মণিরামপুরে পার্কের ভিতরে ছাত্রীকে ধর্ষণ

0
47

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি: যশোরের মণিরামপুরে অষ্টম শ্রেণি পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে আব্দুর রহমান (৫০) নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) বিকালে তাহেরপুর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে থানা পুলিশ।

আব্দুর রহমান ওই গ্রামের গোলাম রসুলের ছেলে। তাহেরপুর গ্রামে অবস্থিত আল আমিন পার্কের মালিক তিনি। বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তিনি ওই ছাত্রীকে পার্কের ভিতরে একটি ঘরে নিয়ে ধর্ষণ করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার দুপুরে আব্দুর রহমানের নামে থানায় মামলা করেছেন ওই ছাত্রীর বাবা। এর পরপরই পুলিশ আব্দুর রহমানকে গ্রেফতার করে।

১৪ বছর বয়সী ওই কিশোরীর পরিবার আল-আমিন পার্কের পাশের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকেন। তার বাবা দিনমজুর এবং মা নওয়াপাড়ার একটি পাটকলের শ্রমিক। মেয়েটি স্থানীয় একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী।

মামলা সূত্রে জানা যায়, পাশাপাশি বাড়ির বাসিন্দা হওয়ায় ওই কিশোরী আব্দুর রহমানের পরিচিত। প্রায়ই কিশোরীর সাথে কথা বলতেন আব্দুর রহমান। বাবা-মা বাড়িতে না থাকার সুবাদে তিনি মেয়েটিকে বিভিন্ন লোভ দেখিয়ে গত বছরের ডিসেম্বরের ১৬ তারিখ সন্ধ্যায় পার্কের ভিতরে ডেকে নিয়ে যান। এরপর পার্কের একটি কক্ষে তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন।

বাদী মামলায় উল্লেখ করেন, এ ঘটনার পর আব্দুর রহমান তার মেয়েকে বিভিন্ন প্রকার ভয়-ভীতি দেখান। ঘটনাটি প্রকাশিত হলে তিনি কিশোরীকে খুন করে ফেলার হুমকি দেন।

এদিকে গত শুক্রবার (১৮ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে আব্দুর রহমান আবারো মেয়েটিকে ফুঁসলিয়ে পার্কের ভিতরে ডেকে নিয়ে যান। একই ঘরে তিনি তাকে ধর্ষণ চেষ্টা করলে মেয়েটির চিৎকার শুনে তার মা এগিয়ে যেয়ে মেয়েকে উদ্ধার করেন।

তাহেরপুর ওয়ার্ডের পৌর কাউন্সিলর আসাদুজ্জামান বলেন, বুধবার মেয়েটিকে নিয়ে তার পরিবার আমার কাছে এসেছিলেন। তারা সবকিছু খুলে বলে বিচার দাবি করেন। আমি তাদেরকে আইনের আশ্রয় নিতে পরামর্শ দিয়েছি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মণিরামপুর থানার এসআই আশরাফুল আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ধর্ষণের ঘটনায় মামলা হওয়ার পর বৃহস্পতিবার বিকালে অভিযুক্ত আব্দুর রহমানকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য মেয়েটি আমাদের হেফাজতে আছে।