয়ার পরামর্শ দেন তিনি। পাশাপাশি ঢিলেঢালা পোশাক পরিধান ও রোদের মধ্যে বের হলে ছাতা নিয়ে বের হওয়ার জন্য তিনি পরামর্শ দেন।