ভ্যান চালিয়েই শিক্ষার আলো জেলে চলেছেন যশোরের শিক্ষা বন্ধু শহিদুল ইসলাম

0
1257
শিক্ষা বন্ধু শহিদুল ইসলাম-ছবিটি তুলেছেন আমাদের আলোচিত্রী বেলাল হোসেন বনি।

ডি এইচ দিলসান : বিগত ১০ বছর ধরে ভ্যান চালিয়ে অর্জীত অর্থ দিয়ে দরীদ্র ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে শিক্ষা উপকরন বিতরন করে চলেছেন শিক্ষা বন্ধু শহিদুল ইসলাম। গত ১০ বছরের মত আজ বুধবারও তিনি নিউ মার্কেট ট্রাক স্টান্ডের পাশে শিশু কল্যান প্রাথমিক বিদ্যালয় ও ১৩৬ নাম্বার শহীদ সরনী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দরিদ্র, এতিম ও প্রতিবন্ধী বাচ্চাদের মাঝে শিক্ষা উপকরন করেন।

শিক্ষা বন্ধু শহিদুল ইসলামের স্বাক্ষ্যাতকার নেন ম্যাগপাই নিউজের বার্তা সম্পাদক ডি এইচ দিলসান,-ছবিটি তুলেছেন আমাদের আলোচিত্রী বেলাল হোসেন বনি।

এমনি ভাবে তিনি মাগুরা ও নড়াইলের অসহায় শিক্ষার্থীদেরকেও সাহায্য করে চলেছে।
পর্দার আড়ালে থাকা এই আলোকিত মানুষটির সাথে একান্ত স্বাক্ষাতকারে বেরিয়ে এলো অনেক অজানা কাহিনী।
ম্যাগপাই নিউজের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো সেই অলোকিত মানুষটির স্বাক্ষ্যাতকার।

শিক্ষাবন্ধু শহিদুল ইসলাম যশোর জেলার পুলেরহাট এলাকার কৃষ্ণবাটী গ্রামের মৃত আমির হোসেনের ছেলে।
তিনি বলেন, আমার যখন ২ বছর বয়স তখন আমার বাবা মারা যায়, এর পর ৫ম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করি। তখন মাত্র ৪০ টাকার অভাবে আমি বিত্তি পরীক্ষা দিতে পারিনি। সে দিন থেকেই প্রতিঞ্জা করি অর্থের অভাবে কারো লেখোপড়া বন্ধ হতে দিবো না।
তিনি বলেন, আমি ২০০৪ সালে বিয়ে করি, এর পর ২০০৮ সাল থেকে আমি প্রতিটা গ্রামে গ্রামে, স্কুলে স্কুলে ঘুরে দরীদ্র পরিবারের ছেলে মেয়েদেরকে বই, খাতা, পেন্সিল,পোষাক, পরীক্ষার ফি ও নগদ টাকা দিয়ে আসছি। এমন অনেক সময় আছে আমি নিজে না খেয়ে ছেলে মেয়েদেরকে বই খাতা কিনে দিয়েছি।
৭ বছরে প্রায় ১৩শত বাচ্চাদের হাতে শিক্ষা উপকরণ তুলে দিয়েছেন শিক্ষা বন্ধু শহিদুল ইসলাম। তার একটাই ইচ্ছা যত দিন বেচে আছেন তত দিন এই কাজ করেই যাবেন বলে তিনি জানান। তিনি বলেন আমার মা আর স্ত্রীর অনুপ্রেরনায় আমার এ কাজে আরো বেশি উৎসাহিত হয়েছি।

শহীদ স্বরনী স্কুলে শিক্ষা উপকরন বিতরন করছেন শিক্ষা বন্ধু শহিদুল ইসলাম-ছবিটি তুলেছেন আমাদের আলোচিত্রী বেলাল হোসেন বনি।

তিনি বলেন, আমি ভ্যান চালিয়ে ও প্লাস্টিক সামগ্রী বিক্রী করে প্রতি মাসে ১০ হাজার টাকা আয় করি। এর মধ্যে ১ হাজার টাকা আমি বই খাতা কেনার জন্য আলাদা করে রেখে দিই। প্রতিমাসে এক হাজার টাকা করে জমিয়ে দরীদ্র বাচ্চাদের লেখাপড়ার খরচ চালিয়ে যাচ্ছি।
তিনি বলেন, যশোরের বিগত জেলা প্রশাসক ড. মোঃ হুমায়ুন কবির আমার কাজে খুশি হয়ে ভেকুটিয়া মুক্তেশ্বরী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বাধন খাতুন সহ ৩ ভাই বোনের জন্য ২৫ হাজার টাকা দিয়ে যান। বর্তমানে তারা ওই টাকা দিয়ে একটি গরু কিনেছে।
তিনি বলেন আমি এ আমার মায়ের জমিতি একটি কম্পিউটার প্রশিক্ষন কেন্দ্র করবো। যেখানে এস এস সি ও এইচ এসসি পাশ শিক্ষার্থীদের বিনামুল্যে কম্পিউটার প্রশিক্ষন দিবো, যাতে করে দরীদ্র শিক্ষার্থীরা বর্তমান বিশ্বের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে পারে।
তিনি বলেন আমি অনেক বার‌্য বিবাহ বন্ধ করে তাদেও হাতে বই তুলে দিয়েছি, এমনি ভাবে আমার আশৈ পাশে ঘটে যাওয়া বাল্য বিবাহ বন্ধ করে তাদেরকে আবার স্কুলে পাঠানোর জন্য আমি সকল ধরনের কাজ করে যাবো।

শিশু কল্যান প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষা উপকরন বিতরন করছেন শিক্ষা বন্ধু শহিদুল ইসলাম-ছবিটি তুলেছেন আমাদের আলোচিত্রী বেলাল হোসেন বনি।

এ ব্যাপারে ১৩৬ নাম্বার শহীদ সরনী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহাজাদ হোসেন বলেন, আমি শহিদুলকে ৭ বছর ধরে চিনি, ওর মত মানুষ এই যুগে আর একটিও পাওয়া যাবে বলে মনে হয় না। শহিদুল ভ্যান চালিয়ে দরিদ্র মেধাবী শিক্ষার্থীদের নানা ভাবে সাহায্য কওে যাচ্ছে, এটা নিশ্চয় প্রশাংসনিয়। তিনি বলেন আমরা যারা আছি আর সমাজের বিত্তবানরা যদি ওর পাশে থাকি তাহলে শহিদুল সমাজের পিছিয়ে পড়া ও ঝরে পড়া বাচ্চাদেরকে আলোর মুখ দেখাতে পারবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here