ভারতীয় পাট বীজে সয়লাব ঝিকরগাছার হাটবাজার

0
424

নিজেস্ব প্রতিবেদক :  সীমান্তের বিভিন্ন চোরাই পকেট দিয়ে অবৈধভাবে আসা ভারতীয় পাট বীজে যশোরের ঝিকরগাছার সকল হাটবাজার সয়লাব হয়েগেছে। উপজেলা সদরসহ প্রায় অর্ধশতাধিক ছোটবড় হাটবাজারে দেশিয় কোন পাট বীজ বিক্রয় হচ্ছে না। অনেক দোকানদাররা কখনো দেশি পাট বীজ বিক্রয় করেছে কিনা এমন ঘটনা মনেও করতে পারেনি।  দোকানদারদের দাবি কোন চাষী কখনো দেশি বীজের কথা বলেন না।
সরেজমিনে দেখাগেছে, উপজেলার বল্লা বাজারের মালি স্টোরে রয়েছে অনন্ত ৫/৬ রকমের ভারতীয় পাট বীজ। দু‘যুগেরও বেশি সময় ধরে বীজ বিক্রেতা শরিফুল ইসলাম জানান দেশি বীজ কেউ কিনতে চাই না। বীজ কিনতে আসা মোশারেফ হোসেন নামে এক কৃষক দাবী করেন দেশি বীজে গাছ লম্বা হয় না। তাছাড়া দেশি বীজ সচারাচার মেলে না। কথা হয়, উপজেলার বল্লা গ্রামের পাট চাষী মেহেদী হাসানের সাথে। তিনি জানান, অন্য বছরের মত এবছরও ৯ বিঘা জমিতে পাট চাষ করেছেন এবং বপনকৃত সব বীজই ভারতীয়। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, প্রতিবছর নাকি সরকার চাষীদের বিনামূল্যে পাট বীজ বিতরণ করে। তবে তিনি কখনও সেই সুবিধা পাইনি। তার দাবী দেশিয় পাটের গুণাগুণও ভালো না। উপজেলার বাঁকড়া, ছুটিপুর, গদখালী, বল্লা, শিমুলিয়া, শিওরদাহ, পাল্লা, মাটিকোমরাসহ প্রায় সব হাটবাজারের ভারতীয় এনএসসি, প্রদীপ মার্কা, মহারাষ্ট্র, বঙ্কিম, রাণী মার্কা, চাকা মার্কা, পানপাতাসহ নানা ধরনের পাট বীজে সয়লাব। এসব বীজ প্রতি কেজি একশ‘৪০ টাকা দরে কিক্রয় হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাহিদুল ইসলাম দৈনিক সত্যপাঠকে কে জানান, দেশীয় বীজের গুণাগুণ সম্পর্কে চাষীরা না জানায় ভারতীয় বীজ ব্যবহার করেন। তিনি আরও জানান বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশনের বিতরণ কৃত বীজের পরিমাণ ও কম থাকায় সকল পাট চাষী পায় না। আগামীতে সকল পাট চাষীকে দেশিয় বীজ প্রদান করা হবে বলে আশা ব্যক্ত করেন। সীমান্তের চোরায় পকেট দিয়ে আসা ভারতিয় পাট বীজ বিক্রয় রোধের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার আশ্বাস দেন তিনি। উপজেলা উপ-সহকারি পাট উন্নয়ন কর্মকর্তা ফারুক হুসাইন জানান, এ বছর এক হাজার চাষীর মধ্যে বিএডিসি’র ১৬৫০ কেজি তোষা ‘ও৯৮৯৭’ বীজ বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here