ভারতের বনঁগার একটি আবাসিক হোটেলে নিয়ে যশোরের স্বামী পরিত্যক্তকে হত্যা মামলার আসামী গ্রেফতার ডিবি পুলিশের হাতে

0
191

নিজস্ব প্রতিবেদক : ভারতের বনঁগার একটি আবাসিক হোটেলে স্বামী পরিত্যক্তা গৃহবধূ আসমা বেগম ওরফে আসমা ইসলামকে শ্বাসরোধ করে হত্যার ঘটনায় পলাতক আসামী আবুল কাশেম ওরফে কাশেম মিয়াকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ। শনিবার গভীর রাতে ঢাকার পল্লবী থানার বাউনিয়াবাদ বাজারের কাছ থেকে তাকে গ্রেফতার করে। আবুল কাশেম ওরফে কাশেম মিয়া যশোর শহরতলী পালবাড়ী গাজীরঘাট রোডের মৃত বশির মিয়ার ছেলে।
জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ পরিদর্শক সোমেন দাস জানান, আবুল কাশেম ওরফে কাশেম মিয়া গত ১৫ জানুয়ারী সদর উপজেলার নওদাগ্রামের মঞ্জু স্যারের বাড়ির ভাড়াটিয়া স্বামী পরিত্যক্তা আসমা বেগম ওরফে আসমা ইসলামকে ভারতের বনঁগা শহরের শ্যামা প্রসাদ লজ নামক একটি আবাসিক হোটেলের ১নং কক্ষে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে। হত্যাকান্ডের পর থেকে আবুল কাশেম সেখান থেকে পালিয়ে যায়। আসমা বেগমের সাবেক স্বামী শাহানুর ইসলামের ঘনিষ্ঠ বন্ধু ছিল কাশেম মিয়া। ৩ সন্তানের জননী আসমা বেগমকে শাহানুর ইসলাম তালাক দিলে আবুল কাশেম উক্ত আসমা বেগমের কাছে আসা যাওয়া করতো। আসমা বেগমকে নিয়ে আবুল কাশেম মাঝে মধ্যে ভারতে বেড়াতে আসতো। আসমা বেগমের খালা মনোয়ারা বেগম চিকিৎসার জন্য আসমা বেগমনকে বললে আবুল কাশেম মনোয়ারা বেগমনকে ভারতে আসমা বেগমের সাথে নিয়ে যায়। তারা বনঁগা শহরের শ্যাম প্রসাদ লজ নামক উক্ত আবাসিক হোটেলে ওঠে। সেখানে ১নং কক্ষে আবুল কাশেম ও ৬ নং কক্ষে মনোয়ারা বেগম ও আসমা বেগম থাকে। ১৫ জানুয়ারী সকাল ১০টায় যশোর থেকে রওনা হয়ে ভারতের বনঁগায় পৌছে। সেখানে অবস্থান কালে পরের দিন ১ জানুয়ারী দুপুরে আবুল কাশেম তার কক্ষ থেকে দ্রুত চলে যায়। মনোয়ারা বেগমের সন্দেহ হলে হোটেলের কর্মচারীকে উক্ত কক্ষের তালা খুলে দেখতে বললে দেখেন ঘরের মধ্যে আসমা বেগম গলায় কাপড় পেচানো অবস্থায় রয়েছে। পববর্তীতে সেখানে মামলা হয়। ৩০ মে আসমা বেগমকে তার আত্মীয় স্বজন দেশে আনেন। ৫ ফেব্রুয়ারী আসমা বেগমের বোন বাদী হয়ে কোতয়ালি মডেল থানায় আদালতের পিটিশনের মাধ্যমে থানা পুলিশ মামলা হিসেবে নথিভূক্ত করে। উক্ত মামলা ডিবিতে যাওয়ার পর থেকে আবুল কাশেমকে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ তৎপর হয়। এক পর্যায় আবুল কাশেমকে গ্রেফতার করে। রোববার তাকে আদালতে সোপর্দ করলে সে আদালতে জবানবন্দি দিতে পারে বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা পুলিশ পরিদর্শক সোমেন দাস জানিয়েছেন।#