মণিরামপুরে আওয়ামীলীগ নেতা ও প্রধান শিক্ষককে আইএস’র হুমকি

0
280

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর (যশোর): যশোরের মণিরামপুরের ৮ নং হরিহরনগর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগাঠনিক সম্পাদক ও খাটুরা হাই স্কুলের সভাপতি আবুল কালাম আজাদ এবং ওই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক এ কে এম বজলুর রশিদকে আইএস পরিচয়ে লিখিত হুমকি দেয়া হয়েছে। গত ২৫ মার্চ বিকেলে ঝিকরগাছা সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের শাখা থেকে একই খামে বন্ধী লাল ফিতা জড়ানো দুটি চিঠি হাতে পান তারা। খামটি তার আগের দিন অর্থাৎ ২৪ মার্চ উছামা,পিতা আকবার নামে যশোরের নওয়াপাড়া বাজারের সুন্দরবন কুরিয়ার সার্ভিসের শাখা হতে পোষ্ট করা হয়েছে। এদিকে এই ঘটনায় আতংকিত হয়ে ২৭ মার্চ বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে মণিরামপুর থানায় ডাইরি করেন আবুল কালাম আজাদ। গত ৪ দিন আগে তিনি থানায় জিডি করলেও পুলিশের নিষেধের কারণে তিনি তা কাউকে না জানিয়ে গোপন রাখেন। কিন্তু এত সময় পার হলেও পুলিশ এই ঘটনার কোন ক্লু উদ্ধার করতে না পারায় আতংকে বৃহস্পতিবার সকালে আবুল কালাম আদায় বিষয়টি প্রকাশ করেন। ডাকযোগে পাওয়া চিঠি ও ডিজি সূত্রে জানা যায়,আবুল কালাম আজাদ ও বজলুর রশিদ জালেমদের অন্তরঙ্গ। আইএস শুধু একটি দেশেই নয়,সারা পৃথিবীতে তাদের সংগঠন তৈরি করে ফেলেছে তাদের মত জাতীয় ইসলামী দুশমনদেরকে দুনিয়া থেকে দূর করার জন্য। আইএস তাদের বন্ধুদের মাধ্যমে জানতে পেরেছে আবুল কালাম আজাদ ও খাটুরা স্কুলের প্রধান শিক্ষক বজলুর রশিদ যেই ময়দানে নামাজ হয়,সেই ময়দানে নাচ গানের ব্যবস্থা করছে। তারা এই দুই জনকে ২৬ মার্চ উপলক্ষে রাতে খাটুরা হাইস্কুল মাঠে অনুষ্ঠান করতে নিষেধ করেন। আইএস আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় পায় না। যদি তারা রাতে অনুষ্ঠান করে তাহলে ২৭ তারিখে তাদের দেহ থেকে মাথা আলাদা করে দেবে যার হাত থেকে কোন নেতা বা তাদের মা হাসিনা তাদেরকে বাঁচাতে পারবে না। এমনকি তাদের জানাজা পড়ার জন্য লাশও খুঁজে পাওয়া যাবে না। তাই জীবনের মায়া থাকলে অনুষ্ঠান বন্ধ রাখতে তাদেরকে নিষেধ করা হয়। আবুল কালাম আজাদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি ২৬ মার্চের অনুষ্ঠান করার জন্য স্থানীয় জামায়াত-বিএনপির লোকজনদের সাথে আলাপ করেছিলাম। তারা আমাকে অনুষ্ঠান করতে নিষেধ করে। আমি তাদের কথা না শুনে অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত নেয়ার পরের দিন এই চিঠি পাই।’ তিনি জানান,যেহেতু অনেক টাকা খরচ হয়ে গেছে,তাই চ্যালেঞ্জের মুখমুখি হয়ে অনুষ্ঠান করি। অনুষ্ঠান পন্ড হতে পারে ভেবে বিষয়টি কাউকে জানাইনি। অনুষ্ঠান শেষ করে পরের দিন থানায় জিডি করি। পুলিশ তদন্তের কথা বলে তাদের কাছ থেকে চিঠির মূল কপি নিয়ে নেয়। আর বিষয়টি চাপা রাখতে বলে। পুলিশের কথা শুনে চুপ ছিলেন তারা। কিন্তু এত সময় পার হলেও পুলিশ এখনও কিছুই করতে পারেনি। আবুল কালাম আজাদ আরও জানান, তারা আতংকে আছেন। হেড মাষ্টারকে তার মেয়েরা ভয়ে ঘরে তালা মেরে রেখেছে। আতংক কোন ভাবেই কাটছে না। জানতে চাইলে বৃহস্পতিবার বিকেলে মণিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি (তদন্ত) জিডির বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে তিনি এই বিষয়ে রিপোর্ট করার দরকার নাই বলে ফোনটি রেখে দেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here