ভয়াল জনপদ ভাতুড়িয়া-৫

0
412

ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে নুরু বাহিনীর ক্যাডাররা
স্টাফ রিপের্টার: ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে ভয়াল জনপদ ভাতুড়িয়ার ডন নুরু ও তার বাহিনীর ক্যাডাররা। তারা প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া দিচ্ছে। বাইক দাবড়ে চালাচ্ছে চাঁদাবাজি। চলছে মদ আর মাদকের অবৈধ কারবার। সাথে অবৈধ অস্ত্রের ব্যবহার। বেড়েছে খুন খারাবী ও চুরি ছিনতাই। সরকারী রাস্তার পাশের গাছ কেটে বিক্রির অভিযোগও রয়েছে এদের বিরুদ্ধে। এই বাহিনীর ক্যাডাররা ডাকাতির মতো ঘটনাও ঘটাচ্ছে দেদারছে। সব জেনেও পুলিশ রহস্যজনক কারনে নিরব। পুলিশের এই নিরবতা নুরু বাহিনীর ক্যাডারদের আরো বেপরোয়া করে তুলছে। তারা এই জনপদের মানুষকে জিম্মি করে নিজেদের খেয়াল খুশির বাস্তবায়ন ঘটাচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।
বিগত সরকারের আমলে উত্থান ঘটে এই বাহিনীর। শহরের শংকরপুর কেন্দ্রীক একটি সন্ত্রাসী বাহিনীর ক্যাডার হিসেবে অন্ধকার জীবনের যাত্রা শুরু হলেও কালের পরিক্রমায় ভাতুড়িয়ার নুর ইসলাম ওরফে নুরু নিজেই এখন বাহিনী প্রধান। হাসান সিন্ডিকেটের সেকেন্ড ইন কমান্ড লিটুর রেখে যাওয়া অস্ত্র ও ক্যাডারদের নিজের করে নিয়ে নুরু বনে যান গডফাদার। চোরাচালানী, মাদক ও অস্ত্রের ব্যবসা, জমি ঘের দখল থেকে শুরু করে মানুষ খুন এই বাহিনীর প্রধান কার্যতালিকায় পরিণত হয়। কথায় কথায় প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে নুরু বাহিনীর ক্যাডাররা সিদ্ধ হস্ত। গত এক দশকেরও বেশি সময় ধরে এই বাহিনীর ক্যাডার আয়নাল আলীর ছেলে আব্দুল মান্নান ওরফে কসাই মান্নান,মৃত আকবার আলীর ছেলে মিন্টু ওরফে কালা মিন্টু, মৃত জবেদ আলীর ছেলে রওশন, আবুল কাশেমের ছেলে কবিরুজ্জামান ওরফে কাজল,আব্দুস সামাদের ছেলে আতিয়ার ওরফে আতি খোকা, ওয়াজেদ ড্রাইভারের ছেলে আলামিন,মৃত লতিফ গাজীর ছেলে আহসান,নুর ইসলামের ছেলে ইসরাজুল,আব্দুল মান্নানের ছেলে বাপ্পী,মৃত উসমানের ছেলে ইউনুচ,হাশেম আলীর ছেলে রফিকুল,আব্দুস সালামের ছেলে রাজু,মফিজুর রহমান মিস্ত্রির ছেলে সোহেল,রবিউলের ছেলে ইমরান, মৃত ওমর আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর, রওশন আলীর ছেলে আব্দুল গফ্ফার ও ইনামুল পিতা অজ্ঞাত নুরুর নির্দেশে প্রায় এক ডজন হত্যাকান্ড সংঘটিত করেছে। এর মধ্যে বিশেষ ভাবে লাউজানির ফোর মার্ডার, সাড়াপোলের সিরাজ, মাহিদিয়ার রেজাউল ও চাঁচড়ার অসিকার জোড়া হত্যাকান্ড, ভাতুড়িয়ার আলতাফ হত্যাকান্ড, মাহিদিয়ার কাংগাল জলিল,সুতিঘাটার লাবলু, পিডিবির গাড়ি চালক মতিয়ার, দাড়িপাড়া গ্রামের মহর আলী , চাঁচাড়ার রাষ্ট্রীয় পদক প্রাপ্ত মৎস্য ব্যবসায়ী ও সম্পাদক কামাল , ভাতুড়িয়ার কৃষক হাশেম আলী হত্যাকান্ড বিশেষ ভাবে উল্লেখযোগ্য। এছাড়া হাসান বাহিনীর ক্যাডার হিসেবে চানপাড়ার রশীদ ও বাচ্চু, দৈনিক জনকন্ঠের সাংবাদিক শামছুর রহমান কেবল ও দৈনিক রানার সম্পাদক আর এম সাইফুল আলম মুকুল হত্যাকান্ড, যশোরের আলোচিত উদীচী হত্যাকান্ডসহ বিভিন্ন হত্যাকান্ডে মিন্টু, মান্নান, জাহাঙ্গীর,সেলিম, মফিজ মেম্বর ও রওশনের নাম উঠে আসে।
সর্বশেষ তথ্যানুযায়ী বাহিনী প্রধান নুর ইসলাম ওরফে নুরুসহ তার বাহিনীর অধিকাংশ ক্যাডার ৮/১০ টি মামলার আসামী হিসেবে পুলিশের খাতায় অপরাধীর তালিকাভুক্ত । খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে, বর্তমানে নুরুর নামে ৩টি মার্ডার মামলাসহ ৬টি মামলা আদালতে বিচারাধীন। এছাড়া ২টি মামলায় এজাহার নামীয় আসামী হিসেবে সে পুলিশের কাছে মোস্ট ওয়ান্টেড। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন। রহস্যজনক কারনে পুলিশ এই মোস্ট ওয়ান্ডেট ক্রিমিনালকে আটকে গড়িমসি করছে। সুত্র বলছে প্রায়ই নুরু স্বশস্ত্র অবস্থায় শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে অবস্থান করলেও পুলিশের চোখে সে পলাতক। তার অন্যতম ক্যাডার কালা মিন্টু ও কসাই মান্নান প্রত্যেকেই ৬টি হত্যা মামলাসহ প্রায় একডজন মামলার ফেরারী আসামী। নুরু বাহিনীর ক্যাশিয়ার খ্যাত জাহাঙ্গীর অবৈধ অস্ত্র ও মাদকের কারবারী। সে নুরু বাহিনীর অস্ত্র ভান্ডারের রক্ষক। বিভিন্ন অপারেশনের পর সে অস্ত্র নিজস্ব কায়দায় লুকিয়ে রাখে পরবর্তী অপারেশনের জন্য। এই জাহাঙ্গীরের নামেও অস্ত্র ও মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে ৪টি ও ৩টি মার্ডার মামলা রয়েছে। এর মধ্যে ২ টি মামলায় সে দীর্ঘদিন কারাবাস করে। বাকী কয়েকটি মামলায় সে জামিনে রয়েছে। এছাড়া কৃষক হাসেম আলী হত্যা মামলায় সে ফেরার। রওশন চাঁচড়ার অসিকার, মাহিদিয়ার রেজাউল,সাড়াপোলের সিরাজ, দাড়িপাড়ার আলতাফ ও ভাতুড়িয়ার কৃষক হাসেম আলীসহ প্রায় হাফডজন হত্যা মামলার আসামী। এছাড়া যশোর কোতয়ালী, মণিরামপুর ও ঝিকরগাছা এবং শার্শা থানায় তার নামে অস্ত্র ও মাদক দ্রব্য আইনে ১২টি মামলা রয়েছ্ েএর মধ্যে ৩টি মামলায় সে ১২ বছরের সাজা খেটেছে। পরে উচ্চ আদালত থেকে জামিনে বের হয়ে পূর্বের সন্ত্রাসী কর্মকান্ডে লিফÍ হয়। বর্তমানে সে নুরু বাহিনীর অস্ত্র ও মাদক ব্যবসায় নিয়ন্ত্রক বলে জানা গেছে। একই ভাবে নুরু বাহিনীর ক্যাডার আরশাদ, আলি রাজাকার, ইউনুচ, হাশেম আলী, রফিকুল, কসাই মকলেস ও কসাই আমজেদমামুন, জাকির, কাজল, হাফিজুর, শামীম, সেলিম ড্রাইভার, আতি খোকা, মোস্তফা, মফিজ মেম্বর,গফফার, রাজু, রুশাদ, আজিম, ইকরামুল মেম্বর, নুর মুহুরী অস্ত্র তৈরিকারক ল্যাংড়া কামরুল নুরু মহুরীর জন্য বোমা তৈরি করতে গিয়ে আহত হয়। ল্যাংড়া কামরুলকে ভারত থেকে চিকিৎসা করিয়ে আনে এই নুর মহুরী। কিছুদিন আগে বিশেষ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে ল্যাংড়া কামরুল ও ল্যাংড়া কামরুলের স্ত্রী অস্ত্র তৈরির সরঞ্জাম, দেশীয় অস্ত্র, ইয়াবাসহ আটক হয়, কিন্তু ঘটনাস্থল থেকে টের পেয়ে নুর মহুরীর ভাইপো রফিকুল পালিয়ে যায়। জামিন নিয়ে বের হয়ে ল্যাংড়া কামরুল নুর মহুরীর নের্তৃত্বে ইয়াবা ব্যবসা পরিচালনা করছে। ল্যাংড়া কামরুল দেশীয় অস্ত্র ও বোমা তৈরিতে পারদর্শী। বোমা আজাদ হেমায়েত হত্যাসহ একাধিক মাদক, নাসকতা, চুরি-ছিনতাই, ডাকাতি মামলার আসামী। বোমা আজাদ নুর মহুরীর ইয়াবা ব্যবসা পরিচালনা করে। ২/৩ বছর আগে নুর গংয়ের জন্য বোমা তৈরি করার সময় বোমা ফেটে ডান হাতের কব্জি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। সোহেল, আলম মেম্বর, জামাই এনামুল নুর মুহুরীর অবৈধ টাকার ক্যাশিয়ার হিসাবে পরিচিত। নুর মহুরীর সকল অপর্কমকে ঢাকার জন্য তার জামাইকে ব্যবহার করে। মেশিন বিপ্লব ওরফে বাপ্পী, দিপু, আলামিন, হারুন, আলামিন-২, আনছার,রহমান,হাসান ওরফে কসাই হাসান, তুহিন, জুয়েল, মাসুম,টিটো ওরফে কটা টিটো,শান্ত,বাবু ওরফে কটা বাবু,প্যাকেজ বাবুর নামে একাধিক হত্যা মামলাসহ ৫/৭টি করে মামলা রয়েছ্ েএসব মামলার মধ্যে অনেক গুলোতে আসামীরা সাজা ভোগ করেছে। কোন কোন মামলায় এরা পুলিশের চোখে পলাতক। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন । অভিযোগ রয়েছে এসব ক্যাডাররা বিশেষ রফায় পুলিশকে ম্যানেজ করে তাদের কর্মকান্ড অব্যাহত রেখেছে। সম্প্রতি এই ক্যাডারদের কয়েকজনের ভাতুড়িয়া ও বেড়বাড়ি দায়পাড়ায় সশস্ত্র মহড়া দেওয়ার খবরে পুলিশের একটি বিশেষ টিম খবর পেয়ে তাদের ধাওয়া করে। এর পর কয়েকদিন ক্যাডাররা আতœগোপনে থাকলেও বর্তমানে তারা এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। এসব বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষন করলে যশোর কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ মনিরুজ্জামান বলেন, অস্ত্রবাজ সন্ত্রাসীদের আটকে পুলিশের অভিযান অব্যাহত রয়েছে। কিন্তু যোগাযোগ ব্যবস্থার কারনে তাদেরকে ধরা সম্ভব হচ্ছে না। তবে পুলিশের চেষ্টা চলমান। যে কোন মুহুর্তে এসব ক্যাডারদের আটক করা হবে।প্রয়োজনে এসব খুনিচক্রকে আটক ও অবৈধ অস্ত্র উদ্ধারে কম্বিং অপারেশনও চালানো হতে পারে বলে তিনি সাংবাদিকদের আশ^স্ত করেন। ####