ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বাংলাদেশ সফর

0
166

একটি রাষ্ট্র তাহার অনেক কিছুই বদলাইতে পারে, কিন্তু নিজ প্রতিবেশী বদলাইতে পারে না। রাষ্ট্রবিজ্ঞানে সেই কারণে প্রতিবেশীর সহিত নানা বোঝাপড়ার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ মাত্রায় সম্পর্কোন্নয়নের উপর জোর দেওয়া হয়। প্রতিবেশীর সহিত বৈরি সম্পর্ক থাকিলে যেমন ক্ষতির ইয়ত্তা থাকে না, তেমনি সুসম্পর্ক থাকিলে তাহার সুফল ভোগ করে উভয় রাষ্ট্রই। ইহা অত্যন্ত তাত্পর্যপূর্ণ যে, বাংলাদেশ ও ভারত স্ব-স্ব কূটনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিতে পরস্পরের সহিত সম্পর্কোন্নয়নে ইতিবাচক পদক্ষেপ গ্রহণ করিতেছে নিরন্তর। বর্তমানে সেই সম্পর্কের উচ্চতা হিমালয়সদৃশ বলিলে অত্যুক্তি হইবে না নিশ্চয়ই। সম্প্রতি দুই দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে আসিয়া ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ উভয় দেশের মধ্যে বিদ্যমান উষ্ণতম সম্পর্কের বিষয়টি অবতারণা করিয়া বলিয়াছেন, ‘পড়শি পেহেলে, লেকিন বাংলাদেশ সবচে পেহলে।’ অর্থাত্ প্রতিবেশী প্রথমে, তবে বাংলাদেশ সবার প্রথমে।

অক্টোবরের শুরুতে বাংলাদেশ সফরে আসিয়া ভারতের অর্থমন্ত্রীর কণ্ঠেও আমরা একই আবেগ ও ভালোবাসার সুর শুনিতে পাইয়াছি। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বর্তমানে যে সম্পর্ক বিরাজ করিতেছে তাহাকে অন্য দেশসমূহের জন্য ‘অনুসরণযোগ্য মডেল’ বলিয়া মন্তব্য করেন ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। তিনি মনে করেন, বাংলাদেশের সহিত ভারতের দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এখন ইতিহাসের সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছাইয়াছে। সাম্প্রতিক বছরগুলিতে বাংলাদেশকে ভারত ৮০০ কোটি ডলারের তিনটি ঋণরেখা প্রদান করিয়াছে, যাহা এখন অবধি কোনো দেশকে দেওয়া ভারতের সর্বোচ্চ মাত্রার ঋণ। রোহিঙ্গাদের বিষয়ে ভারতের দৃষ্টিভঙ্গি বাংলাদেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এই বিষয়ে সুষমা স্বরাজ যে সুস্পষ্ট অভিমত ব্যক্ত করিয়াছেন, তাহা বাংলাদেশকে আশান্বিত করিবে নিশ্চয়ই। জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের নেতৃত্বে পরিচালিত ‘স্পেশাল অ্যাডভাইজরি কমিশন’ বা আনান কমিশনের দেওয়া প্রতিবেদন প্রসঙ্গে সুষমা বলেন, ভারত এই কমিশনের সুপারিশের বাস্তবায়ন চাহে। মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্য হইতে বিতাড়িত হইয়া বাংলাদেশে আশ্রয় লওয়া লক্ষ লক্ষ রোহিঙ্গার জন্য ভারত গত সেপ্টেম্বরে ‘অপারেশন ইনসানিয়াত’ পরিচালনা করে, যাহার মাধ্যমে ভারত প্রায় তিন লক্ষ শরণার্থীর জন্যে বিভিন্ন ত্রাণসামগ্রী পাঠায়। এই সকলই বলা যায়, বাংলাদেশকে সর্বতোভাবে সহযোগিতার নিমিত্ত।

প্রকৃতপক্ষে একাত্তরে বাংলাদেশের জন্মের মধ্য দিয়া ভারতের সহিত তৈরি হয় ঐতিহাসিক সম্পর্ক। তাহা আত্মিকও বটে। দক্ষিণ এশিয়ার অর্থনৈতিক অগ্রগতি, বিশ্বায়নের প্রভাবে অত্রাঞ্চলের অভ্যন্তরীণ ও বাহ্যিক বিষয়গুলির নূতন নূতন চ্যালেঞ্জের আবির্ভাব, সহযোগিতামূলক নিরাপত্তা কাঠামো এবং সর্বোপরি জনগণের মধ্যে যোগাযোগ বৃদ্ধির ভিতর দিয়া অত্রাঞ্চল ক্রমশ উচ্চতর সম্পর্কোন্নয়নের পথে ধাবিত হইতেছে। দ্বিপক্ষীয়, আঞ্চলিক ও বৈশ্বিক পর্যায়ে আন্তঃরাষ্ট্রীয় সম্পর্কের ক্ষেত্রে এই প্রেক্ষাপট অত্যন্ত তাত্পর্যপূর্ণ। এমতাবস্থায় বাংলাদেশ ও ভারতের সম্পর্ককেও পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধের জায়গা হইতে হিমালয় উচ্চতায় আসীন হইবার প্রেক্ষাপট অত্যন্ত ইতিবাচক বটে। বাংলাদেশ-ভারতের গভীর সুসম্পর্ক দক্ষিণ এশিয়ার জন্য এক নূতন সম্পর্কের ভিত গড়িয়া দিতে পারে। অত্রাঞ্চলের ভবিষ্যত্, ভবিষ্যতের মানুষের জন্য উভয় রাষ্ট্রের একত্রে কাজ করিবার এই যে মানস-সম্পর্ক, তাহার নূতন রোশনাই ছড়াইয়া পড়ুক। আমরা ইহাকে স্বাগত জানাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here