মণিরামপুরে সরকারি চাল কালো বাজারে ক্রয়-বিক্রয়ে জনপ্রতিনিধিসহ জড়িত

0
352

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরের মণিরামপুরের সরকারি চাল কালোবাজারের ক্রয়-বিক্রয়ের মামলায় আটক শহিদুল ইসলাম আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। এ চাল ক্রয় বিক্রয়ের সাথে একজন জনপ্রতিনিধিসহ ৫জন জড়িত। তবে ত্রাণের চাল হওয়ায় তিনি ক্রয় করেনি বলে জবানবন্দিতে জানিয়েছেন। রোববার জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মঞ্জুরুল ইসলাম আসামির এ জবানবন্দি গ্রহণ শেষে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন। শহিদুল ইসলাম তাহেরপুর গ্রামের সোলাইমান মোড়লের ছেলে। ইতোপূর্বে এ মামলায় আটক ট্রাক চালক ও চাতাল মালিক মামুন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

শহিদুল ইসলাম জানিয়েছেন, সে দীর্ঘ দিন ধরে ধান-চালের ব্যবসা করে আসছে। তার চাতাল ও রাইচ মিল আছে। গত ৩০ মার্চ তিনি মিলের নামে কোনো বরাদ্দ হয়েছে কিনা জানতে খাদ্যগুদামে যান। গোডাউন থেকে বের হয়ে আসার সময় তিনি কুদ্দুস, জগদীশ ও মামুন চাল কেনা বেচার কথা বলছে বলে জানতে পারেন। এ সময় তাদের কাছে গেলে তারা চাল কেনার প্রস্তাব দেয়। কিন্তু সরকারের ত্রাণের চাল হওয়ায় তিনি কিনতে অস্বীকার করেন। পরবর্তীতে মামুন একজন জনপ্রতিনিধি ও কুদ্দুসের কাছ থেকে ১৬ মেট্টিকটন চাল কেনে। পরদিন খুলনা থেকে গুদামে চাল আসলে খাদ্য কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান এক ট্রাক চাল মামুনের চাতালের গুদামে পাঠিয়ে দিয়েছেন বলে বাজারের লোকজনের কাছ থেকে জেনেছেন বলে জবানবন্দিতে জানিয়েছে।

মামলার অভিযোগে জানা গেছে, গত ৪ এপ্রিল রাতে মণিরামপুর থানা পুলিশ গোপন সংবাদের ভিতিত্তে বিজয়রামপুরের ভাইভাই রাইচ মিলের গুদামে অভিযান চালায়। এ সময় সরকারের কাজের বিনিময় খাদ্য কর্মসূচির ৫৪৯ বস্তা চালসহ মিল মালিক মামুন ও ট্রাক চালক আটক করা হয়। এ ব্যাপারে এসআই তপন কুমার সিংহ বাদী হয়ে মণিরামপুর থানায় একটি মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে থানা পুলিশ পরে ডিবি পুলিশ তদন্তের দায়িত্ব পায়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ঘটনার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে শহিদুল ইসলামকে আটক করে রোববার আদালতে সোপর্দ করেন। শহিদুল ঘটনার বিষয় জনিয়ে আদালতে ওই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।