মধুসূদনের মহাকাব্য

0
71

কানাই লাল ভট্টাচার্য্য
মহাকাব্যকে ইংরেজিতে Epic বলা হয়। Epic শব্দটি এসেছে গ্রিক Epos শব্দ থেকে- যার অর্থ ‘শব্দ’। পরে Epos বলতে কাহিনি, সঙ্গীত, বীরত্বব্যঞ্জক কবিতাকে বোঝায়। এপিক কোনো উপাখ্যান এবং একই ছন্দে রচিত হবে। নায়ক হবেন স্বদেশীয় ও স্বজাতীয়। কিন্তু অসাধারণ মতাশালী ও মহৎ গুণসম্পন্ন বীর। এছাড়া সর্বপ্রধান লক্ষণ নাটকীয়তা ও বীররস প্রধান। মোহিতলাল মজুমদার মহাকাব্যের সংজ্ঞা দিতে গিয়ে বলেছেন-
‘দেবতা দোসর বীর, তারই পরাজয় কথা,
যে হৃদয় সাগর মন্থন …………….
নীলাকাশে ঊষাসম গরলে অমৃত রাগ
মৃত্যুঞ্জয়ী জীবন কাহিনি ………….’

মাইকেল মধুসূদন দত্তের ‘মেঘনাদবধ কাব্য’ এই শ্রেণীর মহাকাব্য। আমার আলোচনায় এতদ্ববিষয়ে আলোচনা করার চেষ্টা করবো।

পাশ্চাত্য শিক্ষাসভ্যতায় অভ্যস্ত হয়ে মধুসূদন ইংরেজি কাব্য সাধনায় আত্মমগ্ন হন এবং আকাক্সক্ষা প্রকাশ করেন। কিন্তু উদ্দেশ্য সফল না হওয়ায় বাংলা ভাষায় মহাকাব্য রচনায় পরিপূর্ণ সাফল্য অর্জন করেন। তিনি মনস্থির করেন ‘হোমার ভার্জিল, দান্তে টাসো প্রভৃতি বিদেশি এবং ব্যাস ও বাল্মীকি প্রভৃতি দেশীয় মহাকবির রচনা থেকে উপাদান সংগ্রহ করে সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যের বশবর্তী হয়ে প্রাচ্য-পাশ্চাত্য কবিগুরুর প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষ প্রভাবে মহাকাব্য লিখলেন ‘মেঘনাদবধ কাব্য’। যা শুধু বাঙালির নয়, বিশ্বের বিস্ময়। উনবিংশ শতাব্দির উৎকণ্ঠা এবং অপ্রমেয় আশা রাম-রাবণের সংগ্রামের মধ্যে ফুটে উঠেছে। স্বদেশি ও বিদেশি বৈশিষ্ট্যের সমন্বয়ে মেঘনাদবধ কাব্য রচিত।

মধুসূদনের উপর বাল্মীকি ও হোমারের প্রভাব সমধিক। কাহিনি বিন্যাস, চরিত্রচিত্রনের দিক থেকে মাইকেল রামায়ণ কাহিনির মহৎ ও স্নিগ্ধ কবিত্বের উপর ইলিয়াড কাহিনির কঠিন ও দীপ্ত শৌর্যের রং ফলিয়ে নতুন কাব্য কল্পনার ফসল মেঘনাদবধ কাব্য সৃষ্টি করলেন। গ্রিক মহাকবি হোমারকে অনুসরণ করেছেন চরিত্র সৃষ্টি কুশলতায়।

ভাষা, শব্দ, উপমা ব্যবহারে মাইকেল মধূসূদন গ্রিক মহাকাব্যের সহায়তা নিয়েছেন। অনেক বিশেষণ শব্দ ও বাক্যাংশ গ্রিক থেকে অনূদিত। সিংহ, ব্র্যাঘ্র, অগ্নির উপমা, গ্রিকের অনুসারী। গ্রিক মহাকাব্যের নেমেসিম বা দেবনিবন্ধবাদ মেঘনাদবধ কাব্যের সর্বত্র দৃশ্যমান। সমস্ত শক্তি সামর্থ থাকলেও যে বিবিধ বিধানে ধ্বংসের পথে অগ্রসর হতে হয় তা গ্রিক কাব্যাদর্শের নিদর্শন। বীররসের মহাকাব্যের ইচ্ছা থাকলেও করুণ রসের প্লাবনী বন্যায় ভাসিয়েছেন মহাকাব্যের শেষ ভাগ। কবি হৃদয়ের গীতধর্মের আধিক্য, গোপন বেদনাবোধ যা মহাকাব্যের নতুন সংযোজন। ভাষা ও ছন্দ নতুন রুপে গড়েছেন স্বতন্ত্র ভাবনায়-
‘যথা দূর দাবানল পশিলে কাননে
অগ্নিময় দশদিক! দেখিলা সম্মুখে
রাঘবেন্দ্র বিভারাশি নির্ধুম আকাশে
সুবর্ণি বারিদপুঞ্জে।’

ইসমাইল হোসেন সিরাজী মহাকাব্যের মহিমাকীর্তন করেছেন এমনভাবে, ‘যে রবীন্দ্রনাথের গৌরবে আজ বাংলাদেশ আত্মহারা হইয়া উঠিয়াছে। তিনিও মহাকবি নহেন; তিনি শুধু গীতিকবি। তিনি বহু সঙ্গীত গাথা ও কবিতা রচনা করিয়াছেন বটে। কিন্তু একখানিও মহাকাব্য লেখেন নাই। সঙ্গীত ও কবিতা বসন্তের ফুলের ন্যায়, উহা দীর্ঘকাল স্থায়ী হয় না। …কিন্তু একখানিও মহাকাব্য লেখেন নাই। সঙ্গীত ও কবিতা বসন্তের ফুলের ন্যায়, উহা দীর্ঘকাল স্থায়ী হয় না। … কিন্তু মহাকাব্য হিমাচলের মতো, যতদিন মানব সমাজ থাকিবে ততদিন উহাও থাকিবে। আজ কতকাল হইল ব্যাস, বাল্মীকি, হোমার ও ফেরদৌসী পরলোক গমন করিয়াছেন, কিন্তু জগতের সুধীম-লী তাহাদের কাব্য রসামৃত পানে আজও সবল ও উৎফুল্ল হইতেছেন’। মধুসূদন যে মহাকবি, তাঁর মহাকাব্য রচনার মধ্য দিয়ে উক্ত মূল্যায়ন সর্বাংশে সত্য।

মধুসূদন সেই কবি, যিনি প্রমাণ করেছেন হাজার বিধিবিধান মেনে নিয়েও প্রতিভা তার সত্য স্বর শোনাতে পারে।

একটি পরম কৃত্রিম আদর্শের মধ্যে আবদ্ধ থেকেও কবিতা কত ভালো হতে পারে; তার নিদর্শন ‘মেঘনাদবধ কাব্য’। মেঘনাদবধ কাব্যের মতো অবিশ্বাস্যভাবে ওজোগুণ অন্য কাব্য দিতে পারেনি; আর পারবে কিনা সন্দেহ! আজকের দিনের শিক্ষিত পাঠক শত ব্যস্ততার মাঝেও বারবার পাঠ করে যাচ্ছে এই মহাকাব্য মেঘনাদবধ। কী দারুণ সুশোভিত ভাব, ভাষা ও ছন্দের এক অনুপম সমন্বয়-
‘তুমিও আইস, দেবি, তুমি মধুকরী
কল্পনা! কবির চিত্ত ফুলবন-মধু
লয়ে, রচ মধুচক্র, গৌড়জন যাহে
আনন্দে করিবে পান সুধা নিরবধি।’

মধুসূদন পুষ্পক রথে আরোহন করে এই কাব্যখানির যবনিকা টেনেছেন যেভাবে, তা বিশ্বের কোনো কবির এমন ভাবসমাধি হয়েছে কি-না সন্দেহ। আজ সময় এসেছে বেশি বেশি গবেষণার। আমেরিকার বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ক্লিন্টন সিলি মধুসূদনের মেঘনাদবধ কাব্য নিয়ে গভীর নিমগ্নতায় অনুবাদ করে চলেছেন নিরন্তর। কিভাবে এমন ছন্দের অনুবাদ চলে?
‘দুইধারে নিবাইল উজ্জ্বল পাবকে
রাক্ষস। পরম যতেœ কুড়াইয়া সবে
ভস্ম, অম্বুরাশিতলে বিসর্জ্জিলা তাহে।
ধৌত করি দাহস্থল জাহ্নবীর জলে
লক্ষ, রক্ষ শিল্পী আশু নির্ম্মিলা মিলিয়া
স্বর্ণ-পাটিকেলে মঠ চিতার উপরে;
ভেদি অভ্র মঠচূড়া উঠিল আকাশে।’

জমিদার রাজনারায়ণ ও মাতা জাহ্নবীর মধু কিভাবে একজন বিশ্বজোড়া কবির মর্যাদা পেল তা একটু ভাবুন। সোনার চামচ মুখে যার জন্ম, বিলাস-ব্যাসনে যার জীবন যাপন; চলার পথ কন্টকাবৃত হওয়ায় মধুসূদনের শেষ জীবন নিয়ে কথা না বললেই নয়। মেঘনাদবধ কাব্যের শেষ সর্গের সঙ্গে হুবহু মিল খোঁজার চেষ্টা করি আমরা সবাই। মধুসূদন যখন হাসপাতালে মৃত্যুর জন্যে প্রতিক্ষা করছেন, সেই সময় হেনরিয়েটার অবস্থা রীতিমত গুরুতর। হেনরিয়েটা তখন মৃত্যু শয্যায় শুয়ে ভগবানের কাছে প্রার্থনা করছেন- ‘হে দয়াময় ভগবান! আমাকে যেন স্বামীর মৃত্যু সংবাদ শুনতে না হয়। আমার প্রার্থনা আমিই যেন তাঁর আগে যেতে পারি’। ‘হেনরিয়েটার প্রার্থনা বোধ হয় ভগবান শুনতে পেলেন। হেনরিয়েটার মৃত্যু সংবাদ শুনতে পেরে মধুসূদন নিজের মনেই বলে ওঠেন- ‘হায় ভগবান! আমাদের দুজনকেই এক সঙ্গে সমাধিস্থ করলে না কেন!’’
কী কষ্ট! কী-বেদনা! মহাকবির জীবনে এ এক মহাকাব্যিক ঘটনা। এভাবেই মধুর বিদায় কোনো বাঙালি মেনে নিতে পারেনি; পারবেওনা কোনো দিন। তিনি যে মেঘনাদবধ কাব্য লিখলেন তাই ফিরে এলো তার ব্যক্তিট্রাজিক জীবনে। এমন বেদনাবোধ কোনো কবির ব্যক্তিক জীবনে পাওয়া দুষ্কর। এটা শুধুমাত্র মধু-মধুসূদন দত্ত-মাইকেল মধুসূদন-শ্রী-মধুসূদনের জীবনের জন্য প্রযোজ্য। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের একটি কবিতার লাইন দিয়ে আমার এ লেখা শেষ করছি :
‘এ দ্যুলোক মধুময় …
মধুময় পৃথিবীর ধূলি
অন্তরে নিয়েছি আমি তুলি।’