ভারতের কারাগারে তিন বছর সাজা ভোগের পর দেশে ফিরেছে ১২ নারী

0
339

এম আর রকি : ভারতের কারাগারে তিন বছর সাজাভোগ শেষে ১২ বাংলাদেশি যুবতীকে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে পেট্রাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশ। দুই দেশের সরকারের দেয়া ট্রাভেল পারমিটের মাধ্যমে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে তাদেরকে দেশে ফেরত পাঠানো হয়।
ফেরত আসা নারীরা হচ্ছে,যশোরের শার্শা উপজেলার বাগআঁচড়া গ্রামের মৃত সাহেব আলীর মেয়ে ফুলবানু (২৫), যশোরের নওয়াপাড়া এলাকার কুদ্দুস মোল্লার মেয়ে নিপা খাতুন (২৬) ও লিমা খাতুন (২২), নড়াইল জেলার কালিয়া উপজেলার নুর মোহাম্মদের মেয়ে আদুরি খাতুন (২৫), রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ এলাকার মৃত শহিদ খানের মেয়ে সাথি খান (২০), গাজীপুরের শ্রীপুর সদরের সিরাজুল ইসলামের মেয়ে সোনিয়া খাতুন (২২), খাগড়াছড়ির বারিক শেখের মেয়ে নারগিস শেখ (২৬), সিরাজগঞ্জ জেলা সদরের সাত্তার শেখের মেয়ে কল্পনা খাতুন (২২), ময়মনসিংহের গৌরীপুর এলাকার তাজুল শেখের মেয়ে শিল্পী খাতুন (২৩), ঢাকার সাভার এলাকার সিদ্দিক হাওলাদারের মেয়ে সীমা খাতুন (২৪), খুলনার খালিশপুর থানা সদরের আব্দুল খায়েরের মেয়ে মুন্নি খাতুন (২৫) এবং ঢাকার সাভার এলাকার আব্দুর রাজ্জাকের মেয়ে রুপা খাতুন (২৭)।
বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশন পুলিশের অফিনসার ইনচার্জ ইকবাল হোসেন সাংবাদিকদের জানান, তিন বছর আগে ভালো কাজের প্রলোভনে উল্লেখিত নারীরা দালালের খপ্পরে পড়ে সীমান্তের চোরা পথে ভারতে যান। এরপর তারা ভারতের মহারাষ্ট্র এলাকায় বিভিন্ন হোটেল এবং বাসাবাড়িতে কাজ করার সময় অবৈধ অনুপ্রবেশের অভিযোগে পুলিশ তাদের আটক করে । পরে তাদেরকে অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে ভারতের আদালতে তোলা হলে তাদের জেল জরিমানা হয়। ভারতের কারাগারে তিন বছর সাজা ভোগ করে সেখানকার একটি এনজিও তাদের ছাড়িয়ে নিয়ে নিজেদের শেল্টারহোমে রাখে। পরে দুই দেশের মধ্যে আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়া সম্পন্নর পর তাদের দেশে ফিরিয়ে আনা সম্ভব হয়। ফিরে আসা যুবতীদের বেনাপোল পোর্ট থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান বহিরাগমন ইমিগ্রেশনের অফিসার ইনচার্জ ।
বেনাপোল পোর্ট থানায় কর্মরত এসআই আশরাফ সাংবাদিকদের জানান, কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নির্দেশে বেসরকারি সংস্থা রাইটস যশোরের হাতে তরুণীদের তুলে দেয়ার প্রক্রিয়া নেয়া হচ্ছে।
রাইটস যশোরের নির্বাহী পরিচালক বিনয় কৃষ্ণ মল্লিক জানান, ভারত আনা নারীরা বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা রাতেই বেনাপোল পোর্ট থানা থেকে যশোর আহছানিয়া মিশন শেল্টারহোমে রাখা হবে। পরে পর্যায়ক্রমে তাদের প্রকৃত অভিভাবকদের কাছে হস্তান্তর প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here