ভ্যাটের হার নয়, আওতা বেড়েছে: অর্থমন্ত্রী

0
240

ঢাকা প্রতিনিধি: অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, আগামী ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ভ্যাটের হার বাড়ানো হয়নি, আওতা বাড়ানো হয়েছে।

শুক্রবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়াতনে বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ভ্যাটের হার বাড়েনি, আওতা বেড়েছে। ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসায়ীরা ভ্যাট দেবেন। ১৫ শতাংশ ভ্যাট কার্যকর করা হলেও জিনিসপত্রের দাম বাড়বে না। কারণ অনেক পণ্যে ভ্যাট ছাড় দেওয়া হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী, পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবির, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান নজিবুর রহমান, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব কাজী শফিকুল আযম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল দাবি করেন, সরকার চলতি ভ্যাট আইনে যে রাজস্ব আদায় করছে, তার চেয়ে ১৭ হাজার ৭০১ কোটি টাকা বেশি আদায় হবে ১৫ শতাংশ ভ্যাট সম্বলিত নতুন আইন কার্যকর হলে। ভ্যাট প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা ৩২ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৬০ হাজার করতে চাই আমরা। সেজন্য এই ভ্যাট আইন।

এ সময় তিনি জানান, জিনিসপত্রের দাম যেন না বাড়ে সেজন্য আরও ৫০৭টি পণ্যে ভ্যাট অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

বাজেটে বৈদেশিক সহায়তা বেশি ধরা হয়েছে, এটা অনেক বেশি তবে আদায় সম্ভব মন্তব্য করে অর্থমন্ত্রী বলেন, গত কয়েক বছর থেকে আমরা বিপুল পরিমাণ সহায়তা আদায় করছি। পাইপ লাইনে ব্যাপক টাকা রয়ে গেছে। কিন্তু ব্যবহার করতে পারছি না।

তিনি বলেন, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ বাস্তবায়নকারি সংস্থাগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে থাকে। এবার সে আলোচনা (রিভিউ) একটু বাড়াতে হবে। বাজেটে বৈদেশিক সহায়তার হার ধরা হয়েছে ২৭ হাজার কোটি টাকা। বাস্তবে কোনো বছরই এ পরিমাণ টাকা ছাড় করেনি দাতারা।

মুহিত বলেন, সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগে অতিদরিদ্রের সংখ্যা কমেছে। শিক্ষায় বরাদ্দ বেড়েছে। ইংলিশ মিডিয়াম ছাড়া অন্য কোনো শিক্ষায় কোনোরকম কর বাড়েনি।

দেশের বাজারে চালের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে আবুল মাল আব্দুল মুহিত বলেন, বাজেটের কারণে নয়, হাওরসহ বিভিন্ন অঞ্চলে প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে চালের দাম বেড়েছে।

তার বক্তব্যের পর চালের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরীও বলেন, দুর্যোগের কারণে ধান চাষ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় চালের বাজারে প্রভাব পড়েছে। চাল আমদানির মাধ্যমে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা হবে। বাজারে চালের অভাব হবে না।

তিনি বলেন, সরকারি উদ্যোগে চাল কেনা হবে জিটুজি পদ্ধতিতে। এজন্য আমরা টেন্ডারেরও আহ্বান করেছি। কৃষকদের পুষিয়ে দেওয়ার জন্যই আমরা তাদের কাছ থেকে চাল কিনে থাকি। কৃষকের কাছ থেকে সরকার জোর করে চাল ক্রয় করে না। হাওর এলাকায় দুস্থ জনগোষ্ঠীর খাদ্য সহায়তা (ভিজিএফ) চলছে। সম্প্রতি উপকূলে বয়ে যাওয়া ঘূর্ণিঝড় ‘মোরা’ এলাকায় সরকারের সাহায্য সহযোগিতা দেওয়া হচ্ছে।

অর্থমন্ত্রী গ্যাসের দাম বৃদ্ধির বিষয়ে বলেন, গ্যাসের দাম কিছুই বাড়ানো হয়নি বাজেটে। আমি শুধু সতর্ক করেছি, আমদানি করা গ্যাসের ওপর নির্ভরশীলতা বাড়লে গ্যাসের দাম বাড়বে।

প্রসঙ্গত, ৭ দশমিক ৪ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরে বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী। এতে মোট ৪ লাখ ২৬৬ কোটি টাকা ব্যয়ের বিপরীতে রাজস্ব আয় প্রাক্কলন করা হয়েছে ২ লাখ ৮৭ হাজার ৯৯১ কোটি টাকা। এতে ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ১২ হাজার ২৭৫ কোটি টাকা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here