মণিরামপুরে জলাবদ্ধ পরিস্থিতির তেমন উন্নতি হয়নি, ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের ভরসা নৌকা

0
254

উত্তম চক্তবর্তী,মনিরামপুর(যশোর): যশোরের মণিরামপুর উপজেলার শ্যামকুড় ও চালুয়াহাটি ইউনিযানের জলাবদ্ধ পরিস্থিতির তেমন উন্নতি হয়নি। গত কয়েকদিন ভারি বৃষ্টি না হওয়ায় বিভিন্ন এলাকায় পানি কিছুটা কমলেও মানুষের দুর্ভোগ কমেনি। বন্যয ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের ত্রকমাত্র্র ভরসা নৌকা। সঙ্গে যোগ হয়েছে সাপ ও পোকামাকড় পচা গন্ধ। ক্রমশ পানি নীল বর্ণ ধারণ করছে। ফলে চুলকানি এখন জলাবদ্ধ মানুষের নিত্যসঙ্গী। হাসপাতালের প্যারাসিটামল আর গ্যাসের বড়ি ছাড়া কিছুই জোটে না তাদের। তাও আবার ঠিকমতো পান না অনেকে।

১৭ দিন ধরে পানির সঙ্গে সংগ্রাম চলছে উপজেলার জলাবদ্ধ ছয় হাজার পরিবারের তিন লাখ মানুষের। চারদিক পানি থই থই করছে। খেটে খাওয়া মানুষের কাজ নেই, খাবার নেই, নেই পর্যাপ্ত ত্রাণ সুবিধা। দেখা দিয়েছে খাদ্য সংকট। সবচেয়ে দুরবস্থায় শ্যামকুড় ও চালুয়াহাটি ইউনিয়নের জলাবদ্ধ মানুষ। পানিতে টিকতে না পেরে যারা রাস্তায় আশ্রয় নিয়েছেন তাদের দিন কাটছে অর্ধাহারে-অনাহারে। জলাবদ্ধ এলাকায় অপরিচিত কাউকে দেখলেই কিছু পাবেন- এই আশায় ছুটে আসেন তারা। গতকাল দুপুরে সরেজমিন শ্যামকুড়ে গেলে এমন চিত্র দেখা যায়।টংঘরের বাসিন্দারা বলছেন, গত বছরের জলাবদ্ধতায় সাড়ে তিন মাস রাস্তায় থেকে তারা বাড়ি ফিরেছেন মাত্র সাড়ে পাঁচ মাস। এরই মধ্যে আবার বাড়ি ছাড়তে হয়েছে তাদের। যদি আর বৃষ্টি না হয়, তাহলে এখনো মাসখানেক রাস্তায় থাকতে হবে বলে ধারণা করছেন তারা।
যশোর-চুকনগর সড়কের চিনাটোলা এলাকায় টংঘরে গরু নিয়ে আশ্রয় নিয়েছেন বৃদ্ধ আব্দুল জলিল। গতকাল দুপুরে সরেজমিন গিয়ে তাকে জাল বুনতে দেখা গেছে। তিনি বলেন, ‘বাড়িতে কোমর পানি। এই গরুটা আর বউ নিয়ে রাস্তায় আইছি। দুটো মাছ ধরি আর খাই। গতদিন ১০০ টাকার মাছ বিক্রি করিছি। এই পর্যন্ত দশ কেজি চাল পাইছি। এতে কী চলে!’
পাশের টংঘরের বাসিন্দা ফরিদা বলেন, ‘খাই আর না খাই সেটা দুঃখ না। দুই দিন আগে পরিবহন আমার ঘরে বাধায়ে দিচ্ছিল। অল্পের জন্য বাঁচিছি।’
তিনি বলেন, ‘রাস্তায় থাকলিও প্রতিদিন ভিটেয় যাওয়া লাগে। উঠানে কোমর পানি। ওই পানিতে গোসল করে আসলাম।’
রাস্তায় আশ্রয় নেওয়া হোসনেয়ারা বলেন, ‘গত ১৬ দিন ধরে রাস্তায়। এই পর্যন্ত কোনো সহযোগিতা পাইনি।’
মিজানুর রহমান নামের এক যুবক বলেন, ‘পানিতে নামা যাচ্ছে না। একটু পানি গায় লাগলেই চুলকানি শুরু হয়। পানিতে নেমে কাজ করায় দুই হাতে ঘা ফুটেছে।’
কোহিনূর নামে একজন বলেন, ‘কয়দিন ধরে গায় চুলকানি ফুটেছে। তিনদিন ধরে ক্যাম্পে গেলেও ওষুধ মেলেনি। গেলেই বলে, ‘নেই’।’’
চিনাটোলা প্রাইমারি স্কুলে আশ্রয় নেওয়া হামেদ আলী বলেন, ‘গত বছরে পড়ে যাওয়া ঘর এখনো ঠিক করতে পারিনি। তারমধ্যে আবারো পানি উঠেছে।’
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসের দেওয়া তথ্যমতে, সম্প্রতি টানা বর্ষণে উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের ৫৫টি গ্রামে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হওয়ায় ছয় হাজার পরিবার পানিবন্দি ছিল। কয়েকদিন বৃষ্টি না হওয়ায় প্রায় পাঁচ শতাধিক বাড়ি থেকে পানি সরে পড়েছে। কিছু কিছু গ্রামে পানি কমছে। শ্যামকুড় ও চালুয়াহাটিতে পানি সরতে না পারায় তা আটকে আছে।
শ্যামকুড় ত্ত চালুযাহাটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমার ইউনিয়নের চার হাজার পরিবার পানিবন্দি। তার মধ্যে এক হাজার ৪০০ পরিবার গরু-ছাগল নিয়ে রাস্তায় উঠেছে। গত কয়েকদিনে চার ইঞ্চি পানি কমেছে।’
চেয়ারম্যান বলেন, ‘ত্রাণ সুবিধা যা পাচ্ছি তা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই সামান্য। রাস্তায়ই আছে এক হাজার ৪০০ পরিবার। তিন ধাপে চাল দিতে পেরেছি ৮০০ পরিবারকে। বাড়িতে আটকে থাকা লোকতো থাকলোই।’
উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) বলেন, ‘শ্যামকুড়ের নাগোঘোপে একটি অস্থায়ী ক্যাম্পে জলাবদ্ধদের সেবা দেওয়া হচ্ছে। যতটুকু দরকার সরবরাহ দেওয়া হচ্ছে। ওষুধ পাচ্ছে না এটা সত্য নয়।’
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বলেন, ‘বিশ টন চাল বরাদ্দ পাওয়ায় বিভিন্ন ইউনিয়নের জলাবদ্ধদের মাঝে তা বিতরণ করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here