ভালুকায় সেই ‘জঙ্গি আস্তানায়’ ‘প্রেসার কুকার বোমা’

0
229

নিজস্ব প্রতিবেদক: যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে হামলায় ব্যবহৃত প্রেসার কুকার বোমার মতোই একটি বোমা পাওয়া গেছে ময়মনসিংহের ভালুকায় সন্দেহভাজন জঙ্গি আস্তানায়। ওই বাড়িতে আরও একটি গ্রেনেড এবং বড় আকারের একটি বোমা নিষ্ক্রিয় করে পুলিশের বোমা নিষ্ক্রিয়কারী দল। যে ঘরে বিস্ফোরণে একজন ‘জঙ্গি’ নিহত হয়েছে, সেই ঘর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে বিপুল পরিমাণ বোমা তৈরির সরঞ্জামও।

সাম্প্রতিক জঙ্গি তৎপরতায় জড়িতদের কাছ থেকে এর আগেও নানা ধরনের বোমা ও বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এই ধরনের বোমা পাওয়া যায়নি।

২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যিক নগরী নিউ ইয়র্কের ম্যানহাটনের চেলসি এলাকায় এক জমায়েতে প্রেসার কুকার বোমা নিয়ে আমলা করে উগ্রবাদীরা। কিছুক্ষণ পর নিউ জার্সিতেও একই ধরনের হামলা হয়। রান্নার জন্য ব্যবহার করা প্রেসার কুকারের ভেতরে বিস্ফোরক ভরে এই বোমা বানান হয় এবং এর ধ্বংস ক্ষমতা ব্যাপক।

পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বলেন, ঈদের দিন ভালুকায় বড় জামাত হয় এবং এই জামাতে হামলার জন্যই বোমাটি মজুদ করে রাখা হয়েছিল বলেই তাদের কাছে তথ্য ছিল। তিনি জানান, নিহত আলম প্রামাণিক জঙ্গি তৎপরতায় সম্পৃক্ত। তিনি ভালুকার কাশর গ্রামে সাত দিন আগে বাড়িটি ভাড়া নেন।

নাটোর সদর এলাকার আলম প্রামাণিক বোমা বানানোর সময় সেটি বিস্ফোরিত হয় বলেও জানান পুলিশ সুপার। এতে তিনি নিহত হন। নিহত ‘জঙ্গি’র স্ত্রী ও দুইটি শিশুসহ সাত জনকে আটকের কথা জানিয়েছে পুলিশ। আটকদের মধ্যে বাড়িওয়ালা আজিম উদ্দিন, তার স্ত্রী ফাতেমা, ছেলে আসিফ ও হাসানও রয়েছে।

আটকদের মধ্যে নিহত ‘জঙ্গি’র স্ত্রী পারভীন আক্তার ও তার দুই সন্তানকে ময়মনসিংহ ডিআইজি অফিসে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।

ভালুকায় ‘জঙ্গি আস্তানা’য় বোমা মজুদ ও তৈরির সঙ্গে আরও অনেকে জড়িত থাকতে পারে বলে ধারণা করছে পুলিশ। আর তাদেরকে দ্রুত আইনের আওতায় আনার ঘোষণা দিয়েছেন, পুলিশের ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি।

রবিবার বিস্ফোরণের পর দিন সোমবার দুপুর সাড়ে তিনটা পর্যন্ত ঢাকা থেকে আসা বোমা নিষ্ক্রিয়কারী ইউনিট, পুলিশ, র‌্যাব, পিবিআই, সিআইডি, ফায়ার সার্ভিসসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর দল ঘটনাস্থল ঘিরে রাখে।

সোমবার সকাল সাড়ে ১০টার ঢাকা থেকে পুলিশের বোমা নিস্ক্রিয়কারী দল ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। এ সময় সবাইকে ঘটনাস্থল থেকে নিরাপদ দূরত্বে সরে যেতে বলা হয়।

ভালুকা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মামুন অর রশিদ জানান, নিহত আলম প্রামাণিক নাটোরের তালিকাভুক্ত জঙ্গি নেতা। তিনি পাঁচ দিন আগে বাসাটি ভাড়া নেন।

স্থানীয়রা জানান, গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানার বিরুই গ্রাামের নুর মোহাম্মদের ছেলে মালয়েশিয়া প্রবাসী আজিম উদ্দিন উপজেলার কাশর গ্রামে বাড়ি নির্মাণ করে তাতে ১০/১২টি পরিবারকে ভাড়া দেন।

গত ২২ আগস্ট কুষ্টিয়া থেকে আসার কথা জনিয়ে নিহত ‘জঙ্গি’ আলম প্রামাণিক বাড়িটি ভাড়া নেন। এ সময় তিনি তার স্ত্রী ও দুই শিশু সন্তানকে নিয়ে আসেন। রবিবার সন্ধ্যায় ওই বাসায় বিকট শব্দে আওয়াজ হলে এলাকার লোকজন ঘটনাস্থলে ছুটে যায়।

বিস্ফোরণে আলম ঘটনাস্থলেই মারা যান এবং তার আট মাস বয়সী শিশু গুরুতর আহত হয়। তার মা অজ্ঞাত স্থানে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যান। খবর পেয়ে ভালুকা মডেল থানার পুলিশ ও শিল্প পুলিশ গিয়ে বাড়িটির চারদিক ঘেরাও করে রাখে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here