মণিরামপুরে লম্পটের লালশার শিকার এক গর্ভবতী শিশু জীবন এখন মৃত্যুর মুখোমুখী

0
404

বিশেষ প্রতিনিধি : পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশনের মণিরামপুর শাখার সহকারি কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়ার লালসার শিকার ১০ বছরের শিশু হাসপাতালে মা হওয়ার বেদনায় জীবন মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে দিনাতিপাত করছে বলে খবর পাওয়া গেছে। তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় ডাক্তাররা তাকে খুলনায় রেফার করলেও টাকার কারণে অভিভাবকরা তাকে নিয়ে যেতে পারছে না। আর আদালতে মামলা চলায় এই মুহূর্তে সন্তান প্রসবও করাতে পারছে না শিশুটির পরিবার।
শিশুর স্বজনরা জানায়, ৮ মাসের অন্তসত্বা শিশুটির শারীরিক অবস্থা খারাপ হওয়ায় বুধবার সকালে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভর্তির পর ডাক্তাররা তাকে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষার নির্দেশনা দেন। এসব পরীক্ষার রিপোর্ট দেখে হাসপাতালের চিকিৎসক নিলুফার ইয়াসমিন জানান, শিশুটির অবস্থা অত্যন্ত ক্রিটিক্যাল হওয়ার কারণে তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে। তার স্বজনরা জানিয়েছে, অর্থের অভাবে তাকে খুলনায় নিতে পারছেন না। তারা জানান, শিশুটির ডেলিভারির সম্ভাব্য তারিখ আগামী ১৭ অক্টোবর। এর আগেও প্রসব হতে পারে। তবে বয়স খুব হওয়ায় নরমালে প্রসব হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম।
শিশুর স্বজনরা জানান, ঝিনাইদহের শৈলকূপা উপজেলার আসাননহর গ্রামের মৃত চাঁদ আলী বিশ্বাসের ছেলে ও পল্লী দারিদ্র বিমোচন ফাউন্ডেশনের মণিরামপুর শাখার সহকারি কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া (৫৫) মণিরামপুরের পৌর এলাকার তাহেরপুর গ্রামে সুজায়েত আলীর বাড়িতে ভাড়া থাকেন। ভাড়া বাড়িতে কাজ করার জন্য মণিরামপুর উপজেলার মাছনা গ্রামের ওই শিশুকে নিয়ে যান। এরপর চলতি বছরের ৩ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ১১টার দিকে ওই লম্পট শিশুটিকে ধর্ষণ করে। পরবর্তীতে একইভাবে গোলাম কিবরিয়া শিশুকে ধর্ষণ করে আসছিল। এ কারণে পাঁচ মাস শিশুটি অন্ত:সত্বা হয়ে পড়ে। এ ঘটনায় ডাক্তারী পরীক্ষা ও অন্ত:সত্বার রিপোর্ট আসলে ১ জুলাই গোলাম কিবরিয়াকে আসামি করে থানায় মামলা হয়। ওইদিন তাকে পুলিশ আটক করে জেলহাজতে প্রেরণ করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here