মণিরামপুরে রাস্তার কাজে ব্যাপক অনিয়ম-দূর্নীতি উপজেলা প্রকৌশলীর বিরুদ্ধে অনৈতিক কমিশন বাণিজ্যের অভিযোগ

0
238

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর : মণিরামপুর উপজেলা প্রকৌশলী আবু সুফিয়ানের বিরুদ্ধে ঠিকাদারের কাছ থেকে অনৈতিক কমিশন বাণিজ্যের অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিনিময়ে সংশ্লিষ্ট কাজের ঠিকাদাররা নিন্মমাণের নির্মাণ সামগ্রী দিয়ে রাস্তার কাজ করছে বলে অভিযোগ। এছাড়াও নির্ধারিত সময়ের মধ্যে নির্মাণকাজ না হওয়ার অভিযোগ তো রয়েছে। অবশ্য উপজেলা প্রকৌশলী তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ স্বীকার করেননি-তার দাবি রাস্তার সকল কাজ তিনিসহ তার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ দফায় দফায় তদারকি করছেন।

সংশ্লিষ্ট অফিস সূত্রে জানাযায়, চলতি অর্থ বছরে বৃহত্তর খুলনা উন্নয়ন, যশোর উন্নয়ন, গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পসহ বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় প্রায় ২২ কোটি টাকা ব্যয়ে উপজেলায় ৩০টি রাস্তায় সোলিং ও কার্পেটিং-এর কাজ চলছে। অভিযোগ উঠেছে পাথালিয়া, হরিনা, কোনাকোলা, কাজিয়াড়া, মনোহরপুর, কপালিয়াসহ অধিকাংশ রাস্তায় সোলিং ও কার্পেটিং-এ আমা (নিন্মমানের ইট) ইট, খোয়া ব্যবহার করা হচ্ছে। এছাড়া রাস্তায় কার্পেটিং-এ সাববেজে নিন্ম মাণের ইট, বালু, মেকাডম করতে আনুপাতিক হারে খোয়া-বালু না দেয়ারও অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া পিকেট ইট দিয়ে ২ ইঞ্চি পুরু খোয়া দেয়ার কথা থাকলেও অধিকাংশ কার্পেটিং রাস্তার ক্ষেতে তা মানা হচ্ছে না বলে অভিযোগ। তবে, একাধিক নাম প্রকাশে অনৈচ্ছুক ঠিকাদারের দাবি উপজেলা প্রকৌশলী আবু সুফিয়ানকে মোটা অংকের অর্থ কমিশন দিতে হয়-আর হঠাৎ ইটের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় সিডিউল অনুযায়ী পুরো কাজ করতে গেলে কাজে লাভ তো দূরের কথা লগ্নিকৃত অর্থ ফেরত পাওয়াই কঠিন।

জানতে চাইলে উপজেলা প্রকৌশলী আবু সুফিয়ান তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, প্রতিটি কাজে তিনি নিজেসহ তার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ দফায় দফায় তদারকি করেন। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্য কাজ হচ্ছে না-অভিযোগটি সত্য নয়। তবে, উপ-সহকারি প্রকৌশলী (নক্সাকার) গওসুল আজম বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, কাজের ওয়ার্ক অর্ডার বিলম্বে শুরুসহ সংশ্লিষ্ট কাজের ঠিকাদররা নির্মাণ সামগ্রী দেরীতে আনায় কাজ নির্ধারিত সময়ে শেষ হচ্ছে না। জেলা নির্বাহী প্রকৌশলী আবু শাহরিয়ার বলেন, অনিয়ম হলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here