ভারতীয় হরিদাসপুর ইমিগ্রেশান কাষ্টমসে বৈধ বাংলাদেশী পাসপোর্ট যাত্রিরা হয়রানীর শিকার

0
437

আশানুর রহমান আশা : আন্তর্জাতিক স্থলবন্দর বেনাপোলের বিপরীতে ভারতীয় হরিদাসপুর ইমিগ্রেশান ও কাষ্টমসে বাংলাদেশী বৈধ পাসপোর্ট যাত্রীরা চরমভাবে হয়রানীর শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে । এ ছাড়া ভারতীয় কুলিদের হাত থেক্ওে রেহাই পাচ্ছেনা যাত্রিরা। সুত্র জানায়, বাংলাদেশ থেকে বেনাপোল সীমান্ত পথে প্রত্যেকদিন গড়ে ৭ হাজার থেকে ৮ হাজার বাংলাদেশী বৈধ পাসপোর্ট যাত্রি ভারতে যাতায়াত করে থাকে । ব্যবসায়ী, পর্যটক,মেডিকেল ্ও তার সাহায্যকারী ,উকিল,সরকারী,সাংবাদিক ,ছাত্র,কিংবা অন্যান্য পেশাদার পাসপোর্ট যাত্রি এ পথে যাতায়াত করে। ভারতীয় ইমিগ্রেশানে কিংবা কাষ্টমসে জিজ্ঞাসায় সামান্যতম হেরফের উত্তর দিলে সে যাত্রির পাসপোর্টে রিফিউজড সিল মেরে দেশে ফেরত পাঠানো হয়। টুরিস্ট মাল্টিবল ভিষায় দুই মাসের অধিক থাকলে কিংবা ২/৩ দিন পর পর গেলে তার ক্ষেত্র্ওে ফেরত পাঠানো হয়। আবার ২৫/২৬ বছর বয়সের কোন মহিলা একা গেলে তার্দেও ফেরত পাঠানো হচ্ছে। বাংলাদেশী যাত্রিরা বলছে আপনাদের হাইকমিশনার মাল্টিবল ভিষা প্রদান করছে তবে যেতে বাধা কোথায়। প্রতিবাদ করলে তার পাসপোর্টে তরিত রিফিউজড করছে। অপরদিকে মেডিকেল সাহয্যকারীরা রোগী ছাড়া কোন মতেই ভারতে প্রবেশ করতে পারে না । রোগীর জরুরী ্ওষধ পর্যন্ত আনতে দেয়া হয় না। কোন দাড়্ওীয়ালা যাত্রি দেখলে নানা প্রশ্ন করে যদি উত্তর হেরফের হয় তাক্ওে একই অবস্থা হয়। এমন কি শারীরিক নির্যাতর্নেও শীকার হয়েছে অনেকে। অনেকে বলছেন বড় দেশ বলে কথা ,জোর যার মুল্লুক তার এ অবস্থা। এ ব্যাপারে গত ১৫ মে ভারতীয় হাইকমিশন সচিব বেনাপোল ইমিগ্রেশান ্ও কাষ্টমসে পরিদর্শনে এলে এ বিষয়ে বলা হল্ওে কোন কার্যকর হয়নি। গত ১৮ মে খুলনার বিল্লাল শেখ পাসপোর্ট নং-এ এফ ২৭৪৫৫৮২ ভারতে গেলে তাকে রিফিউজড সিল মেরে দেশে পাঠানো হয়। তার অপরাধ ২ মাসের অধিক ভারতে ছিল বলে। পাসপোর্টে উল্লেখ রয়েছে এক টানা ৩ মাসের অথিক থাক্ াযাবে না কিন্ত ্ওই যাত্রি ৩ মাসের পূর্বেই চলে আসে দেশে এ বিষয়ে তার কোন অপরাধ ছিল না কিন্ত কেন এ ভিষা বলছেন ভ’ক্তভোগীরা । অপরদিকে ভারতীয় কাষ্টমসে যাত্রিদের বলা হয় ল্যাগেছে কি আছে কত টাকা আছে কি পরিমান ডলার আছে ইত্যাদি নানা প্রশ্ন ।কম বেশী হেরফের হলে সমস্যা হয় না কিন্ত গুনতে হয় টাকা। আবার ল্যাগেজ জোর তল্লাশ্ওী করা হয়। বাড়ীর জন্য পোষাক-আসাক আনলে বা নিয়ে য্ওায়া হলে তল্লাশী করে তছনছ করা হয়। শিশু সন্তান নিয়ে পড়তে হয় তখন চরম বিপাকে । রেহাই প্ওায়া যায়না ভারতীয় কুলিদের হাত থেক্ওে। পাসপোর্ট যাত্রিদের ল্যাগেজ নিয়ে করে টানা হেচড়া। ল্যাগেজ বহন করলে জোরপূর্বক ১শ টাকা থেকে ২শ কিংবা র্তাও বেশী পরিমান অর্থ নিয়ে নেয়। যাত্রিদের যদি কোন বস্তা থেকে থাকে সে ক্ষেত্রে ইচ্ছামতো অর্থ আদায় করে। ভারতীয় ইমিগ্রেশান –কাষ্টমস কোনমতে পার হলে এবার ট্যাক্সি কিংবা যে কোন যানবাহন ড্রাইভার দের হাত থেকে রেহাই পায় না দেশী যাত্রিরা । তাদের যাত্রিদের জন্য ভাড়া এক রেট আর বাংলাদেশী যাত্রিদের জন্য আর এক রেট। এ সব বৈশম্যের কারনে বাংলাদেশী পাসপোর্ট যাত্রিরা ভারতীয় হাইকমিশনে অনেকবার অভিযোগ করল্ওে আজ্ োএর কোন সুরাহ হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here