ভৈরবের বুকে আটকে যাচ্ছে কার্গো-জাহাজ; ধুঁকছে নওয়াপাড়া নৌ-বন্দর

0
20

রাজয় রাব্বি, অভয়নগর (যশোর) : যশোরের নওয়াপাড়া দেশের অন্যতম বাণিজ্যকেন্দ্র। হাজার হাজার কোটি টাকার পণ্যের বাজার নওয়াপাড়া। আর এই নওয়াপাড়া দেশের অন্যতম বাণিজ্য কেন্দ্রে রূপ নিয়েছে ভৈরব নদকে ঘিরে। কিন্তু যে নদকে ঘিরে এ বিশাল বাণিজ্য কেন্দ্র সেই নদই এখন ধুঁকছে মৃত্যুযন্ত্রণায়। অব্যাহত দখল, দূষন, অব্যবস্থাপনা ও বিআউডব্লিউটিএ এর উদাসীনতা এবং অপরিকল্িপত বিজ্রজ নির্মাণের ফলে নদের বুকে পুলি জমে ভরাট হয়ে গেছে। জাগছে চর। নৌযান চলাচলের জন্য হয়ে পড়েছে অনুপযোগী। চরে আটকে যাচ্ছে কার্গো জাহাজ। মালামাল লোড-আনলোডে দেখা দিয়েছে বিড়ম্বনা। সরু জায়গা দিয়ে কার্গো জাহাজ চলাচলে প্রায়ই ঘটছে দূর্ঘটনা। গত দশ দিনে কার্গো জাহাজের সাথে বিপরীত মুখী জাহাজের দু’টি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ফলে বন্দর ব্যাবহারকারী আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীরা এ বন্দর থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে। যদিও সম্প্রতি অর্থমন্ত্রণালয় থেকে নওয়াপাড়া নদী বন্দরের উন্নয়ন ও ভৈরব নদ খননে ৪শ’৪৫ কোটি টাকার প্রকল্প পাশের খবরে আশা দেখছেন আমদানিকারক ও ব্যবসায়ীরা। এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে নওয়াপাড়া নদী বন্দর টিকে থাকবে অন্যথায় নওয়াপাড়া নদী বন্দর অচিরেই মুখ থুবড়ে পড়বে এমন মন্তব্য ব্যবসায়ী ও সচেতন মহলের।
সড়ক, রেল ও নৌপথের চমৎকার মেলবন্ধন হওয়ার সুবাদে ব্যবসা-বাণিজ্যে বড় কেন্দ্রে রূপান্তর হয়েছে যশোরের অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া। নওয়াপাড়ার বুক চিরে বয়ে গেছে ভৈরব নদ। যশোর-খুলনা রেলপথ এবং ঢাকা-যশোর-খুলনা মহাসড়ক চলে গেছে নওয়াপাড়ার গাঁঘেষে। বিদেশ থেকে আমদানি করা হাজার হাজার কোটি টাকার পন্য প্রতিবছর খালাস হয় এ বন্দরে। এখান থেকে সারাদেশে সরবরাহ হয় কয়লা, পাথর, সার ও খাদ্যশষ্য। প্রায় হাজার কোটি টাকার অভ্যন্তরীণ পণ্যেরও বড় বাজার নওয়াপাড়া। নওয়াপাড়া নদী বন্দর এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বিভিন্ন জাহাজ থেকে অনেক বিড়ম্বনা সামলে মালপত্র নামাচ্ছে শ্রমিকরা। নদের বেশিরভাগ অংশে পলি জমা, জাগছে চর। চরে আটকে থাকা বেশ কিছু কার্গো জাহাজও দেখা গেছে। প্রায়ই কার্গো জাহাজের তলা ফেটে বড় ধরনের ক্ষতি হয় বন্দরে। স্থানীয় কয়েকজন বাসিন্দা জানান, ২০১৭ সালে ভৈরব নদ খননকাজ শুরু হয়েছিল, কিন্তু কিছুদিন খনন হয় আবার বন্ধ হয় যায়।
নওয়াপাড়া সার, সিমেন্ট ও খাদ্যশস্য ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব শাহ জালাল হোসেন বলেন, ‘অর্ধেকের মতো আমদানিকারক এই বন্দর রেখে এখন চট্টগ্রাম, মোংলায় পণ্য খালাস করছেন। আবার মাদার ভেসেল থেকে নাগরবাড়ি, গাবতলীসহ নানা বন্দরে পণ্য নিয়ে যাচ্ছেন। আমরা প্রতিনিয়ত ব্যবসা হারাচ্ছি।
অভয়নগর-নওয়াপাড়া পৌর হ্যান্ডলিং শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি ফাল্গুন মন্ডল বলেন, ‘নামমাত্র ড্রেজিং হয়। বন্দরে জাহাজের সংখ্যা দিন দিন কমছে। এমন চলতে থাকলে কয়েক বছরের মধ্যে নওয়াপাড়া শুধু নামেই নৌবন্দর থাকবে।’
নওয়াপাড়া নদীবন্দর কর্তৃপক্ষের উপপরিচালক মাসুদ পারভেজ বলেন, ‘আমাদের আন্তরিকতার কোনো ঘাটতি নেই। ড্রেজিংয়ে কিছু সমস্যা হচ্ছে। আশপাশের সব নিচু এলাকা ভরাট হয়ে যাওয়ায় স্পয়েল ফেলার জায়গা মিলছে না। তাই ড্রেজিং ধীরগতিতে চলছে। উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন মেশিন আনা গেলে স্পয়েল ফেলার সুবিধা হতো।’ বন্দর কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা যায়, নওয়াপাড়া নদীবন্দর এলাকায় টার্মিনালসহ বন্দর সুবিধা নির্মাণ-সংক্রান্ত একটি প্রকল্প সম্প্রতি অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে পাস হয়েছে। ৪৫৪ কোটি ১৩ লাখ টাকার প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে বিআউডব্লিউটিএ। এর মাধ্যমে নওয়াপাড়া পূর্ণাঙ্গ ণেওবন্দও হিসেবে যাত্রা করতে পারবে বলে আশা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের। প্রকল্পের সময়সীমা জুন ২০২৪ পর্যন্ত। প্রকল্পের অধীনে নিরাপদ নৌ চলাচলের জন্য প্রায় দুই লাখ ঘনমিটার খনন ছাড়াও ভূমি অধিগ্রহণ ও উন্নয়নের মাধ্যমে ২২ হাজার বর্গমিটার পার্কিং ইয়ার্ড, ৫৪০ বর্গমিটার বন্দর ভবন, ৭ হাজার ১৬৮ বর্গমিটার মালপত্র মজুত এলাকা এবং শ্রমিক বিশ্রামাগার নির্মাণ করা হবে।
প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী প্রকৌশলী মামুন উর রশীদ বলেন, উন্নয়ন প্রকল্পটি একনেকে ছাড় পেলেই বন্দর এলাকায় টার্মিনালসহ বন্দরের নানা সুবিধা বাড়বে; বিশেষ করে খননকাজ দ্রুত সম্পন্ন করার ব্যবস্থা নেওয়া হবে।