ভারতের অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্কে বিপাকে তিন কোম্পানি

0
288

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশের আরেকটি পণ্যে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করেছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। পণ্যটি হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড নামের একটি রাসায়নিক, যা বস্ত্র খাতে ব্যবহার করা হয়।

বাংলাদেশের তিনটি প্রতিষ্ঠান এ পণ্য ভারতে রপ্তানি করে। তাদের মোট রপ্তানির অর্ধেকই যায় ভারতে। অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করার কারণে এখন থেকে ভারতে হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড রপ্তানিতে বাংলাদেশের কোম্পানিগুলোকে মেট্রিক টনপ্রতি ২৮ থেকে ৯১ ডলার পর্যন্ত শুল্ক দিতে হবে। বাংলাদেশি কোম্পানিগুলো বলছে, এর ফলে ভারতে তাদের রপ্তানি কমে যাওয়ার আশঙ্কা আছে।

কোনো কোম্পানি নিজ দেশে বিক্রীত দামের চেয়ে কম দামে রপ্তানি করলে তাকে ডাম্পিং হিসেবে গণ্য করতে পারে আমদানিকারক দেশ। এর আগে ভারত বাংলাদেশি পাটপণ্যে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করেছে।

ভারতের বাজারে হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড রপ্তানিকারক বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানগুলো হলো টি কে গ্রুপের সামুদা কেমিক্যাল, মেঘনা গ্রুপের তাসনিম কেমিক্যাল এবং এ এস এম কেমিক্যাল। রপ্তানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) হিসাবে, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাংলাদেশ থেকে প্রায় ৭৭ লাখ মার্কিন ডলারের হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড রপ্তানি হয়েছে। এর মধ্যে ৮৬ শতাংশই গেছে ভারত ও পাকিস্তানে। ওই সময়ে ভারতে প্রায় ৫২ লাখ ডলার ও পাকিস্তানে প্রায় ১৪ লাখ ডলারের হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড রপ্তানি হয়। ২০১৩-১৪ অর্থবছরে পণ্যটি রপ্তানি করে বাংলাদেশের আয় হয়েছিল প্রায় ৬৬ লাখ ডলার। শুধু ভারত নয়, গত বছরের মার্চে পাকিস্তান বাংলাদেশি হাইড্রোজেন পার-অক্সাইডের ওপর ১২ শতাংশ অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক আরোপ করে।

২০১৫ সালের ১৪ মার্চ ভারতের ন্যাশনাল পার-অক্সাইড ও হিন্দুস্তান অর্গানিক কেমিক্যাল নামের দুটি কোম্পানি হাইড্রোজেন পার-অক্সাইডে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক বসানোর আবেদন করে। এরপর দীর্ঘ সময় ধরে এই অভিযোগ তদন্ত করে ভারতের সংশ্লিষ্ট সংস্থা অ্যান্টি-ডাম্পিং অ্যান্ড অ্যালাইড ডিউটিজ (ডিজিএডি)। সংস্থাটি এ বিষয়ে ফাইনাল ডিটারমিনেশন জারি (বিস্তারিত যুক্তিসহ চূড়ান্ত প্রতিবেদন) করে বলেছে, বাংলাদেশের কোম্পানিগুলো ভারতে ডাম্পিং মূল্যে হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড রপ্তানি করছে। এ কারণে তাদের অভ্যন্তরীণ শিল্পের ক্ষতি হচ্ছে।

এই ফাইনাল ডিটারমিনেশনের ওপর ভিত্তি করে ভারতের অর্থ মন্ত্রণালয়ের রাজস্ব বিভাগ গত ১৪ জুন একটি গেজেট জারি করে। এর মাধ্যমে বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোর ওপর শুল্ক আরোপ করা হয়। এখন থেকে বাংলাদেশের সামুদা কেমিক্যাল ভারতে হাইড্রোজেন পার-অক্সাইড রপ্তানি করলে টনপ্রতি ৪৭ ডলার, তাসনিম কেমিক্যালকে ২৮ ডলার, এএসএম কেমিক্যালকে ৪৬ ডলার ও অন্য কোনো কোম্পানি রপ্তানি করতে চাইলে ৯১ ডলার শুল্ক দিতে হবে। অবশ্য শুধু বাংলাদেশ নয়, পাকিস্তানের কোম্পানিভেদে ৫২ থেকে ১১৮ ডলার, থাইল্যান্ডের ১৭ থেকে ৬৩ ডলার, কোরিয়ার ক্ষেত্রে ৪৬ ডলার এবং তাইওয়ানের ক্ষেত্রে ৫৬ ডলার শুল্ক আরোপ করা হয়েছে।

সামুদা কেমিক্যালের প্রধান আর্থিক কর্মকর্তা মোহাম্মদ আকরামুজ্জামান বলেন, এখন হাইড্রোজেন পার-অক্সাইডের চাহিদা বেশ ভালো। ফলে তাৎক্ষণিকভাবে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্কের প্রভাব রপ্তানি আয়ে পড়বে না। তবে পরবর্তীকালে বাংলাদেশের রপ্তানি আয় কমে যাবে। ফলে নতুন বাজার খোঁজার কোনো বিকল্প নেই। তিনি আরও বলেন, ভারতের বাজারে বাংলাদেশের মূল প্রতিযোগী থাইল্যান্ড। ভারতীয় সংস্থা সে দেশের কোম্পানিগুলোর ওপর শুল্ক বসিয়েছে তুলনামূলক কম হারে। ফলে বাংলাদেশের প্রতিযোগিতা সক্ষমতা কমবে।

এদিকে বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন একটি চিঠিতে বাংলাদেশি কোম্পানিগুলোকে বলেছে, তারা ৯০ দিনের মধ্যে ভারতের কাস্টম, এক্সাইজ অ্যান্ড সার্ভিস ট্যাক্স অ্যাপিলেট ট্রাইব্যুনালে আবেদন করতে পারবে। অন্যদিকে সামুদা কেমিক্যালের আকরামুজ্জামান জানান, তাঁরা ও এ এস এম কেমিক্যাল আপিল করবে। এ জন্য আইনজীবীও ঠিক করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘যেভাবে হিসাব করা হয়েছে তাতে গলদ আছে। আমরা আশা করি, আপিল করলে আমাদের কোম্পানির ওপর থেকে অ্যান্টি-ডাম্পিং শুল্ক উঠে যাবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here