মণিরামপুর উপজেলা সংলগ্ন কপোতাক্ষ নদে বাঁধ দিয়ে প্রভাবশালীদের মাছের ঘের ও বালু উত্তোলনের অভিযোগ

0
1124

মাইকেল মধূসূদন দত্তের কপোতাক্ষ কবিতা এখন বইয়ের পাতায়

উত্তম চক্রবর্ত্তী,মণিরামপুর (যশোর) : দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ঐতিহ্যবাহী কপোতাক্ষ নদের রুপ-প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য্যরে বর্ণনা তুলে ধরে মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত কবিতা লিখেছেন। এখন প্রায় বিলীন হতে চলেছে কপোতাক্ষ নদের সেই সৌন্দর্য্য। এক শ্রেণির প্রভাবশালীরা ক্যাডার বাহিনীকে মাসোহারা দিয়ে কপোতাক্ষ নদকে দখলে নিয়ে গিলে ফেলছে। নদের বুক চিরে উত্তোলন করা হচ্ছে বালু ও তৈরী করা হয়েছে মাছের ঘের। যার ফলে প্রতি বছর বর্ষা মৌসুমে দেশের দক্ষিণ-পশিচমাঞ্চলের জনপদ জলাবদ্ধতার শিকার হচ্ছে।
সরেজমিন খোঁজ নিয়ে জানাযায়, মণিরামপুর উপজেলার মশ্মিমনগর, ঝাঁপা, রোহিতা ও হরিহরনগর ইউনিয়ন সংলগ্ন কপোতাক্ষ এলাকার এক শ্রেণির প্রভাবশালীরা নদের মধ্যে বাঁধ নির্মাণ করে মাছ চাষ, অবৈধভাবে বালু উত্তোলণ করে ঐতিহ্যবাহী কপোতাক্ষকে বিলীন করার উপক্রম করে তুলেছেন। এর ফলে জীবিত কপোতাক্ষে এখন ¯্রােত নেই। মণিরামপুর উপজেলার কাশিমপুর গ্রামে কপোতাক্ষ পাড়ে গেলে চোখে পড়ে বালু উত্তোলণের চিত্র। যা রীতিমতো চমকে উঠার মত। ওই এলাকার কথিত প্রভাবশালী সাহিদুর রহমান, মিঠুসহ একটি চক্র কপোতাক্ষ থেকে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করে স্তুপ করে রেখেছে।

সেখান থেকে প্রতিদিন ট্রাক, ট্রলিতে করে বিভিন্ন ক্রেতার কাছে সরবরাহ করা হচ্ছে। এলাকার জনসাধারন কিছু বলতে গেলেই দেয়া হয় নানা ধরনের হুমকি-ধামকি। যে কারনে এক প্রকার বাঁধাহীনভাবে মাসের পর মাস কপোতাক্ষের বুক চিরে বালু উত্তোলন করে চলেছে। সূত্র জানায়, যশোর ও মণিরামপুর উপজেলার কয়েকজন শীর্ষ রাজনৈতিক নেতার নাম ব্যবহার করে প্রভাবশালী ওই চক্র কপোতাক্ষ নদ দখল করে মাছের ঘের এবং নদের বুক চিরে বালু উত্তোলন করে চলেছে। স্থানীয় শুকুর আলী নামে জনৈক এক ব্যক্তি বলেন, যেভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে এতে দু’পাড়ের ভূমি ধ্বংসে ভরাট হচ্ছে কপোতাক্ষের মূলধারা। সাংবাদিক পরিচয় পেতেই শুকুর আলী দাবি করে বলেন ভাই আপনারা কিছু একটা করেন। আমরা কিছু বলতে গেলেই বিভিন্ন সন্ত্রাসী দিয়ে মারপিটের হুমকি দেয়া হয়। সরেজমিন ঘুরে আসার পর বালু উত্তোলনকারি জনৈক সাহিদুর রহমান মুঠোফোনে জানান, ভাই রিপোর্ট করার দরকার নেই। আমি আপনাদের সাথে দেখা করতে চাই। জানতে চাইলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবু আনছার সরদার জানান, বালু উত্তোলনকারীদের বার বার নিষেধ করা সত্বেও কোন কর্ণপাত করছে না তারা। খোঁজ-খবর নিয়ে জানাযায়, সাহিদুর ও মিঠুসহ একটি চক্র কপোতাক্ষ নদ থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলণ করে প্রতিমাসে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। এসব ব্যাপারে প্রশাসন জানলেও রহস্যজনক কারনে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেন না বলে এলাকাবাসীর জোর দাবী। অভিযোগ রয়েছে রোহিতা ইউনিয়নের তহশীলদার কবির হোসেন বালু উত্তোলণকারিদের কাছ থেকে মোটা অংকের অর্থ নিয়ে উপজেলা প্রশাসনকে আড়াল করে রেখেছেন।

তবে, অর্থ নেয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন তহশীলদার কবির হোসেন। মনিরামপুর উপজেলার মধ্যে কপোতাক্ষ নদের জায়গা দখল করে বালু উত্তোলন ছাড়াও অন্তত অর্ধশত মাছের ঘের করে নিয়েছে এলাকার প্রভাবশালীরা। যার ফলে পানি নিস্কাশনের সব পথ বন্ধ হয়ে পড়েছে। যে কারনে প্রতি বছর বর্ষা মৌসুম এলেই এ উপজেলার মানুষ জলাবদ্ধতার শিকার হয়ে থাকেন। উজ্জ্বলপুর গ্রামের ইউপি সদস্য গোলাম মোস্তফা জানান, কপোতাক্ষ নদ দখল করে মাছের ঘের করে নিয়েছেন ডুমুরখালি অঞ্চলে একাব্বর, উজ্জ্বলপুরের জামির উদ্দীন, মোসলেম, শামছুর, বালিয়াডাঙ্গা গ্রামের কার্ত্তিক, পারবাজার গ্রামের ইসলাম, পাঁচপোতা গ্রামের রাজ্জাকসহ আরো অনেকেই। চাকলা গ্রামের ইউপি সদস্য আবুল কালাম জানান, এ অঞ্চলে পিয়াস, নিমচান, এনায়েত মোড়লসহ কতিপয় প্রভাবশালী কপোতাক্ষ দখল করে মাছের ঘের তৈরী করে মাছ চাষ করে চলেছে। যার ফলে কপোতাক্ষ পাড়ের জনসাধারন প্রতি বর্ষা মৌসুমে পানিতে তলিয়ে থাকায় এখন ভিটে ছাড়ার উপক্রম হয়েছে। এছাড়াও কপোতাক্ষ নদ কাগজে-কলমের মধ্য ছাড়া বাস্তবতার বাইরে চলে যেতে বসেছে। এসব বিষয়ে জানতে চাইলে, উপজেলা সহকারি কমিশনার (ভূমি) লিংকন বিশ্বাস জানান এ কর্মস্থলে যোগদানের পর যত অভিযোগ পাওয়া গেছে তার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। সুনির্দ্দিষ্ট অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান তিনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here