মণিরামপুরে কর্মসংস্থানের শ্রমিকদের দিয়ে পুকুর খননের অভিযোগ এক ইউপি চেয়ারম্যানসহ ৩ মেম্বরকে শোকজ

0
304

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর (যশোর) : মণিরামপুরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচী প্রকল্পের অর্থ হরিলুটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। কর্মসংস্থানের কাজে অধিকাংশ শ্রমিক অনুপস্থিত থাকা, শ্রমিকদের দিয়ে পুকুর খননসহ নানা অভিযোগে পাওয়া গেছে। ইতোমধ্যে এসব অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা মেলায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার উপজেলার এক ইউপি চেয়ারম্যানসহ তিন মেম্বরকে শোকজ করেছেন।

জানাযায়, সরকার দেশের দরিদ্র জনগোষ্টির আর্থসামাজিক উন্নয়নে ২০০৮ সালে এই প্রকল্প গ্রহন করে। চলতি অর্থ বছরে এই প্রকল্পের আওতায় উপজেলার ১৭ ইউনিয়নে ৩৯শ’ ২৮ জন শ্রমিকের বিপরীতে ৩ কোটি ১৪ লাক ২৪ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। ১ম পর্যায়ে উপজেলায় গত ২৮ জানুয়ারি থেকে এই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। ২য় পর্যায় চলতি মাসের ২ মে থেকে শুরু হয়েছে।

সরেজমিন শনিবার ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডে গিয়ে দেখা যায় সেখানে ২৫ জনের স্থলে মাত্র ১৫ জন শ্রমিক কাজ করছে। এসময় শ্রমিকরা একটি পুকুর খনন করে রাস্তায় মাটি ফেলছে। পুকুর খননের বিনিময়ে টাকা নেয়া হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে সেখানে উপস্থিত পুকুরের মালিক সৈয়দ আলী বলেন, কিছু না দিলে কি হয়? উপস্থিত শ্রমিক সেলিম হোসেন বলেন, ১ম বার মাত্র ১২/১৩ জন শ্রমিক করতো। এরপর স্যারেরা বকাবকি করায় এবার একটু বেশী জনে কাজ করছে। পরে ২ নং ওয়ার্ডে গেলে দেখা যায় সেখানে মাত্র ১৪ জন শ্রমিক কাজ করছে। পরে খোঁজ নিয়ে জানাযায়, এই ওয়ার্ডে নিয়মিত ২৫ জন শ্রমিকের কাজ করার কথা। এসময় শ্রমিক সরদার আতিয়ার রহমান বলেন, মিথ্যা কথা বলবো না, প্রতিদিন এই দলের মাত্র ১৪/১৫ জন শ্রমিক কাজ করে। বাকীদের চেহারা দেখেননি তিনি। এসময় নারী শ্রমিক ফাতেমা, কাজল ক্ষোভ করে বলেন, এখনো তারা ১ম পর্যায়ের ১৫ দিনের হাজিরার টাকা পাননি। কি কারনে পাননি তাও তারা জানে না। একই অবস্থা দেখা যায় পাশ্ববর্তী ৫ নং ওয়ার্ডে। সেখানে ২২ জন শ্রমিকের কাজ করার কথা থাকলেও মাত্র ১৪ জনকে উপস্থিত দেখা যায়। বাকীদের শ্রমিক সরদার আবুল খায়ের বলেন, তারা কেন আসে না, বিষয়টি চেয়ারম্যান-মেম্বর ভাল বলতে পারবেন। এরপর ৪ নং ওয়ার্ডে গেলে সেখানে ২৭ জন শ্রমিকের স্থলে মাত্র ১৬ জনকে উপস্থিত দেখা যায়। এসব ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা ইয়ারুল হকের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান, ওই ইউনিয়নের অনিয়মের বিষয়টি তিনি সরেজমিন গিয়ে দেখেছেন। যা উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করা হয়েছে। কর্মসৃজন প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম সরোয়ার বলেন, অনিয়মের বিষয়টি ধরা পড়ায় ইতোমধ্যে ঢাকুরিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দূর্গাপদ সিংহ, মেম্বর গৌর চন্দ্র দে, হোসেন আলীকে শোকজ করা হয়েছে। এ নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান দূর্গাপদ সিংহ বলেন, তিনি এখনো অফিসিয়ালি চিঠি পাননি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here