ভোটে জিতে আসলে স্যালুট করে চলে যাব-যশোরে কৃষিমন্ত্রী কৃষিমন্ত্রী ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক

0
92

নিজস্ব প্রতিবেদক : কৃষিমন্ত্রী বীরমুক্তিযোদ্ধা কৃষিবিদ ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেছেন, আমাদের দেশের কিছু মিডিয়া আছে, সুশিল সমাজ আছে, যারা বলছে দেশের অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে। সকালে ঘুম থেকে উঠে সুশিল সমাজ পত্রিকায় দেখে জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে কিনা, তারা স্বপ্ন দেখে বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা হয়ে যাক। ফখরুল ইসলাম আলমগীর, রিজভীরা হুমকি দিয়ে যাচ্ছে সরকার পতনের। কিন্তু ১৫ সালে তারা পারে নাই, আগামীতেও পারবে না। জনগণের প্রতি আস্থা থাকলে তারা ভোটে জিতে আসুক। আমরা স্যালুট করে চলে যাব। তবে তারেক জিয়া যেভাবে রিমোট কন্ট্রোলে দল চালায়, সেভাবে রিমোট কন্ট্রোলে মানুষের কাছে যাওয়া যাবে না।

কৃষিমন্ত্রী আজ বুধবার (২৪ আগস্ট) দুপুরে যশোর পিটিআই মিলনায়তনে ‘বিদ্যমান শস্য-বিন্যাসে তৈল ফসলের অন্তর্ভুক্তি এবং ধান ফসলের অধিক ফলনশীল জাতসমূহের উৎপাদন বৃদ্ধি’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ২০১৩ সালে হেফাজতের তাণ্ডবে মনে হয়েছে কখন সরকারের পতন হবে। ১৫ সালে ৯০ দিন একটানা হরতাল করেছে। ৯১ দিনের দিন খালেদা জিয়া বলেছিল সরকারের পতন না ঘটিয়ে ঘরে ফিরব না। কিন্তু ঐদিনই তাকে লেজ গুটিয়ে গুলশানের বাসায় ফিরতে হয়েছিল। সেখান থেকে তাকে জেলে যেতে হয়েছিল। জেলের আসামীকে শেখ হাসিনার দয়ায় আজ আবার গুলশানের বাড়িতেই রাখা হয়েছে।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু ছিলেন প্রকৃত কৃষক বন্ধু। কৃষকের অর্থনৈতিক মুক্তি না হলে প্রকৃত গ্রামবাংলা গড়ে উঠবে না বলেই তিনি বিশ্বাস করতেন। গ্রামীণ বাংলার জীবনের মূল ভিত্তিই কৃষি। এজন্য কৃষির ওপর বঙ্গবন্ধু সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিয়েছিলেন। তাঁরই সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাত ধরে বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ এবং খাদ্য নিরাপদ দেশ।

কৃষিবিদ ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, সারাবিশ্বে যখন দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতি, তখন সরকার মোটা টাকা ভর্তুকি দিয়ে বাজার সহনীয় পর্যায়ে রেখেছে। সরকার কৃষির ওপর সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে কাজ করছে। বর্তমান সরকার হচ্ছে কৃষক দরদি। সার, বীজ, প্রযুক্তি, প্রশিক্ষণ দিয়ে কৃষকদের সাহস ও আত্মবিশ্বাসকে বাড়ানো হয়েছে। সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারলে কৃষকদের জীবনযাত্রার মান উন্নত হবে। সত্যিকারঅর্থে কৃষকদের ভালো জীবনযাপনের জন্য কৃষিকে বাণিজ্যিকরণ করতে হবে।