মণিরামপুরে বিভিন্ন এলাকায় মাদকের অন্ধকার গলিতে ধ্বংস হচ্ছে যুবসমাজ : পুলিশের হস্তক্ষেপ দাবি

0
305

উত্তম চক্তবর্ত্তী: মণিরামপুর উপজেলার আশ পাশের উত্তর দক্ষিন ও পশ্চিম অঞ্চলের চোরাকারবারিরা মাদক কারবারের নিরাপদ রুট হিসেবে বেছে নিয়েছে ৷ নানা প্রতিবন্ধকতা এড়িয়ে মরিয়া হয়ে উঠেছে সংশ্লিষ্ট মাদকদ্রব্য চোরাচালানি সদস্যরা ৷ তারা নিষিদ্ধ ঘোষিত মরণ নেশা মাদক হেরোইন, ইয়াবা, ফেনসিডিল, মদ ও গাজা সীমান্ত থেকে সংগ্রহ করে সরাসরি পার করে নিয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন জেলা, উপজেলার মাদক বিক্রির অন্ধকার গলিতে ৷ সংগত কারনে স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনের নজরদারি নেই ৷ ফলে চোরাকারবারিরা নির্বিঘ্নে লক্ষ লক্ষ টাকার বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য নিয়ে আসছে সহজে ৷ আর সেবন করছে কিশোর, তরুন, যুবক, বয়স্ক এমনকি অনেক শিক্ষার্থীর হাতে এসব মাদকদ্রব্য তুলে দেওয়া হয় ৷ যা দেখে অভিভাবক ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা হতবাক হয়েছেন ৷ মাদক নামক ব্যাধির কবল থেকে বেরিয়ে আসার কোন উপায়ও দেখতে পাচ্ছে না ভুক্তভোগী অভিভাবকেরা ৷ উঠতি বয়সের ছেলেদের নিয়ে মহা বিপদে আছেন অভিভাবক সমাজ ৷ এসব মাদকদ্রব্য আমদানির রুট বন্ধের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সচেতন মহল ৷
সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, ভারত থেকে আসা হরেক রকমের নেশাদ্রব্য সংগ্রহের কাজে সীমান্তবর্তী কিছু লোভি কর্তাদের সাথে যোগাযোগ রেখে মাদকদ্রব্য আনা হচ্ছে ৷ এসব মাদক যুব সমাজের মাঝে বিভিন্ন ভাবে ছড়িয়ে দেওয়া হয় ৷ এই মাদকদ্রব্য তরুন ও যুবকদের উন্নত চেতনাকে গ্রাস করে রেখেছে ৷ দীর্ঘদিন ধরে মাদক দিয়ে ঘিরে রাখা হয়েছে গোটা এলাকা ৷
সূত্র জানিয়েছে, কতিপয় কিছু লোক অবাধে মাদকের কারবারী করে আসলেও অধ্যবধী পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেওয়াতো দূরের কথা বিন্দু পরিমান প্রভাব ফেলতেও দেখা যায়নি বলে এলাকাবাসি অভিযোগ করেছে ৷
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, কাঁঠালতলা, চাকলা, পারখাজুরা, নোয়ালী মাঠপাড়া, শয়লা, ঘিবা, পাড়দিয়া ও ঝাঁপা এলাকার পেশাদার মাদক বিক্রেতারা বেপরোয়া ভাবে এ ব্যবসা করছে ৷ মাদকদ্রব্য বিক্রির অভিযোগে জেলার বিভিন্ন থানায় এদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলাও রয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রে প্রকাশ ৷ পারখাজুরা ও কাঁঠালতলা বাজারের অন্ধকার গলিতে মোড়ে বা বাড়িতে বসেও মাদকদ্রব্য বিক্রি করা হয় ৷ দুর পাল্লার মাদকসেবিরাও কানে নিয়ে যাচ্ছে ৷
সূত্র আরো জানায়, নিম্নবিত্তসহ উচ্চবিত্তশালীরাও মাদক ব্যবসায় নেমে পড়েছে ৷ যার কারনে বিক্রেতাদের সংখ্যা যেমন বৃদ্ধি পাচ্ছে পাশাপাশি মাদকসেবির সংখ্যাও দিনে দিনে বেড়েই চলেছে ৷ কয়েক শ’ মাদক সেবি রয়েছে রাজগঞ্জ অঞ্চলে ৷ যার অধিকাংশই হলো কিশোর, তরুন, যুবক ও বয়স্ক ৷ মাদকের সাথে জড়িয়ে অনেকেই সর্বস্ব হারিয়ে পথে বসে গেছে ৷ মাদকের অর্থ জোগাড় করতে এরা অপরাধ কর্মকান্ডের পথে নেমে পড়েছে ৷ ফলে এলাকায় চুরি, ডাকাতি, ছিনতাইসহ অপরাধ কর্মকান্ড বেড়ে গেছে ৷ এরই ধারাবাহিকতায় ২ জুলাই শনিবার রাতে হানুয়ার পূর্বপাড়ার কর্মকার পাড়ার মৃত চিত্তরঞ্জনের বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয় ৷ ডাকাতরা স্বর্ণলংকার, নগদ ২ লক্ষ টাকা, একটি মোটরসাইকেল ও মোবাইল ফোন নিয়ে যায় ৷ একই রাতে রাজগঞ্জ চাঁচড়া সড়কের বালিয়ার খাল ক্রাইম পয়েন্ট সংলগ্ন ছোট ব্রিজে হেলাঞ্চি গ্রামের তারক বিশ্বাস, বিকাশ বিশ্বাস, শ্যামা মন্ডল, রিয়া রাণী ছিনতাইকারির কবলে পড়ে ৷ এদের কাছ থেকে ছিনতাই হয় ৪টি মোবাইল, ৩টি টর্চলাইট, এক জোড়া স্বর্ণের কিনের দুল ও নগদ ৮শ’ টাকা ৷ ঈদের ২দিন আগে দর্জি সামছুর রাজগঞ্জ থেকে বাড়ি যাওয়ার পথে খালিয়া মহিলা মাদ্রাসা মোড়ের পাশের রাস্তায় ছিনতাইকারির কবলে পড়লে মোবাইল ফোন সেট ও ১ হাজার নগদ টাকা ছিনতাআ হয় ৷ সম্প্রতি, মোবারকপুর ঘোষপাড়ায় ব্যবসায়ী শুনিলের বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংগটিত হলে ডাকাতরা প্রায় ৬ লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায় ৷ চুরি হয় খালিয়া গ্রামের এজার আলীর ৭০ হাজার টাকা দামের একটি গরু ৷ এলাকার সচেতন মহল এসব পেশাদার মাদক ব্যবসায়িদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য স্থানীয় পুলিশের হস্তক্ষেপ দাবি করেছে ৷ একই সাথে যুব সমাজকে মরণ নেশা মাদকের ছোবল থেকে রক্ষা করতে সবার সহযোগীতা কামনা করেছে ৷

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here