মনিরামপুরে কপালিয়ার অবরুদ্ধ পথটি দীর্ঘদিন পর উন্মুক্ত॥ স্বস্থিতে গ্রামবাসী

0
690

নিজস্ব প্রতিবেদক, যশোর: মনিরামপুরের কপালিয়া ৫নং ওয়ার্ডের অবরুদ্ধ পথটি উন্মুক্ত করা হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে ও ইউপি চেয়ারম্যান স্থানীয় ইউপি সদস্যদের সহযোগিতায় শুক্রবার সকালে গ্রামবাসীর জন্য পথটি উন্মুক্ত করা হয়। দীর্ঘদিন পথটিতে নালা তৈরি করে বন্ধ করা হয়েছিল।

স্থানীয়রা জানান, কপালিয়ার ঘোষবাড়ির পাশে কানাইলাল দে দোকানের পাশ দিয়ে পায়েহাটা চলাচলের পথটি একই গ্রামের মৃত. আনসানের ছেলে শিক্ষক জুলফিকার আলী ও বাহারুল ইসলাম বন্ধ করে সেখানে নালা তৈরি করে। দীর্ঘ ৩ বছর ধরে বন্ধ থাকায় প্রায় শতাধিক পরিবারের লোকজনের চলাচল বন্ধ হয়ে পড়ে। বিকল্প পথে তারা চলাচল করতে থাকে। এক পর্যায়ে তারা জেলা প্রশাসকের নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তৎকালীন জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ন কবীর উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশন দেন। এ ঘটনায় তৎকালীন নির্বাহী অফিসার বিষয়টি নিয়ে তার কার্যালয়ে গণশুনানির ব্যবস্থা গ্রহন করে। গণশুনানি শেষে পুরানো গ্রামবাসীর চলাচল পথটি পুনরায় উন্মুক্ত করার সিদ্ধান্ত নেয়। শুক্রবার সকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. অতুল ম-লের পক্ষে মনোহরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাষ্টার মশিউর রহমান, মনিরামপুর উপজেলা সহকারি ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার আব্দুল মান্নান, ৪নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সদর গাজী, ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আনিসুর রহমানসহ সকল ইউপি সদস্য এবং স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে রাস্তাটির সীমানা নির্ধারণ করা হয় এবং চলাচলের ব্যবস্থা করা হয়। নির্ধারণ শেষে রাস্তার পাশে বসবাসকারী উভয় পক্ষের লোকজন গৃহিত সিদ্ধান্ত সমূহে স্বাক্ষর করেন। এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি কালিপদ বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান, সহসহভাপতি প্রণব কান্তি, সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাষ্টার সিরাজুল ইসলাম, কপালিয়া ঘোষবাড়ি সার্বজনীন পূজা মন্দিরের সভাপতি মৃনাল কান্তিু ভঞ্জু, শিক্ষক নারায়ন চন্দ্র ঘোষ, শিক্ষক সাজ্জাদ হোসেন, শিক্ষক অমিয় কান্তি চক্রবর্তী প্রমূখ।
এ ব্যাপারে স্থানীয় ইউপি সদস্য আনিসুর রহমান বলেন, অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ ভাবে রাস্তাটি চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হয়েছে।
মনিরামপুর উপজেলা সহকারি ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার আব্দুল মান্নান জানান, টিএনও সারের নির্দেশে কপালিয়ার ৫ নং ওয়ার্ডের অবরুদ্ধ পথটি উন্মুক্ত করা হয়েছে। প্রথমে পুরানো পথের সীমানা নির্ধারণ করা হয়। এরপর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের প্রতিনিধি ইউপি চেয়ারম্যান মশিউর রহমান চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করেন।
মনোহরপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মাস্টার মশিউর রহমান জানান, উপজেলা নির্বাহী অফিসের নির্দেশে এবং এলাকাবাসীর দাবির মুখে দীর্ঘদিনের অবরুদ্ধ পথটি উন্মুক্ত করা হয়েছে। স্থানীয় জনতার সার্বিক সহযোগিতার কারণে শান্তিপূর্ণ ভাবে পথটি উন্মুক্ত করা সম্ভব হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here