মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দিয়েছে ছয়টি দেশ

0
257

ম্যাগপাই নিউজ ডেস্ক: আজ সোমবার সৌদি আরব, মিসর, বাহরাইন, লিবিয়া, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও ইয়েমেনের কাছ থেকে সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা আসে। কিন্তু কাতারকে ‘একঘরে’ করা কেন?

ছয়টি দেশ আজ এক দিনেই কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার ঘোষণা দিলেও এ সিদ্ধান্ত যে হঠাৎ করে এসেছে—বিষয়টি তেমন নয়। কয়েক বছর ধরেই কাতারের সঙ্গে এই দেশগুলোর শীতল সম্পর্ক চলে আসছিল। বিশেষ করে সাম্প্রতিক সপ্তাহগুলোতে উত্তেজনা চরমে পৌঁছে।

কয়েক বছর ধরে চলে আসা শীতল সম্পর্কের জের ধরে দুই সপ্তাহ আগে আল জাজিরাসহ কাতারের সংবাদমাধ্যমগুলো বন্ধ করে দেয় মিসর, সৌদি আরব, বাহরাইন ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। বলা হয়, সম্প্রতি কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল-থানি সৌদি আরবের সমালোচনা করে বক্তব্য দেন। তাঁর ওই বক্তব্য কাতারের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। এতে ক্ষুব্ধ হয় সৌদি আরব। আপাতদৃষ্টিতে মনে হয়, এ ঘটনাই সৌদি আরবসহ অন্য পাঁচ দেশকে কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করতে উৎসাহিত করেছে।

যদিও কাতার সরকার বলছে, দেশটির আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল-থানি সৌদি আরবের বিরুদ্ধে ওই বক্তব্য দেননি। রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত ওই প্রতিবেদনকে ‘লজ্জাজনক সাইবার অপরাধ’ বলে উল্লেখ করেছে তারা।

এর আগে ২০১৪ সালে সৌদি আরব, বাহরাইন এবং সংযুক্ত আরব আমিরাত অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপের অভিযোগ তুলে কাতার থেকে তাদের রাষ্ট্রদূতদের প্রত্যাহার করে নেয়। আজ সোমবারের সিদ্ধান্তের পেছনে ব্যাপকভাবে যে দুটি নিয়ামক কাজ করেছে, তা হলো ইসলামি জঙ্গি সংগঠনগুলোর সঙ্গে কাতারের সম্পর্ক এবং সৌদি আরবের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী ইরানের ভূমিকা। যদিও কাতার ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মার্কিন জোটে অংশ নিয়েছে। কাতার আইএসকে আর্থিক সহযোগিতা করছে—ইরাকের শিয়া নেতাদের এমন অভিযোগ বারবারই অস্বীকার করে আসছে দেশটি।

কাতার সরকার এবং দেশটির ধনী ব্যক্তিরা সিরিয়ায় কট্টরপন্থী ইসলামি গোষ্ঠীগুলোকে অর্থ ও অস্ত্র দিয়ে সহায়তা করছে বলে ধারণা করা হয়। এ ছাড়া আল-কায়েদার সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত নুসরা ফ্রন্ট নামের সংগঠনটির সঙ্গে কাতারের সম্পর্ক রয়েছে বলেও অভিযোগ রয়েছে।

সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা এসপিএতে প্রকাশিত বিবৃতিতে কাতারের বিরুদ্ধে এসব সংগঠনগুলোকে সমর্থন দেওয়ার পাশাপাশি ইসলামি সংগঠন মুসলিম ব্রাদারহুডকে সমর্থন দেওয়ার অভিযোগ করা হয়েছে। উপসাগরীয় দেশগুলোতে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে মুসলিম ব্রাদারহুডকে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। যদিও সৌদি আরব নিজেই সিরিয়ায় কট্টরপন্থী সংগঠনসহ ইসলামি বিদ্রোহীদের মূল সমর্থক।

দুই সপ্তাহ আগে রিয়াদ সফরকালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প মৌলবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মুসলিম দেশগুলোকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান। মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিরতার জন্য ইরানকে দায়ী করেন ট্রাম্প।

বিশ্লেষক ক্রিস্টিয়ান উলরিকসেন বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘মনে হচ্ছে, ইসলামপন্থা ও ইরানকে কেন্দ্র করে ট্রাম্প প্রশাসনের সঙ্গে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত তাদের আঞ্চলিক স্বার্থে একজোট হতে অনুপ্রেরণা পাচ্ছে। কাতারের বিরুদ্ধে এই পদক্ষেপে তারা ট্রাম্প প্রশাসনের সমর্থন পাবে বলে মনে করা হচ্ছে।’

সৌদি আরবের বিরুদ্ধেও আইএসকে অর্থ দেওয়ার অভিযোগ রয়েছে। প্রত্যক্ষভাবে বা দেশটির দাতারা ব্যক্তিগতভাবে সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোকে সহযোগিতা করছে এবং সৌদি আরব তা বন্ধ করতে ব্যর্থ হয়েছে—এমন অভিযোগ রয়েছে। তবে সৌদি আরব তা অস্বীকার করেছে।

এদিকে সাম্প্রতিক দিনগুলোতে একটি প্রতিবেদন প্রকাশের জন্য যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মেকে চাপ দিয়ে আসছে দেশটির বিরোধী দলগুলো। ওই প্রতিবেদনে যুক্তরাজ্যের উগ্রপন্থী সংগঠনগুলোকে সৌদি আরবের তহবিল সরবরাহের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এর আগেও কাতারের বিরুদ্ধে নানা ব্যবস্থা নিয়েছিল প্রতিবেশীরা। তবে এর প্রভাব ছিল সীমিত। তবে কাতার এবার সমন্বিত চাপে পড়ল। মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ে ট্রাম্পের দৃষ্টিভঙ্গি কাতারের প্রতিবেশী দেশগুলোকে নতুন আত্মবিশ্বাসের জন্ম দিয়েছে। সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাত মনে করছে, তারা এ বিষয়ে তাঁর সমর্থন পাবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here