ভেজালবিরোধী অভিযান

0
264

খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন

আধুনিক উৎপাদনব্যবস্থায় মাঠের ফলন বেড়েছে। বাংলাদেশ এখন খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়নের ফলে কৃষিপণ্য বিপণনেও এসেছে নতুনত্ব। এখন সহজেই দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে পণ্য পৌঁছে যাচ্ছে। নতুন নতুন ফসল বাজারে আসছে। নতুন কৃষিপণ্যের সঙ্গে পরিচিত হচ্ছে মানুষ। ধান, গমের সঙ্গে নতুন জাতের সবজি ও মৌসুমি ফল এখন বাজারে আসছে। এখন আমের মৌসুম। নতুন নতুন অনেক আমের সঙ্গে আমাদের পরিচয় ঘটেছে। এর পাশাপাশি কারখানায় তৈরি নানা খাদ্য ও পানীয় বাজারে আসছে। নাগরিক জীবনে অভ্যস্ত মানুষ এসব পণ্যে অভ্যস্ত হয়ে পড়ছে। কিন্তু আমরা কী খাচ্ছি, এ প্রশ্নটাই এখন বড় হয়ে দেখা দিয়েছে।

বাজারে এমন অনেক খাদ্যপণ্য পাওয়া যায়, যা ভেজাল। এক শ্রেণির মানুষ মহা-উৎসাহে ভেজাল খাদ্য তৈরির ব্যবসায়ে নেমে পড়েছে। শুরু হচ্ছে রোজার মাস রমজান। এ মাসে নানা ধরনের খাদ্যদ্রব্যের চাহিদা বাড়ে। আর এই সুযোগ নিয়ে খাদ্যে মেশানো হয় বিষাক্ত রাসায়নিক। কয়েক বছর আগে বাংলাদেশ সরকার ও জাতিসংঘ খাদ্য ও কৃষি সংস্থার যৌথ উদ্যোগে কিছু পরীক্ষা হয়েছিল। সেই পরীক্ষায় তখন বাজারে প্রাপ্ত ৪০ শতাংশ খাদ্যেই বিপজ্জনক মাত্রায় ভেজাল ও রাসায়নিক দ্রব্য পাওয়া যায়। এ ছাড়া ফলমূল, শাকসবজি, মাছ-মাংস, দুধ ও দুগ্ধজাত খাবার, এমনকি চাল, হলুদের গুঁড়া, লবণসহ নিত্যদিন ব্যবহার্য খাদ্যেও পাওয়া যায় ভেজাল ও রাসায়নিক। এই যখন অবস্থা, তখন তো আতঙ্কিত না হয়ে উপায় থাকে না। ভেজাল ও রাসায়নিক মিশ্রিত খাবার খেয়ে মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে ক্যান্সার, কিডনি ও লিভারের মতো দুরারোগ্য ব্যাধিতে। নিষিদ্ধ ডিডিটি থেকে শুরু করে ক্রোমিয়াম, আর্সেনিক, সিসা, ফরমালিন, অ্যালড্রিনসহ নানা জাতের রাসায়নিক মেশানো হচ্ছে খাদ্যপণ্যে। রমজান মাসে সুস্বাদু ইফতারি তৈরির নামে রাস্তার পাশে, এমনকি অভিজাত দোকানেও যা তৈরি হয়, তা কি আদৌ স্বাস্থ্যসম্মত? জনস্বাস্থ্য ও নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিত করতে ভেজালবিরোধী অভিযানের কোনো বিকল্প নেই। নিয়মিত এ অভিযান চালানো হলে ভেজালের কারবারিরা অন্তত খাদ্যে ভেজাল দেওয়া থেকে বিরত থাকবে।

শিল্পমন্ত্রী সম্প্রতি বলেছেন, রমজান মাসে প্রতিদিন চারটি করে মোবাইল কোর্ট পরিচালিত হবে। বিএসটিআইয়ের চলমান কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ঢাকা মহানগরীর বাইরেও মোবাইল কোর্টের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। রমজান মাস সামনে রেখে খাদ্যে ভেজাল ঠেকাতে সারা দেশে ৬০০ স্যানিটারি ইন্সপেক্টরকে মাঠে নামার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তাঁরা কাঁচাবাজারসহ সব খাদ্যপণ্যের দোকান পরিদর্শন ও সন্দেহযুক্ত খাদ্যের নমুনা পরীক্ষাগারে পাঠাবেন। ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়রও ভেজালবিরোধী অভিযান পরিচালনার কথা বলেছেন। আমরা আশা করি, রমজান মাসে সারা দেশে ভেজালবিরোধী অভিযান চলবে। মানুষের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এর কোনো বিকল্প নেই। যেকোনো মূল্যে ভেজাল দূর করতে হবে। খাদ্যে ভেজাল ও রাসায়নিকের ব্যবহার শূন্যে নামিয়ে আনতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here