ভারতের ২০২২ অর্থ বছরে চতুর্থ বৃহত্তম রপ্তানি গন্তব্য হতে পারে বাংলাদেশ

0
107

অনলাইন ডেস্ক :
দুই বছরে পাঁচ ধাপ লাফিয়ে ২০২২ অর্থ বছরে বাংলাদেশ ভারতের চতুর্থ বৃহত্তম রপ্তানি গন্তব্য হতে পারে। বাংলাদেশের অর্থনীতি ফুলেফেপে উঠায় এ দেশে প্রতিবেশী ভারতের রপ্তানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকার কারণে এমনটা হতে পারে।

বিজনেস স্ট্যান্ডার্ড এর এক প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়- অক্টোবর পর্যন্ত পাওয়া ভিন্ন ভিন্ন তথ্য অনুযায়ী, ২০২২ অর্থ বছরের প্রথম সাত মাসে, বাংলাদেশে রপ্তানি আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় ৮১ শতাংশ বেড়ে ৭.৭ বিলিয়ন ডলার হয়েছে। এর ফলে যুক্তরাষ্ট্র, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং চীনের পর বাংলাদেশ ভারতের চতুর্থ বৃহত্তম রপ্তানি বাজার হয়ে উঠেছে।

এই ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে, গত বছরের ৫ম অবস্থান থেকে ভারতের রপ্তানি প্রোফাইলে বাংলাদেশ তার অবস্থান আরও ভাল করবে৷ দেশটি ২০২০ অর্থ বছরের ৯ম স্থান থেকে লাফিয়ে গত বছর ৫ম স্থানে উঠে বিশ্লেষকদের অবাক করে দিয়েছিল।

চলতি বছরের সাত মাসের (এপ্রিল-অক্টোবর ২০২১ সময়কালে) ভারত থেকে বাংলাদেশে রপ্তানি হওয়া প্রধান আইটেমগুলোর মধ্যে রয়েছে তুলা (২.১ বিলিয়ন ডলার), খাদ্যশস্য (১.৩ বিলিয়ন ডলার), বিদ্যুৎ এবং জ্বালানী (০.৬ বিলিয়ন ডলার), গাড়ির যন্ত্রাংশ (০.৫ বিলিয়ন ডলার) এবং মেশিনারি ও মেকানিক্যাল যন্ত্রপাতি (০.৪ বিলিয়ন ডলার)।

উল্লেখ্য, গত ৩১ মার্চ ভারতের ২০২০-২১ অর্থবছরের সমাপ্তি ঘটে।
চলতি বছরের প্রথম তিন মাসের রপ্তানি হিসেবেই এর আগে চতুর্থ স্থানে থাকা হংকং কে পেছনে ফেলে বাংলাদেশ। ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বাংলাদেশে ভারত জানুয়ারি থেকে মার্চ মাসে ৩.১৬ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছিল। ওই সময়ে যুক্তরাষ্ট্র, চীন এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে ভারত যথাক্রমে ১৫.৪১ বিলিয়ন, ৫.৯২ বিলিয়ন এবং ৫.৩৪ বিলিয়ন ডলারের পণ্য রপ্তানি করেছিল।

হিন্দুস্তান টাইমস এর এক প্রতিবেদন অনুযায়ী সে সময় বাংলাদেশে ভারতের রপ্তানি বাড়ার অন্যতম কারণ হিসেবে ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান এক্সপোর্ট অর্গানাইজেশনস (এফআইইও) এর মহাপরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অজয় সাহাই বলেছিলেন, “করোনাকালে বিধিনিষেধের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপের অন্যান্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে পণ্য চলাচলে বাধা তুলনামূলকভাবে কম। কূটনৈতিক প্রচেষ্টা, রেল ও নৌপথে যোগাযোগ বৃদ্ধি এবং কৃষি সামগ্রীর চাহিদা- এ তিনটি কারণের সংমিশ্রণ বাংলাদেশে রপ্তানি বৃদ্ধিতে সহায়তা করেছে”।