মণিরাপুরের ঝাঁপা বাওড় নিয়ে দ্বন্দ্ব ।। আইনের আশ্রয় নেওয়ায় ‘বঞ্চিতদের’ বাড়িতে হামলা করছে সন্ত্রাসীরা

0
402

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর : সর্বোচ্চ দরপত্র দাখিলকারীদের যশোরের মণিরামপুরের ঝাপা বাওড় ইজার থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এর প্রতিকার চেয়ে তারা আইনের আশ্রয় নেওয়ায় সন্ত্রাসীদের হুমকির মুখ পড়েছেন। বঞ্চিত ‘ঝাপা বাওড় মৎস্যজীবী সমিতির’ নেতাদের উপর একাধিকবার হামলা করা হয়েছে। বর্তমানে তারা পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। ফলে শতাধিক জেলে পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে।
আজ মঙ্গলবার (১৩ জুন) প্রেসক্লাব যশোরে এক সংবাদ সম্মেলন করে এসব অভিযোগ করেন ঝাপা বাওড় মৎস্যজীবী সমিতির সভাপতি কৃষ্ণপদ বিশ্বাসের চেলে রনি কুমার বিশ্বাস। এসময় শ্রীপদ বিশ্বাস, জগনাথ বিশ্বাস, সন্তোষ বিশ্বাস, কনিকা বিশ্বাস, পুর্ণিমা বিশ্বাস, যুথিকা বিশ্বাসসহ শতাধিক নারী পুরুষ উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলন শেষে প্রেসক্লাব যশোরের সামনে তারা জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে মানববন্ধন করেন।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, গত ছয় বছর ধরে ঝাপা মৎস্যজীবী সমিতি মণিরাপুরের ঝাপা বাওড় সরকারের কাজ থেকে ইজারা নিয়ে মাছ চাষ করে আসছে। ইজারার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে যশোর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে দরপত্র আহবান করা হয়। দরপত্রে ঝাঁপা মৎসজীবী সমিতি সর্বোচ্চ ১০ লাখ ৮০ হাজার টাকা দর দেয়। দরপত্রে অংশ নেওয়া আরেক প্রতিষ্ঠান সোনার বাংলা মৎসজীবী সমিতি দর দেয় ১০ লাখ ৭৬ হাজার টাকা। কিন্তু সর্বোচ্চ দরদাতা ঝাঁপা মৎসজীবী সমিতিকে বাওড়টি ইজারা না দিয়ে সোনার বাংলা মৎসজীবী সমিতিকে দেওয়া হয়। এজন্য ঝাঁপা মৎসজীবী সমিতি খুলনা বিভাগীয় কমিশনারের কাছে একটি আবেদন করে। সেই আবেদনের ভিত্তিতে বাওড়টির ইজারা কার্যক্রম স্থগিত করা হয়। পরে উচ্চ আদালতও স্থগিত আদেশ বহাল রাখে। আইনগত এই ব্যবস্থা গ্রহণ করায় ঝাঁপা মৎসজীবী সমিতি সদস্যদের বাড়িতে হামলা করা হচ্ছে। সর্বশেষ গত ৯ জুন উপজেলার কোমলপুর ও মশ্মিমনগর ইউনিয়নের রামপুর জেলা পাড়ার অর্ধশতাধিক বাড়িতে হামলা করে প্রতিপক্ষরা। হামলার নেতৃত্ব দেন সুব্রত বিশ্বাস ও তার ভাই বিপ্লব বিশ্বাস। হামলার পর রাজগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শাস্ত করে। এরপর থেকে সন্ত্রাসীরা বাড়ি বাড়ি গিয়ে জেলেদের হুমকি দিচ্ছে। এমনকি গতকাল সংবাদ সম্মেলনে আসার সময়ও তাদের গাড়িতে একাধিক স্থানে হামলা করা হয়েছে। এজন্য তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here