মণিরামপুরের ডুমুরখালী বাজারে সরকারী জমিতে অবৈধভাবে বিল্ডিং করছে প্রভাবশালী কতিপয় ব্যক্তি

0
388

উত্তম চক্রবর্ত্তী, স্টাফ রিপোটার:যশোরের মণিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জ এলাকার ডুমুরখালী বাজারে প্রায় ৩ শতক সরকারী জমি অবৈধভাবে দখল করে নিয়েছে প্রভাবশালী কতিপয় ব্যাক্তি। ঐ জমিতে থাকা কয়েকটি দোকান উচ্ছেদ করে ও পাবলিক টয়লেট বন্ধ করে ক্লাবের নামে পাঁকা বিল্ডিং শুরু করেছে। এ বিষয়ে বাজারের লোকজন জেলা প্রশাসক সহ বিভিন্ন দপ্তরে অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগের ভিত্তিতে হরিহরনগর ইউনিয়ন ভুমি অফিসার এসে বিল্ডিং এর কাজ বন্দ দিয়েছেন। বুধবার বিকালে ঐ বাজারের যেয়ে জানা গেছে পাকা রাস্তা সংলগ্ন বাজারের মধ্যবর্তী স্থানে ডুমুরখালী মৌজার ১ এর ১ খতিয়ানের সাবেক ৩৬৯ দাগ, হাল ১০১৬ দাগের প্রায় ৩ শতক খাস জমি যেখানে ফকির মহলদারের কাঠের দোকান, আকবার মহলদারের কাঠের দোকান, ষট্রির সেলুনির দোকান ও সরকারী ভাবে চার কক্ষ বিশিষ্ট একটি পাবলিক টয়লেট রয়েছে। অথচ ডুমুরখালী গ্রামের প্রভাবশালী কতিপয় ব্যক্তি ঐ সকল দোকান উচ্ছেদ করে ও পাবলিক টয়লেটটি বন্ধ করে ক্লাবের নাম ভাঙ্গিয়ে সকল জমির উপর পাকা বিল্ডিং শুরু করেছে। এদিকে বাজারের লোকজন ও দোকানদারেরা বিষয়টি দেখে হতবাক হয়েও বলার কিছু ছিলনা। অবশেষে মঙ্গলবার হরিহরনগর ইউনিয়ন ভুমি অফিসের কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক সরেজমিনে এসে বিষয়টি দেখে ও উপজেলা ভুমি কমিশনারের নির্দেশে কাজটি বন্ধ করে দেন। এ বিষয়ে কথা হয় বাজার কমিটির সাবেক সভাপতি ও সাবেক মেম্বর আব্দুল খালেকের সাথে, তিনি প্রতিনিধিকে বলেন, খাস জমি যেখানে পাবলিক টয়লেট রয়েছে, ৩ ব্যক্তির দোকান রয়েছে। সে গুলো বন্ধ করে দিয়ে বিল্ডিং করা ঠিক হচ্ছেনা। বাজার কমিটির সভাপতি আনিচ ও সেক্রেটারী রবিউল ইসলাম বলেন, খাস জমিতে পাবলিক টয়লেট আর ঐ টয়লেট যদি বন্ধ হয়ে যায় তাহলে বাজারের লোকজন ও দোকানদারদের চরম অসুবিধা ভোগ করতে হবে। কথা হয় স্থানীয় মেম্বর আব্দুল হামিদ বুলবুলের সাথে তিনি বলেন, ব্যক্তি কিছু লোকের সুবিধার্থে ক্লাবের নামে বিশাল একটা বিল্ডিং এর কাজ শুরু করেছে। ফলে বাজারের অনেক ক্ষতি হবে। যার কারনে উপরের দপ্তরে এলাকাবাসী অভিযোগ দিয়েছে। সেই মোতাবেক গতকাল এসে কাজ বন্ধ করে দিয়েছে। আমি মনে করি জনসুবিধার্থে ঐ জমিতে যেন কোন বিল্ডিং না হয়। ইউনিয়ন ভুমি কর্মকর্তা আব্দুর রাজ্জাক এর সাথে কথা হলে তিনি প্রতিনিধিকে বলেন, উপজেলা ভুমি কমিশনার অফিস থেকে আমাকে বিষয়টি জানিয়েছিল সেই মোতাবেক আমি যেয়ে স্যারের নির্দ্দেশে কাজ বন্ধ করে দিয়েছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here