মণিরামপুরে চাল কান্ডে ভাইস চেয়ারম্যান ও উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুর জামিন লাভ

0
80

উত্তম চক্রবর্তী,মণিরামপুর অফিস॥ মণিরামপুর উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুর জামিন লাভ। মণিরামপুরে ত্রানের ৫৪৯ বস্তা চাল কান্ডে তিনি গত ৭ ফেব্রুয়ারী রোববার সকালে যশোরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বিজ্ঞ বিচারক ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। গতকাল বুধবার একই আদলত থেকে জামিন নিয়ে তিনি এদিন বিকালে জেল থেকে বের হয়ে আসেন। মামলার বিবরন অনুয়ায়ী গত বছরের ৪ এপ্রিল বিকেলে পৌর এলাকার বিজয়রামপুরে ভাই ভাই রাইস মিল এন্ড চাতালে অভিযান চালিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের উপস্থিতিতে সরকারী কাবিখার ৫৪৯ বস্তা চাল জব্দ করে। এ সময় চাতাল মালিক আব্দুল্লাহ-আল-মামুন এবং ট্রাক চালক ফরিদ হাওলাদার হাতেনাতে আটক হয়। এ সময়ে চালের কোন বৈধ কাগজপত্র দেখাতে না পারায় এসআই তপন কুমার সিংহ বাদী হয়ে কালোবাজারির মাধ্যমে চাল মজুদের অভিযোগে তাদের বিরুদ্ধে মণিরামপুর থানায় মামলা করেন। সেখানে চাতাল মালিক আব্দুল্লাহ আল মামুন, নির্বাহী কর্মকর্তা, পুলিশ, সাংবাদিকসহ উপস্থিতিদের সামনে চাল পাচারের ঘটনায় সরকারী কর্মকর্তাসহ চাল বেচাকেনা সিন্ডিকেটের সদস্য জুড়ানপুর গ্রামের একুব্বর মোড়লের পুত্র আব্দুল কুদ্দুস, রবিন দাসের ছেলে জগদীশ দাস, তাহেরপুর গ্রামের মৃত সোলাইমান মোড়লের ছেলে শহিদুল ইসলাম, বিজয়রামপুর গ্রামের মৃত লুৎফর রহমানের ছেলে রাইস মিলের মালিক আব্দুল্লাহ আল মামুন ও খুলনা দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা গ্রামের রতন হাওলাদারের ছেলে ট্রাক চালক ফরিদ হাওলাদারসহ মণিরামপুর উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুকে আসামী করা হয়। পুলিশ তদন্ত শেষে উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুসহ ছয়জনকে অভিযুক্ত করে যশোর আদালতে এই চার্জশিট দাখিল দাখিল করে। ইতোপূর্বে মামলার অন্যান্য আসামীরা পুলিশের হাতে আটক হয় এবং আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছিল। এ মামলায় উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু ছাড়া সব আসামীই বের হয়ে আসে। ৭ ফেব্রুয়ারী রোববার সকালে এ মামলায় উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চু যশোরের জেলা ও দায়রা জজ আদালতে আইনজীবিদের মাধ্যমে আত্মসমর্পণ জামিন চাইলে-বিচারক ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিক তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। বুধবার উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুর পক্ষে যশোর বারের সভাপতি বিশিষ্ট আইনজীবি অ্যাড. কাজী ফরিদুল ইসলাম ফরিদের নেতৃত্বে যশোরের সিনিয়র জেলা ও দায়রা জজ বিজ্ঞ বিচারক ইখতিয়ারুল ইসলাম মল্লিকের আদালতে জামিনের জন্য যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করলে। বিজ্ঞ বিচারক তার জামিন মঞ্জুর করেন এবং এদিন বিকেলে তিনি জেল থেকে মুক্তি পান।
জেল থেকে বের হলে তিনি মণিরামপুরের বিভিন্ন নেতাকর্মীদের ভালবাসায় সিক্ত হন। জেল গেটেই তাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়। এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শরিফুল ইসলাম রিপন, উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক স.ম আলাউদ্দীন, উপজেলা যুবলীগনেতা মঞ্জুর আক্তার মঞ্জু, উপজেলা যুবলীগনেতা ও নবনির্বাচিত কাউন্সিলর আব্দুল কুদ্দুস, আয়ুব পাটোয়ারী, পৌর যুবলীগের সভাপতি এস.এম লুৎফর রহমান, সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম রবি, চালুয়াহাটি ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি এম.এম ইমরান খান পান্না, ঝাঁপা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি সোহেল রানা, রোহিতা ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি প্রভাষক আলাউদ্দিন হোসেন লিটন, হরিহরনগর ইউনিয়ন যুবলীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন রানা প্রমুখ। এ সময়ে মামলা ও জামিনের বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শরিফুল ইসলাম রিপন বলেন, মণিরামপুর তরুণ ও যুবসমাজের আইকোন উপজেলা যুবলীগের সফল আহবায়ক ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান উত্তম চক্রবর্তী বাচ্চুকে ষড়যন্ত্রমুলক ভাবে মামলায় ফাঁসনো হয়েছে। ইনসাল্লাহ আইনের মাধ্যমেই এ মিথ্যা মামলা থেকে তিনি জামিন পেয়েছেন। ষড়যন্ত্রকারীরা যত ষড়যন্ত্রই করুক না কেন-তাদের উদ্দেশ্য কখনো সফল হবে না। সত্যের জয় হবেই-কোন অপশক্তি এ জনপ্রিয় নেতাকে আটকে রাখতে পারবে না ইনসাল্লাহ।