মণিরামপুরে প্রায় ২৬ টি গ্রাম প্লাবিত ।। নষ্ট হয়েছে ক্ষেতের ফসল ভেঁসে গেছে মাছের ঘের

0
247

উত্তম চক্রবর্ত্তী : একটানা পাঁচদিনের অবিরাম বৃষ্টিতে মণিরামপুর উপজেলা অঞ্চলের ৪ ইউনিয়নের প্রায় ২৬ টি গ্রাম পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। পানিতে তলিয়ে গেছে ক্ষেতের ফসল ভেঁসে গেছে মাছের ঘের, পুকুর পুস্কুনি।

গত বুধবার গভীর রাত থেকে বৃষ্টি শুরু হয়ে একটানা পাঁচ দিন অবিরাম বৃষ্টি হচ্ছে। বৃষ্টির পানিতে মণিরামপুর উপজেলার চালযাহাটী, মশ্বিমনগর, ঝাঁপা ও হরিহরনগর সহ ৪ ইউনিয়নের প্রায় ২৬ টি গ্রাম পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। যে দিকে চোখের দৃষ্টি পড়ছে শুধু পানি আর পানি। এই পানিতে ভেঁসে গেছে মাছের ঘের, পুকুর পুস্কুনি। পানিতে হাবুডুবু খাচ্ছে ক্ষেতের ফসল ধান, পাট, কলাইসহ সকল প্রকারের শাকসবজি। কৃষকরা হাড় ভাঙ্গা পরিশ্রম করে রোপন করা আমন ধান পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় ও খ্সেতের পাট ফসল ডুবুডুবু করাই দিশেহারা হয়ে পড়েছে চাষিরা। এদিকে কপোতাক্ষ নদের উপচে পড়া পানি ঝাঁপার বাওড়ে পড়ে ঐ পানি টপকিয়ে উপজেলার ৩০/৪০টি গ্রাম প্লাবিত হয়। ঐ পানি রোধ করতে এলাকাবাসী রাজগঞ্জ বাজারের পাশ্ববর্তী বাওড় সংলগ্ন খালের মুখ মানিকগঞ্জ ব্রীজের নীচে পাকা করে গেথে দেয়। কিন্তু এবারে কপোতাক্ষ নদের উপচে পড়া পানি বাওড়ে না পড়ায় ঐ ব্রীজের নীচের বাঁধটি এখন ঐ সকল গ্রামের মরন ফাঁদ হয়ে দাড়িয়েছে বলে অনেকেই মন্তব্য করছে। কারন খালের পাশ্ববর্তী বিল, নীচু এলাকা বৃষ্টির পানিতে ডুবে একাকার হয়ে গেছে। এই পানি খাল দিয়ে বাওড়ে পড়ার কথা থাকলেও বাধের কারনে সেটি হচ্ছে না। দেখা গেছে ব্রীজের বাধে বাওড়ের পাশের পানির তুলনায় উপরের পাশের পানি ৪ থেকে ৫ ফুট বেশি রয়েছে। উপরের পাশের পানি বাওড়ে নামতে না পারাই খালের পাশ্ববর্তী গ্রাম গুলোর অধিকাংশই পানি উঠে গেছে। এদিকে বৃষ্টির পানিতে তলিয়ে গেছে মশ্বিমনগর ইউনিয়নের প্রায় ৭/৮ টি গ্রাম। এ ইউনিয়নের কপোতাক্ষ পাড়ের ভেঁড়ি বাধের কয়েক স্থান ভেঙ্গে গেছে। ঝাঁপা ইউনিয়নের ৫/৬ টি গ্রামে বৃষ্টির পানি ঢুকে পড়েছে। কোমলপুর বাজার থেকে ঝাঁপা গ্রামে যাওয়ার রাস্তার উপরে পানি উঠেছে। চালয়াহাটী ইউনিয়নের ৫টি গ্রাম পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। হরিহরনগর ও খেদাপাড়া ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে পানি উঠেছে। এবং নীচু অঞ্চল পানিতে একাকার হয়ে গেছে। এ সকল ইউনিয়নে প্রায় ২ শ থেকে আড়াই শ মত মাছের ঘের পানিতে ভেঁসে গেছে। অপর দিকে কয়েকদিনের অবিরাম বৃষ্টির কারনে জনজীবন বিপন্ন হয়ে পড়েছে। এ বিষয়ে মশ্বিমনগর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবুল হোসেন ও ঝাঁপা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সামছুল হক মন্টু জানান, বৃষ্টির কারনে ইউনিয়নের অনেক গ্রাম পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। খাল বিল সহ মাঠঘাট পানিতে একাকার হয়ে গেছে। মাছের ঘের, পুকুর ভেসে গেছে। নস।ট হয়েছে ক্ষেতের ফসল। তারা আরো জানান, এভাবে বৃষ্টি হতে থাকলে আগামী ২/১ দিনের মধ্যে ইউনিয়নের সকল গ্রাম পানিতে থইথই করবে। এদিকে মণিরামপুর কৃষি সম্প্রসারন অধিদপ্তর সুত্রে জানা যায়, বৃষ্টির পানিতে গতকাল পর্যন্ত প্রায় দুই হাজার এককের ফসলের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে প্রাথমিক সুত্রে পাওয়া গেছে। তবে এ ভাবে বৃষ্টি হতে থাকলে ফসলের ক্ষয়ক্ষতির পরিমান অনেকগ্র“ন বেড়ে যাবে বলে জানিয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here