মণিরামপুরে যৌন নিপীড়নের শিকার কলেজ ছাত্রী বেচে থেকেও যেন মৃত, এলাকা থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি

0
284

মণিরামপুর (যশোর) প্রতিনিধি: মণিরামপুরের মনোহরপুরে বখাটেদের হাতে যৌন নির্যানতের শিকার সেই কলেজ ছাত্রী তরুণী (১৮) এখন আতংকের মধ্যে দিন কাটাচ্ছে। নির্যাতনকারীদের হুমকির ভয়ে পরিবারটি নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। দুর্বৃত্তদের ভয়ে ওই তরুণী এখন কলেজে যেতে পারছে না। এমনকি সে বাড়ির বাইরে যেতেও ভয় পাচ্ছে। সেই রাতের ভয়াল ঘটনা মনে পড়লেই আতকে উঠছে পরিবারের সদস্যরা।
শনিবার সরজেমিন গেলে ওই ছাত্রী ও তার পরিবার এসব অভিযোগ তোলে। মামলার বাকি আসামিরা গ্রেফতার না হওয়ায় ঘটনা ভিন্ন খাতে প্রবাহিত হওয়ার আশঙ্কা করছেন পরিবারটি। যদিও পুলিশ বলছেন, এলাকার পরিস্থিতি এখন শান্ত। আসামিদের আটকে পুলিশ তৎপর রয়েছে।
গত বৃহস্পতিবার (১৬ নভেম্বর) রাতে নিজ ঘরে নির্যাতনের শিকার হন কলেজ ছাত্রী ওই তরুণী। এলাকার ১০-১১ জন বখাটে যুবক ওই রাতে প্রায় তিন ঘন্টা ধরে তরুণীকে বিবস্ত্র করে তার ওপর যৌন নিপীড়ন চালায়। দুর্বৃত্তরা মেয়েটির স্পর্শকাতর জায়গা কামড়িয়ে ও তাকে পিটিয়ে আহত করে। মেয়ের চিৎকারে তার মা এগিয়ে আসলে বখাটেরা তাকেও মারপিট করে। যার ভিডিও ধারণ করে এলাকায় ছড়িয়ে দিয়েছে ওই বখাটেরা।
শনিবার দুপুরে একদল সাংবাদিক সরেজমিন গেলে ওই তরুণী তার ওপর নির্যাতনের সেই ভয়াল ঘটনা বর্ণনা করতে গিয়ে জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে। ওই তরুণী বলেন, ‘ ঘটনার রাত সাড়ে সাতটার দিকে ঘরে বসে আমার প্রেমিকের সাথে কথা বলার সময় এলাকার ১০-১২ জন যুবক এসে আমার কাপড়চোপড় টেনে ছিড়ে আমাকে বিবস্ত্র করে। পরে তারা আমাকে খাটের ওপর শুইয়ে আমার স্পর্শকাতর জায়গায় কামড়িয়ে ও আমাকে পিটিয়ে আহত করে। প্রায় ৩ ঘন্টা ধরে তারা আমার ওপর নির্যাতন করে তা ভিডিও করে। আমার মা এগিয়ে আসলে তাকেও মারপিট করে ওরা।’ ভিডিও এলাকায় ছড়িয়ে পড়ায় এখন আমি বাড়ির বাইরে যেতে পারছিনা।
‘ওরা আমাকে দেখে নেয়ার হুমকি দিচ্ছে। ওরা আমার বাঁচার পথ বন্ধ করে দিয়েছে। আমি এর বিচার চাই,’ বলেন নির্যাতনের শিকার তরুণী। তিনি বলেন,‘যে চারজন আটক আছে,ওরা বেরিয়ে এসে আমাদের এলাকা ছাড়া করবে বলেও হুমকি আসছে।’
ওই সময় দেখা মেলে উপজেলা মহিলা বিষয়ক অফিসের ক্রেডিট সুপারভাইজার শহিদুল ইসলামের সাথে। তিনি জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তার পক্ষে ওই নারকীয় ঘটনার তদন্তে গেছেন। তিনি বলেন,‘ঘটনা যা ঘটেছে তা সত্যিই নিন্দনীয়। আমি তদন্তে এসে জানলাম,১০-১২ জন এই কাজের সাথে জড়িত। তারা মেয়েটিকে বিবস্ত্র করে তার ওপর হায়েনারমত ঝাঁপিয়ে পড়ে নির্যাতন চালিয়েছে। আবার তারা ঘটনার ভিডিও করে তা ছড়িয়ে দিয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত অনেকে এখনও অধরা। ফলে মামলাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত হওয়ার আশংকা রয়েছে।’
একইসাথে দেখা মেলে নির্যাতনের শিকার তরুণীর আইনজীবী অ্যাডভোটেক হাবিবুর রহমানের সাথে। তিনি বলেন,‘ আমি ঘটনার খবর পেয়ে স্থানীয় চেয়ারম্যানকে বলি। চেয়ারম্যান পুলিশ পাঠিয়ে মেয়েটিকে উদ্ধার করে। মেয়েটির ওপর যে নির্যাতন হয়েছে তা সত্যিই বর্বরোচিত ও নেক্কার জনক।’ ‘মামলা নিয়ে অনেক কথা শোনা যাচ্ছে। মামলা ভিন্নখাতে প্রবাহিত হতে দেয়া হবে না,’বলেন অ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মশিয়ার রহমান বলেন,‘ আমি ঘটনাটি শুনেছি। এলাকার কিছু বিপদগামী যুবক ওই রাতে যা করেছে তা সত্যিই মর্মান্তিক। আমি এই ঘটনার সঠিক বিচার চাই।’ ঘটনাটি একাত্তরের বর্বরতাকেও হার মানিয়েছে বলে মন্তব্য করেন চেয়ারম্যান।
জানতে চাইলে মণিরামপুর থানার ওসি মোকাররম হোসেন বলেন,‘মামলার এজাহারনামীয় চার আসামীকে আটক করে আদালতের মাধ্যমে জেলে পাঠানো হয়েছে। বাকিদের আটকের চেষ্টা অব্যহত আছে। এলাকার পরিস্থিতি শান্ত আছে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here