ভৈরব নদ বহমান হলে যশোর হবে দ্বিতীয় বাণিজ্য নগরী

0
314

সংবাদ ও জনউদ্যোগের গোলটেবিল বৈঠক

বিশেষ প্রতিনিধি : ভৈরব নদ বহমান হলে যশোর হবে দ্বিতীয় বাণিজ্য নগরী। আর তা করতে হলে প্রভাবশালীদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে নদের তীরের সব অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করতে হবে। স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা, সততার মাধ্যমে নদী খনন কাজ করতে হবে। নদের গভীরতা ও প্রশস্ততা বাড়াতে হবে। ভৈরব নদ সংস্কারের উদ্যোগ যশোরবাসীর দীর্ঘদিনের আন্দেলনের ফসল।
‘সংবাদ’ ও জনউদ্যোগ আয়োজিত গোলটেবিল আলোচনায় বক্তারা এসব কথা বলেন। গোলটেবিলের বিষয় ছিল ‘ভৈরব নদ সংস্কারে নাগরিক সমাজের ভাবনা’। যশোর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার সকালে গোলটেবিল আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়।
গোলটেবিলে উপস্থিত ছিলেন সংবাদ এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক খন্দকার মুনীরুজ্জামান। সঞ্চলনা করেন জনউদ্যোগ আহবায়ক এম আর খায়রুল উমাম। সমন্বয় করেন সাংবাদিক রুকুনউদ্দৌলাহ। আলোচনার শুরুতেই পানি উন্নয়ন বোর্ড যশোরের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রবীর কুমার গোস্বামী প্রকল্পের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। সরকার ভৈরব নদ খননে ২৭২ কোটি ৮১ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। আগামী ১০ এপ্রিল এ কাজের টেন্ডার আহবান করা হয়েছে।আলোচকবৃন্দ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, ২০১০ সালে তিনি যশোরের এক সভায় ভৈরব সংস্কারের প্রতিশ্র“তি দিয়েছিলেন। সাত বছরের মাথায় তার সেই প্রতিশ্র“তি বাস্তবায়ন হতে যাচ্ছে। বক্তরা বলেন, ভৈরব নদ খনন হলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে বৈপ্লবিক পরিবর্তন হবে। অববাহিকা অঞ্চলে মানুষের জীবনযাত্রায় গতি আসবে। কৃষি ও মৎস্যখাতে অভুতপূর্ব উন্নয়ন সাধিত হবে। তবে এ নদকে ইজারা দেয়া যাবে না। আলোচকবৃন্দ দৃঢ়তার সাথে বলেন, ভৈরব খনন কাজ দুর্ণীতিমুক্ত করতে হবে। জনগণকে কড়ায় গন্ডায় কাজ বুঝে নিতে হবে। খনন কাজ যাতে সুষ্ঠুভাবে হয় তার জন্য আন্দোলনকারীদের নিয়ে প্রয়োজনে তদারকি কমিটি গঠন করতে হবে।
প্রাণবন্ত আলোচনায় অংশ গ্রহণ করেন ভৈরব বাাঁচাও আন্দোণনের আহবায়ক প্রফেসর আফসার আলী, ওয়ার্কার্স পার্টির পলিট ব্যুরো সদস্য ইকবাল কবির জাহিদ, ন্যাপ এর যশোর জেলা সভাপতি মাস্টার নুর জালাল, জেলা মৎস্য কর্মকর্তা ড. শেখ শফিকুর রহমান, দৈনিক কল্যাণ সম্পাদক একরাম উদ দ্দৌলা, গ্রামের কাগজ সম্পাদক মবিনুল ইসলাম মবিন, প্রসেক্লাব সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমান, যশোর সাংবাদিক ইউনিয়ন সভাপতি সাজেদ রহমান বকুল, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের চেয়ারম্যান মো. মুনিবুর রহমান, যশোর চেম্বারের প্রাক্তন সভাপতি মিজানুর রহমান, যশোর জেলা মৎস্য চাষী হ্যাচারি মালিক সমিতির সভাপতি ফিরোজ খান, যশোর সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান সেতারা বেগম, সদর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোহাম্মদ আলী স্বপন, বাঁচতে শেখার নির্বাহী পরিচালক আনজেলা গোমেজ, সিপিবির সভাপতি অ্যাডভোকেট আবুল হোসেন, যশোর পৌরসভার সাবেক নির্বাহী প্রকৌশলী নাজির আহমেদ, আওয়ামী লীগ নেতা মোবাশ্বের হোসেন বাবু, জাসদের যশোর জেলা সহ সভাপতি আহসান উল্লাহ ময়না, অ্যাডভোকেট সৈয়দা মাসুমা বেগম ও শ্রমিক নেতা মাহবুবুর রহমান মজনু।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here