মণিরামপুরে দরিদ্রদের কর্মসূচী প্রকল্পে হরিলুট

0
212

প্রকল্পের কাজ না করিয়ে শ্রমিকদের দিয়ে বালি উত্তোলণ করে বিক্রির অভিযোগ
উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর (যশোর):মণিরামপুরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচী প্রকল্পের অর্থ হরিলুটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। কর্মসংস্থানের কাজে অধিকাংশ শ্রমিক অনুপস্থিত থাকা, শ্রমিকদের দিয়ে নদীর বালি উত্তোলণের পর বিক্রিসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে।
সরেজমিন গতকাল খেদাপাড়া ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডে গেলে দেখা যায় পার্শ্ববর্তী হরিহর নদী থেকে ১৮ জন শ্রমিক বালি উত্তোলন করে রাস্তায় স্তুপ করে রাখছে। গত ৪ দিন ধরে এই বালি উত্তোলন করা হচ্ছে বলে জানা গেল। এসময় শ্রমিক হাসান, জামালসহ অনেকে বলেন, বালি তুলে এখানে রাখার কথা বলেছেন মেম্বর ও চেয়ারম্যান। মুহিব্ল্লুাহ নামের স্থানীয় মাদরসার মুহতামিম মুহিব্ল্লুাহ ক্ষোভ করে বলেন, মাদরাসার মাঠ সমান করতে মাটি উঠাতে চেয়ারম্যানের কাছে ধর্না দিলেও আজও মাঠটি ভরাট করা হয়নি। অথচ মাঠটি ভরাট না করেই মাদরাসার মাঠের উপর দিয়ে বালি নিয়ে তা বিক্রি করা হচ্ছে। মুঠোফোনে জানতে চাইলে মেম্বর তাইজুল ইসলাম মিলন বলেন, যা হচ্ছে তাতে তার কিছুই করার নেই। তিনি বিএনপি সমর্থিত মেম্বর হওয়ায় জোর করে তার কাছ থেকে স্বাক্ষর নেয়া হচ্ছে। তিনি অচিরেই পদত্যাগ করবেন বলেও ক্ষোভ করে তিনি জানান। বালি উত্তোলণের খবর পেয়ে সংশ্লিষ্ট অফিসের সরোয়ার নামের এক কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে যান। তিনিও প্রাথমিকভাবে ঘটনার সত্যতা পান। এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ইয়ারুল হক বলেন, অচিরেই বালি উত্তোলণের ব্যাপারে ইউএনও স্যার তদন্ত প্রতিবেদন দিবেন বলে তিনি জানান। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সরদার মুজিবুর রহমানকে বার বার ফোন করলেও তিনি ফোনটি রিসিভ করেননি।
খোঁজ নিয়ে জানাযায়, সরকার দেশের দরিদ্র জনগোষ্টির আর্থসামাজিক উন্নয়নে ২০০৮ সালে এই প্রকল্প গ্রহন করে। চলতি অর্থ বছরে এই প্রকল্পের আওতায় উপজেলার ১৭ ইউনিয়নে ৩৯ হাজার ২৮ জন শ্রমিকের বিপরীতে ৩ কোটি ১৪ লক্ষ ২৪ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। উপজেলায় গত ২৮ জানুয়ারি থেকে এ ই প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। শ্রমিক অন্তর্ভূক্তি নিয়েও অনিয়মের অভিযোগ রয়েছে। অতি দরিদ্রদের জায়গায় অপেক্ষাকৃত অবস্থা সম্পন্নরা স্থান পেয়েছে। উপজেলার মনোহরপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে গৌর মল্লীক, সঞ্জীত গাইনের পাকা বাড়ি থাকলেও স্থানীয় ইউপি সদস্য’র আস্থাভাজন হওয়ায় তারা শ্রমিকের তালিকায় স্থান করে নিলেও কখনো কাজ করেছেন-এমন তথ্য কেউ দিতে পারেননি। বরং তাদের শ্রমিকের তালিকায় অন্তর্ভূক্তির কথা জানতে পেরে অনেকেই বিম্ময় প্রকাশ করেন। এ ব্যাপারে ইউপি সদস্য পরিতোষ জানান, বিশেষ কারনে তাদের অন্তর্ভূক্তি করা হয়েছে। শুধু গৌর কিংবা সঞ্জিত নন-অহরহ রয়েছে এমন অভিযোগ। এরপর তালিকায় নাম থাকলেও কাজে থাকেন অনুপস্থিত। তারপরও প্রভাব খাটিয়ে দিব্বি তারা অর্থ করছেন। কুলটিয়া ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডে রুবিনা, মিনতি, বাবু, মোজাফ্ফর হোসেন, মনিরুল একদিনও কাজ করেননি বলে জানালেন ইউপি সদস্য লতিফা বেগম। এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য শেখর চন্দ্র রায় বলেন, যারা কাজ করেনি, তাদের বিলপত্রে স্বাক্ষরের সুযোগ নেই। জানতে চাইলে প্রকল্প কর্মকর্তা ইয়ারুল হক বলেন, কিছু জায়গায় এসব অনিয়মের খবর শুনছি। কোনভাবেই অনুপস্থিত শ্রমিকদের বিল উত্তোলণের সুযোগ নেই বলেও তিনি জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here