মণিরামপুরে অপহরণের ৫ মাস পরও উদ্ধার হয়নি প্রবাসীর স্ত্রী ৩ সন্তানের জননী রাহিমা মাকে ফিরে পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা দুই কন্যার

0
241

উত্তম চক্রবর্ত্তী : প্রবাসী বাবার পাঠানো টাকার লোভে মা ও ৪ বছরের বোন সাহারাকে বাড়ি থেকে অপহরণ করে নিয়ে গেছে। অপহরণের প্রায় ৫ মাস অতিবাহিত হলেও এখনো মা ও ছোট বোন উদ্ধার হয়নি। অপহরণের পরদিন স্থানীয় পুলিশি তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জের কাছে অভিযোগ করা হলেও আজও কোন পদক্ষেপ নেয়নি পুলিশ-এমনই অভিযোগ করে কাঁদছিলেন যশোরের মণিরামপুর উপজেলার জালালপুর গ্রাম থেকে অপহৃত রাহিমা খাতুনের বড় মেয়ে পারভীন সুলতানা ও মেঝ মেয়ে তানজিলা খাতুন। মা-বোনকে ফিরে পেতে দ্রুত প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন তারা।
অপহৃতার কলেজ পড়–য়া মেয়ে পারভীনা সুলতানা জানায়, তার বাবা আবুল হোসেন উপজেলার জালালপুর গ্রামের আজুবালী পাটালীর ছেলে। বাবা সংসারে স্বচ্ছলতা আনতে ২০০৬ সালে সৌদি আরবে পাড়ি জমাই। একটানা দীর্ঘ ৯ বছর পর থাকার পর ২০১৪ সালে সে দেশে ফিরে আসার তিন মাস পর স্ত্রী ও তিন মেয়েকে রেখে আবারও বিদেশের কর্মস্থলে চলে যায়। গত ৩ বছরের রোজগারারের প্রায় ১৫ লাখ টাকা স্ত্রী রাহিমা খাতুনের নামে (খেদাপাড়া বাজারের কৃষি ব্যাংকের ১৬৫০ হিসাব নম্বরে ) পাঠাই। প্রবাসী স্বামীর পাঠানো টাকা উত্তোলণে ব্যাংকে আসা যাওয়ার পথে রাহিমার পরিচয় হয় একই গ্রামের তবিবর রহমানের ছেলে শামিনুর রহমান ওরফে শামিমের সাথে । রাহিমার ্একাউন্টের টাকা ও গহনার ওপর লোলুপ দৃষ্টি পড়ে শামীমের। ওই অর্থ ও গহনা হাতিয়ে নিতে ছল-ছাতুরির আশ্রয় নেয় শামীম। এক পর্যায় প্রায় ৫ মাস আগে গভীর রাতে শামিমসহ কয়েকজন কৌশলে রাহিমার ঘরে ঢুকে প্রায় ১০ ভরি স্বর্ণালংকার, মূল্যবান জিনিসপত্রসহ রাহিমাকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। এ ঘটনার দুই দিন পর মা ও ছোট বোনকে ফিরে পেতে খেদাপাড়া পুলিশ ফাঁড়িতে গিয়ে ইনচার্জ এসআই ইকবাল হোসেনের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। অভিযোগের ভিত্তিতে ইনচার্জ ওই যুবকের পিতা তবিবরের বাড়িতে গিয়ে মা-বোনকে ফিরিয়ে দিতে চাপ প্রয়োগ করে। কিন্তু রহস্যজনক কারনে দুই দিন পরেই নিভে যায় পুলিশের সেই তৎপরতা।
পুলিশের এমন ভ’ূমিকায় মা হারা কন্যারা হতাশায় পড়ে যান। একমাত্র চাচাও থাকেন বিদেশে। মাস খানেক আগে প্রবাসী আবুল হোসনে দেশে ফিরে আসেন। আবুল হোসেন জানান, তার কষ্টার্জিত অর্থ, স্বর্ণালংকার ও স্ত্রী-মেয়ে উদ্ধারে দফায় দফায় ফাাঁড় ইনচার্জের কাছে ধর্না দিলেও আজও পুলিশ কাউকে উদ্ধার করতে পারেনি।
বিষয়টি নিয়ে শামীমের পিতা তবিবর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, তার ছেলে গত ২৯ নভেম্বর বাড়ি থেকে চলে যায়। পরে ৯ ডিসেম্বর জানতে পারেন আবুলের বউকে আর পাওয়া যাচ্ছে না। তারা সন্ধান করেও কোন খোঁজ পাইনি বলে তিনি দাবি করেন। জানতে চাইলে ফাঁড়ি ইনচার্জ এসআই ইকবাল হোসেন বলেন, ভিকটিমদের উদ্ধারে জোর তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে বলে তিনি দাবি করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here