ভিন্ন স্বাক্ষরে একই ভাষায় দুই মেয়র বরখাস্ত

0
253

নিজস্ব প্রতিবেদক : রাজশাহী ও সিলেট মেয়রের বরখাস্তের আদেশদুই ভিন্ন প্রজ্ঞাপনে ভিন্ন স্বাক্ষরে কিন্তু একই ভাষায় লেখা রাজশাহী ও সিলেট সিটি করপোরেশনের দুই মেয়রকে দেওয়া বরখাস্তের চিঠি। আদালত থেকে জামিন নিয়ে রবিবার রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) মেয়র মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এবং সিলেট সিটি করপোরেশনের (সিসিক) মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী দায়িত্ব বুঝে নিতে গেলে কয়েক ঘণ্টা পরেই তাদের হাতে এসে পড়ে বরখাস্তের চিঠি।

দুটি চিঠিতেই লেখা রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে মুহাম্মদ আনোয়ার পাশার স্বাক্ষরকৃত প্রজ্ঞাপনে বলা আছে, ‘মহানগর বিশেষ ট্রাইব্যুনাল-১, মামলা নং- ১৩৬/১৫-এর অভিযোগপত্র বিজ্ঞ আদালত কর্তৃক গৃহীত হয়েছে এবং স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন ২০০৯-এর ধারা ১২-এর উপধারা-১-এ সিটি করপোরেশনের মেয়রের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলায় অভিযোগপত্র আদালত কর্তৃক গৃহীত হলে সরকার কর্তৃক লিখিত আদেশের মাধ্যমে তাকে সাময়িকভাবে বরখাস্তকরণের বিধান রহিয়াছে। তিন নম্বরে বলা আছে, সেহেতু রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেনকে স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন ২০০৯-এর ধারা ১২-এর উপধারা-১-এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হলো।’ সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়রের ক্ষেত্রে চিঠিতে মামলা নম্বর ভিন্ন (০৪/২০০৯)। মামলাটির সম্পূরক অভিযোগপত্র গত ২২ মার্চ গৃহীত হওয়ায় তাকে বরখাস্ত করার কথা উল্লেখ আছে। যদিও এর পরদিন ২৩ মার্চ আরিফুল হক চৌধুরীর সাময়িক বরখাস্তের আদেশ স্থগিত করে হাইকোর্টের দেওয়া আদেশ বহাল রাখেন আপিল বিভাগ।

রাজশাহী মেয়রের বরখাস্তের আদেশ

রাসিক মেয়র ও নগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল রবিবার সকালে দায়িত্ব বুঝে নিতে গিয়ে দেখেন তার কার্যালয় তালাবদ্ধ। প্রায় সাড়ে চার ঘণ্টা অপেক্ষার পর নিজের কার্যালয়ে প্রবেশ করেন। কার্যালয়ে প্রবেশে সঙ্গে সঙ্গেই বরখাস্তের চিঠি পান তিনি। স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় থেকে তাকে এই চিঠি পাঠানো হয়েছে। তবে বুলবুল দাবি করেছেন, ‘আদালতের রায় তার পক্ষে। তিনি কার্যালয় ছাড়বেন না।’ গত ৫ মার্চ রাসিক মেয়র ও নগর বিএনপির সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুলকে বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার বিভাগের আদেশ অবৈধ বলে হাইকোর্টের দেওয়া রায় বহাল রাখেন আপিল বিভাগ। বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোটের সরকারবিরোধী আন্দোলনের সময়ে নাশকতার চার মামলায় পুলিশ বুলবুলের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করে। ২০১৫ সালের ৭ মে তাকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

এদিকে আইনি লড়াইয়ে জিতে রবিবার সকাল ১১টায় মেয়রের চেয়ারে বসেন সিলেটের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। চেয়ারে বসার তিন ঘণ্টার মাথায় হাতে পান তাকে বরখাস্তের চিঠি। সিলেট নগরভবন সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের ‘সিটি করপোরেশন অ্যাক্ট’ বিষয়ক উপ-সচিব মো. মাহমুদুল আলম ফ্যাক্সে বরখাস্তের ওই চিঠি পাঠিয়েছেন।

সিলেট মেয়রের বরখাস্তের আদেশ

চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘আরিফুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে বিশেষ ট্রাইব্যুনাল মামলা-৪/২০০৯-এর সম্পূরক অভিযোগপত্র গত ২২ মার্চ আদালতে গৃহীত হয়েছে। সেহেতু সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীকে স্থানীয় সরকার বিভাগ আইন ২০০৯-এর-১২ উপধারা প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সাময়িক বরখাস্ত করা হলো।’

সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এ এম এস কিবরিয়া হত্যা মামলার অভিযোগ পত্র আদালতে গৃহীত হওয়ার পর ২০১৫ সালের ৭ জানুয়ারি স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় আরিফুলকে পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে। এই বরখাস্তের আদেশের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট করেন তিনি। শুনানি নিয়ে হাইকোর্টের বিচারপতি সৈয়দ মোহাম্মদ দস্তগীর হোসেন ও বিচারপতি মো. আতাউর রহমান খানের ডিভিশন বেঞ্চ ১৩ মার্চ বরখাস্তের আদেশ ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে দেন। এর বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্র পক্ষ। শুনানি নিয়ে আজ আপিল বিভাগ হাইকোর্টের আদেশ বহাল রাখেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here