মধুসূদন ভাবনা : একটি অভিভাষণ

0
99

খসরু পারভেজ
বাংলার দুয়ার তুমি খুলে দিলে পৃথিবীর দিকে;
এবং সহস্রধার আলো এলো অমেয় উজ্জ্বল…
আমার সত্তায় তুমি স্বতঃস্ফূর্ত দুরন্ত জোয়ার
কালের নিগড় ছেঁড়া উপল-বিচ্ছেদী মহাকাল
স্রোতধারা, প্রতি মুহূর্তে আনো অনিন্দ্য সৌরভ।

আজ আমরা এমন একজন কবির স্মরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছি; যিনি বাংলার দুয়ার খুলে দিয়েছিলেন পৃথিবীর দিকে। বাংলার কবি, বাঙালির কবি মাইকেল মধুসূদন দত্ত। আমাদের সাহিত্যে যা কিছু নতুন, অভিনব, বিস্ময়কর তার সবকিছুই মধুসূদনের হাত ধরে এসেছে। ভাষাই একটি জাতির বড় পরিচয়। কবি মধুসূদন বাংলা ভাষাকে সমৃদ্ধ করার জন্য আমরণ সংগ্রাম করে গেছেন। তিনিই বিশ্বের দরবারে বাঙালিকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াবার সাহস যুগিয়েছিলেন। আমি যদি মধুসূদনের কৃতিত্বগুলোকে একটি জায়গায় এনে দাঁড় করাই তাহলে তা হবে এমনই;-মধুসূদন বাংলা কাব্য-সাহিত্যে আধুনিকতার জনক। বাংলা সাহিত্যে অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রবর্তক। বাংলা সাহিত্যে সনেট বা চতুর্দ্দশপদী কবিতার জনক। বাংলা সাহিত্যে প্রথম সার্থক নাটক রচয়িতা। বাংলা সাহিত্যে প্রথম সার্থক প্রহসন রচয়িতা। বাংলা সাহিত্যে প্রথম ট্রাজেডির রূপকার। বাংলা সাহিত্যে প্রথম ঐতিহাসিক নাটক রচয়িতা, বাংলা সাহিত্যে প্রথম মহাকাব্যের স্রষ্টা। বাংলা কাব্যে নবতর গীতিকবিতার প্রবর্তক। বাংলা সাহিত্যে প্রথম ও একমাত্র পত্রকাব্যকার। বাংলা সাহিত্যে প্রথম নারীমুক্তির আহ্বায়ক। বাংলা সাহিত্যে প্রথম সার্থক অনুবাদক। প্রথম আধুনিক মনস্ক সংগীত রচয়িতা। বাংলা সাহিত্যে প্রথম এপিটাফ রচয়িতা। বাংলা সাহিত্যে নদী বিষয়ক কবিতার জনক। বাংলা সাহিত্যে প্রথম সার্থক ছান্দসিক কবি। বাংলা কাব্যে প্রথম সার্থক অলংকারবিদ। বাংলা সাহিত্যে প্রথম আন্তর্জাতিক চেতনা সম্পন্ন কবি। বাংলা সাহিত্যে প্রথম বহুভাষাবিদ কবি। সর্বপ্রথম অসাম্প্রদায়িক চেতনাসম্পন্ন কবি। প্রথম প্রকৃতিপ্রেমিক ও দেশপ্রেমিক কবি। বাংলা সাহিত্যে উৎসর্গরীতির প্রবর্তক। বাংলা সাহিত্যে সর্বপ্রথম আঞ্চলিক ভাষা ব্যবহারকারী কবি। মধুসূদন প্রথম বাঙালি কবি, যিনি ইংরেজি পত্রিকার সম্পাদক হিসাবে কৃতিত্বের স্বাক্ষর রেখেছিলেন। তদুপরি তিনি ছিলেন একজন নির্ভীক সাংবাদিক এবং সফল শিক্ষক। এরকম অনেক অভিধায় মধুসূদনকে অভিহিত করা যায়। মূলত মধুসূদন বাংলা সাহিত্যের আশীর্বাদ হয়ে এসেছিলেন। মধুসূদনকে বাদ দিয়ে বাংলা সাহিত্য হয় না।

যে কথা প্রথমেই বলেছিলাম, মধুসূদন বাংলার দুয়ার খুলে দিয়েছিলেন পৃথিবীর দিকে। মধুসূদনের যে বৈশ্বিক চেতনা, আন্তর্জাতিক বোধ তা আমাদেরকে বিস্মিত করে। ১৮৬০ খ্রিস্টাব্দে মধুসূদন তখন ফ্রান্সের ভার্সাই নগরীতে। ইতালিতে মহাকবি দান্তের ষষ্ঠ জন্মশতবার্ষিকী উৎসবের আয়োজন চলছে।

এ উপলক্ষে তিনি ইতালির রাজা ভিক্টর ইমানুয়েলকে দান্তের উদ্দেশে একটি সনেট ইতালিয় ভাষায় অনুবাদসহ পাঠিয়েছিলেন। সঙ্গে একটি চিঠি। মধুসূদনের চিঠি ও সনেট পেয়ে ইতালির রাজা তাঁর সচিব মারফত মধুসূদনকে জানিয়েছিলেন, ‘আপনার কবিতা প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের মধ্যে সেতুবন্ধন রচনা করবে।’ ইতালির রাজার সেই কথা আজ সত্যে পরিণত হয়েছে। বাংলা ভাষার মর্যাদা আজ আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিষ্ঠিত। ইউনেস্কো কর্তৃক মহান একুশে ফেব্রুয়ারিকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ঘোষণায় আমাদের যে অর্জন, আমি মনে করি, এ অর্জনের স্বপ্নদ্রষ্টা মধুসূদন। তিনি বলেছিলেন, ‘বিশ্বের সাথে আমরা যখন কথা বলবো, তখন যেন আমাদের মাতৃভাষাতেই বলি।’ আমরা জানি আমাদের সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার মহানায়ক জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতিসংঘের অধিবেশনে ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর সর্বপ্রথম বাংলায় ভাষণ দিয়েছিলেন। আমি মনে করি, বিশ্বের সাথে বাংলা ভাষায় কথা বলার মধুসূদনের যে আহ্বান, তারই পূর্ণ বাস্তবায়ন ঘটেছে বঙ্গবন্ধুর মধ্য দিয়ে।

জন্মভূমি-রক্ষা হেতু কে ডরে মরিতে?
যে ডরে, ভীরু সে মূঢ়; শত ধিক্ তারে!

বাংলা সাহিত্যের অমর সৃষ্টি মধুসূদনের ‘মেঘনাদবধ কাব্য’। এ কাব্যের মূল দ্বন্দ্ব ধর্মান্ধ পররাজ্যলোভী রামের সাথে স্বাধীনতাকামী রাবণের। পরাধীন জাতির প্রতি মধুসূদনের সহানুভূতি ও পররাজ্যলোভীদের প্রতি তীব্র ঘৃণা উচ্চারিত হয়েছে এ কাব্যে। মধুসূদনের মতো দেশপ্রেমিক কবি সে যুগে ছিল বিরল। শত্রুর হাত থেকে দেশকে রক্ষার জন্য বীরবিক্রমে মৃত্যুর মুখে ঝাঁপিয়ে পড়ার যে বাঙালি চেতনা, পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে স্বদেশকে মুক্ত করার যে প্রবল আকাক্সক্ষা ও শক্তি মধুসূদনের সাহিত্যে-নিহিত, তা বাঙালির স্বাধীনতাকামী চরিত্রের এক উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত।

মধুসূদন বাংলাকে ভালোবেসেছেন, বাংলার মানুষকে ভালোবেসেছেন, তাইতো দেখি বাংলার প্রকৃতিকে তিনি স্বর্গে প্রতিস্থাপন করেছেন। বাংলার তাল, তমাল, বট, চালিতা, সুপারি, আম, কাঁঠাল, মেহগনি কী নেই মধুসূদনের কাব্যে? তাঁর চতুর্দ্দশপদী কবিতায় বারবার ফিরে এসেছে বাংলার প্রকৃতি। জন্মভূমির প্রতি অপরিসীম দরদ ও ভালোবাসা ফুটে উঠেছে বিভিন্ন কবিতায়।

বাংলা ভাষার মহান স্থপতি কবি ও নাট্যকার কবি মধুসূদন। অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উজ্জীবিত এই স্বদেশপ্রেমিক কবির প্রতি যথোচিত সম্মান কি আমরা দেখাতে পেরেছি? পারি নি। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে মধুসূদনের মতো কবিকে নিয়ে রীতিমতো গর্ব করা হয়। আমাদের গর্বের জায়গাটুকু খুব প্রশস্ত নয়। মধুসূদনের মতো একজন খাঁটি বাঙালি কবিকে নিয়ে আমরা পৃথিবীর কাছে গর্ব করতে পারি। কিন্তু আমাদের কাছে মধুসূদন আজ অস্তগামী।

পাশ্চাত্যে শুরু হয়েছে নতুন করে মধুসূদন গবেষণা। উন্মোচিত হচ্ছে মধুসূদনের স্বরূপ। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির বায়োগ্রাফিকাল অভিধানে মধুসূদনের জীবনী স্থান পেয়েছে। কোনো ভারতীয় লেখকের এটিই প্রথম অন্তর্ভুক্তি। লন্ডনে উইলিয়াম র‌্যাদিচে, আমেরিকায় ক্লিন্ট সিলি মধুসূদনকে নিয়ে উচ্চতর গবেষণা করেছেন। তাঁরা দুজনেই মধুসূদনের ‘মেঘনাদবধ কাব্য’ ইংরেজি ভাষায় অনুবাদ করে ছড়িয়ে দিয়েছেন বিশ্বময়। অথচ আমরা আমাদের কবির জন্য কতটুকু করতে পেরেছি? মধুসূদন যেন আজ পাঠ্যপুস্তকেই সীমাবদ্ধ। তবে সেখানেও কবিতায় ভুল শব্দ, বানান। যা আমাকে পীড়িত করে। জাতীয় শিক্ষাকার্যক্রমের নবম-দশম শ্রেণিতে পাঠ্যপুস্তকে ‘কপোতাক্ষ নদ’ কবিতায় ছাপা হয়েছে ‘শোনে মায়া মন্ত্রধ্বনি’। অথচ এটি হবে ‘শোনে মায়া যন্ত্র-ধ্বনি’। উচ্চতর শ্রেণিতেও মধুসূদনের কবিতায় যতিচিহ্নের ভুল ব্যবহার। বাজারে প্রচলিত মধুসূদন রচনাবলি অসংখ্য ভুলে ভরা। দুঃখের সঙ্গে জানাতে হয়, আমাদের দেশে সঠিক কোনো মধুসূদন রচনাবলি নেই। আমরা কি পারি না, এই অসম্মানের জায়গা থেকে কবিকে রক্ষা করতে?

বাংলাভাষার শ্রেষ্ঠ কবির নামে এই রাজধানী ঢাকাতে একটি স্কয়ার বা এভিনিউ কি হতে পারে না? হতে পারে না কোনো সড়কের নাম, তাঁর নামে? মধুসূদন এই ঢাকা শহরেই ১৮৭২ খ্রিস্টাব্দে নাগরিক সংবর্ধনা পেয়েছিলেন। সংবর্ধনার উত্তরে একটি সনেটে তিনি ঢাকাকে ‘বঙ্গ-অলঙ্কার’ ও ‘রাজাসনে রাণী’ বলে উল্লেখ করেছিলেন। ক্ষোভের সঙ্গে উল্লেখ করতে হয়, মধুসূদনের স্মৃতিধন্য যশোর শহরে একটি সড়কের নামও মধুসূদনের নামে করা হয় নি। যেখানে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, মাওলানা মোহাম্মদ আলী, হাজী মুহম্মদ মহসিন, নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুসহ ইংরেজ প্রশাসকদের নামে রয়েছে সড়কের নাম। নেই মধুসূদন। যা সত্যিই দুঃখজনক।

মধুসূদনকে আমরা অবহেলা করেছি। এখন সময় এসেছে সেই অবহেলা আপনোদনের। মধুসূদনের জন্মভূমি যশোরের সাগরদাঁড়ীতে মধুসূদনের নামে আমরা একটি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে নেমেছি। বাঙালির যে সমৃদ্ধ সংস্কৃতি; সেই সংস্কৃতির মধ্যে নিহিত রয়েছে গভীর মমত্ববোধ, মানবতাবোধ, ভ্রাতৃত্ববোধ, অসাম্প্রদায়িক চেতনাবোধ। সেই সংস্কৃতিকে সমুন্নত রাখতে মধুসূদনের নামে একটি সংস্কৃতি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা বর্তমানে সময়ের দাবি। কেন সংস্কৃতি বিশ্ববিদ্যালয় চাইছি আমরা? একটি জাতি বা মানবগোষ্ঠীর দৈনন্দিন প্রয়োজনীয় কাজ-কর্ম থেকে শুরু করে তার চিন্তাধারার বহিঃপ্রকাশের সম্মিলিত রূপায়নই সেই জাতি বা গোষ্ঠীর সংস্কৃতি। আমাদের জাতিসত্তার শেকড় অনুসন্ধানের মধ্য দিয়ে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সমুন্নত রাখতে সংস্কৃতিচর্চার কোনো বিকল্প নেই। অনেকের ধারণা সংস্কৃতি মানেই গান-বাজনা। সেটা ঠিক নয়। আগেই বলেছি, আমাদের আচার-আচরণ, জীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত সবই সংস্কৃতির অঙ্গ। সাহিত্য, সংগীতের যেমন সংস্কৃতি আছে, তেমনি আছে কৃষি, ইতিহাস, দর্শন, বিজ্ঞান সবকিছুরই সংস্কৃতি। আমরা সেই সংস্কৃতির উৎস সন্ধানে সংস্কৃতির বিকাশে সংস্কৃতি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেছি। আমাদের পাশের দেশ ভারতের উড়িষ্যা রাজ্যে ‘উৎকল ইউনিভার্সিটি অব কালচার’ রয়েছে। চীন দেশে রয়েছে অনেকগুলো কালচারাল ইউনির্ভাসিটি। এশিয়া, ইউরোপের বিভিন্ন দেশেও এ ধরনের বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। মধুসূদন এগারোটি ভাষায় লিখতে ও পড়তে পারতেন। এই প-িত কবির নামে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পাশাপাশি তাঁর জন্মভূমি যশোরের সাগরদাঁড়ীতে প্রতিষ্ঠিত হতে পারে গবেষণাকেন্দ্র, আন্তর্জাতিক ভাষা ইনস্টিটিউট। সাগরদাঁড়ীতে রয়েছে মধুসূদন চর্চাকেন্দ্র মধুসূদন একাডেমী। যা সরকারি পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে।

গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ব্যক্তিগতভাবে মধুসূদনের প্রতি যথেষ্ট শ্রদ্ধাশীল। ২০১০ খ্রিস্টাব্দে যশোরের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি অনুষ্ঠানে তিনি মধুসূদনের নামে বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার অভিপ্রায় ব্যক্ত করেছিলেন। আমি আশা করি, আজ মঞ্চে উপস্থিত সুধিবৃন্দ প্রধানমন্ত্রীর সেই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।
ঢাকা শহরে একটি সংবর্ধনার উত্তরে ১৮৭২ খ্রিস্টাব্দে মধুসূদন বলেছিলেন, ‘আমি আমার বসিবার ও শয়ন করিবার ঘরে একখানি আরশি রাখিয়া দিয়াছি। যখনই আমার মনে সাহেব হইবার ইচ্ছা বলবৎ হয়, অমনি আরশিতে মুখ দেখি। আরও আমি শুদ্ধ বাঙালি নহি, আমি বাঙ্গাল, আমার বাটি যশোহর।’ মধুসূদনের প্রতি যথার্থ সম্মান জানিয়ে আসুন আমরা আমাদের আরশিতে মুখ দেখি। খাঁটি বাঙালি হই।