মনিরামপুরে শীতের কুমড়া বড়ি তৈরীতে ব্যস্ত গ্রামীন নারীরা

0
381

উত্তম চক্তবর্তী,মনিরামপুর(যশোর): শীতের শুরতে যশোরের মনিরামপুর উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে কুমড়া বড়ি তৈরীর কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে মহিলার। কুমড়া বড়ি একটি মুখরোচক খাবার। বিভিন্ন তরকারির মধ্যে দিয়ে রান্না করে কুমড়া বড়ি খেতে হয়। শীত মৌসুমে এটি তৈরী করতে হয়। ফলে শীতের আগমনে মনিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের গ্রাম গুলিতে কুমড়া বড়ি তৈরীর প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে।
খোজ নিয়ে জানাগেছে, উপজেলার রাজগঞ্জের বিভিন্ন ইউনিয়নে গ্রামের মহিলারা এই মুখরোচক কুমড়া বড়ি তৈরীর কাজে ব্যস্ত সময় পার করছে। গ্রামীন জনপদের বিভিন্ন বয়সী মহিলাদের মধ্যে কুমড়া বড়ি তৈরীর ব্যস্ততা যেন উৎসবে রূপ নিয়েছে। শীতের তীব্রতায় কুমড়া বড়ি তৈরীর কাজ করতে বেশী সুবিধা হওয়ায় প্রতিদিনই একাধিক স্থানে কুমড়া বড়ি তৈরী কাজে মগ্ন থাকতে দেখা গেছে পরিবারের সদস্যসহ পার্শ্ববর্তী বাসিন্দা মহিলাদের। তবে এখন শুধু গ্রামেই নয়, শহরেও কুমড়া বড়ি তৈরীর প্রভাব পড়েছে। উপজেলার মোবারকপুর মহিলারা গ্রামের কয়েকজন জানান, কুমড়া বড়ি তৈরীর প্রধান উপকরণ মাসকলাই এবং চাল কুমড়া। তারা জানান, বাজারে প্রতি কেজি মাসকলাই ১শ টাকা আর কুমড়া একটি কুমড়া ৭০ থেকে ৮০ টাকা দরে ক্রয় করে এই কুমড়া বড়ি তৈরী করা হয়। আরো বলেন, দুই কেজি মাসকলাইয়ের সঙ্গে একটি বড় সাইজের চালকুমড়ার মিশ্রনে কুমড়া বড়ি ভালো হয়। প্রথমে মাসকলাই রৌদ্রে শুকিয়ে গ্রাম বাংরার ঐতিহ্য যাতাকলে ফেলে ভেঙ্গে পরিস্কার করতে হয়। পরে মাসকলাইয়ের ছাল ছাড়িয়ে পানিতে ভিজিয়ে রেখে নরম করা হয়। তিনি বলেন, রাতে পানিতে ভেজানো মাসকলাই ঘোটনা (আঞ্চিলিক ভাষা) , শিল-পাটায় বেটে নিয়ে চালকুমড়া কুচি কুচি করে (কোরা) তার সঙ্গে মেশানো হয়। তবে শহর এলাকায় এখন মেশিনের সাহায্যে মাসকলাই মাড়াই করা হচ্ছে। কিন্তু গ্রাম এলাকায় এ সুবিধা না থাকায় মহিলারা হাতেই সব কিছু করে থাকে। কুমড়া আর মাসকলাইয়ের মিশ্রণ হাত দিয়ে ছোট ছোট বড়ির আকারে বাড়ির আঙ্গিনা বা ছাদে ভোর থেকে পাতলা কাপড়ের উপর বড়ি বসানো শুরু হয়। পাতলা কাপড়ের উপর সারি সারি বড়ি বসানোর দৃশ্য যে কোন মানুষের চোখ জুড়িয়ে যায়। গ্রামের মহিলার জানায়, কুমড়া বড়ি দেওয়া কাপড়টি কয়েকদিন রৌদ্রে শুকানো হয়। সুর্য্যের আলো কম হলে ৪-৫দিন পর্যন্ত শুকাতে সময় লেগে যায়। শুকানোর পর কাপড় থেকে বড়ি গুলো উঠিয়ে এগুলি সংরক্ষণ করা হয়।
কুমড়া বড়ি তৈরী করতে ব্যাপক পরিশ্রম করতে হয়, একই সঙ্গে অনেক সময় লাগে। তারপরও গ্রাম বাংলার ঐতিহ্য শীত মৌসুমে কুমড়া বড়ি তৈরী না করলে আমাদের কাছে শীতের খাবার অপূর্ণ থেকে যায়। তিনি জানান, প্রযুক্তির যুগে এখন কিছুটা সহজ হয়েছে। এখন খোসা ছাড়ানো মাসকলাই বাজারে কিনতে পাওয়া যায়। এই মাসকলাই পানিতে ভিজিয়ে মেশিনের সাহায্যে মাড়াই করে অল্প সময়ে বড়ি তৈরীর মিশ্রন তৈরী করা সম্ভব। সব মিলিয়ে সুস্বাধু এই কুমড়া বড়ি তৈরীতে কেজি প্রতি প্রায় ১’শ ৪০ টাকা থেকে ১’শ ৫০ টাকা কম খরচ হয়। তবে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী খাদ্য কুমড়া বড়ি তৈরীর কাজে এখন ব্যস্ত সময় পার করছে মনিরামপুর উপজেলার রাজগঞ্জের বিভিন্ন গ্রামের বিভিন্ন বয়সী মহিলারা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here