মদ কিভাবে এলো জানা নেই: রেইনট্রি’র এমডি

0
323

ঢাকা প্রতিনিধি : অবৈধভাবে বিদেশি মদ রাখা ও শুল্ক ফাঁকির অভিযোগের ব্যাখ্যা দিতে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের কার্যালয়ে হাজির হন বনানীর দ্য রেইনট্রি হোটেলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) শাহ মোহাম্মদ আদনান হারুন। সেখানে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

তবে জিজ্ঞাসাবাদে হোটেলে কীভাবে মদ এসেছে তা জানা নেই বলে দাবি করেন আদনান হারুন।

শুল্ক গোয়েন্দা কার্যালয়ে উপস্থিত হওয়ার কিছুক্ষণ পর থেকে দুপুর পৌনে ৩টা পর্যন্ত আদনানকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন অধিদফতরের কর্মকর্তারা।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর কাকরাইলে অবস্থিত শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরে তিনি উপস্থিত হন। এ সময় আদনান হারুনের সঙ্গে ফুপা আকবর হোসেন মঞ্জু ও চাচা মুজিবুল হক কামাল ছিলেন।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের যুগ্ম পরিচালক শফিউর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গত ২৮ মার্চ বনানীর রেইনট্রি হোটেলে দুই ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়েছে—এই অভিযোগে ১৪ মে শুল্ক গোয়েন্দারা ওই হোটেলে অভিযান চালান। অভিযানে বনানীর রেইনট্রি হোটেলের ১০১ নম্বর কক্ষে ১০ বোতল মদ পাওয়া যায়। প্রথমে হোটেল কর্তৃপক্ষ আটক মাদককে জুস হিসেবে বর্ণনা করে। এরপর সংবাদ সম্মেলন করে হোটেল থেকে মদ উদ্ধার হয়নি বলে দাবি করে।

এসব নিয়ে শুনানির জন্য শুল্ক গোয়েন্দারা হোটেল রেইনট্রি কর্তৃপক্ষকে ১৭ মে তলব করেন। তখন অসুস্থতার কথা বলে সময় প্রার্থনা করে রেইনট্রির মালিকপক্ষ। হোটেল মালিককে ছয় দিনের সময় দিয়ে ২৩ মে সশরীর হাজির হতে পুনরায় নোটিশ দেওয়া হয়।

রেইনট্রি কর্তৃপক্ষ এই নোটিশকে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে রিট আবেদন করে। ওই আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল সোমবার দুপুরে হাইকোর্ট নোটিশের কার্যকারিতা স্থগিতাদেশ দেন। এর পরপরই রাষ্ট্রপক্ষ ওই স্থগিতাদেশের বিরুদ্ধে আপিল করে। সাড়ে তিন ঘণ্টার ব্যবধানে গতকাল বিকালেই শুনানি শেষে হাইকোর্টের স্থগিতাদেশটি স্থগিত করেন আপিল বিভাগ। এর ফলে আজ রেইনট্রি হোটেল কর্তৃপক্ষকে শুল্ক গোয়েন্দা কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে শুল্ক আইন, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন ও মানি লন্ডারিং আইনে অভিযোগের অনুসন্ধান ও তদন্তের শুনানিতে অংশ নিতে বলা হয়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here