মনিরামপুর ট্রাজেডি আজ

0
285

আসামী আটককে কেন্দ্র করে জামায়াত-বিএনপি জোট জয়পুরে শতাধিক ঘর-বাড়ি ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে

উত্তম চক্রবর্ত্তী, মণিরামপুর (যশোর):মণিরামপুরের ট্রাজেডি ঘটনার সেই ভয়াবহ দিন। উপজেলার জয়পুর গ্রামে পুলিশ আসামী আটক করাকে কেন্দ্র করে জামায়াত ও বিএনপি নেতা কর্মীদের পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে বিভিন্ন গ্রাম থেকে হাজার হাজার লোকজন সংঘবদ্ধ হয়ে পুলিশের উপর দেশীয় অস্ত্র, লাটি-সোটা, ইট-পাটকেল দিয়ে পুলিশে উপর ছুড়তে থাকে। এক পর্যায় জামায়াত বিএনপি ও পুলিশের মধ্যে সংঘর্ষে ৫০/৬০ জন মারাত্মক আহত এবং বিএনপি এক কর্মী নিহত হয়। এঘটনার পর থেকে শতাধিক আ’লীগ নেতা কর্মীদের ঘর-বাড়ি ভাংচুর, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগ করে কোটি কোটি টাকাসহ মালামাল ক্ষয়ক্ষতি হয়। সে থেকে এলাকার আ’লীগ নেতা কর্মীদের মারপিট করে তাদের অনেক লোকজনকে পঙ্গুসহ জিম্মি করে। এই ভয়াবহ ট্রাজেডি ঘটনার চার বছর পার হলেও অসহায় ক্ষতি গ্রস্তরা আজ্ও পর্যন্ত সরকারি ভাবে তাদের সাহায্য পাইনি। ক্ষতিগ্রস্ত আ’লীগ পরিবারের মধ্যে এখনো হাহাকার চলছে। আ’লীগ প্রিয় মানুষ তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের সাহায্য পাওয়ার জন্য বুক ভরা আশা নিয়ে আছে এখনো।
জানাযায়, ২০১৩ সালের ২২র্মাচ মণিরামপুর উপজেলায় পুলিশ জয়পুর গ্রামে আদালতের ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী ধরতে আসলে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে জয়পুর, চান্দুঁয়া, সমসকাটি ্ও ঢাকুরিয়াসহ বিভিন্ন গ্রাম অঞ্চল থেকে জামায়াত বিএনপি’র হাজার হাজার নারী পুরুষ রাতে আধারে জয়পুর গ্রামে হাজির হয়। এক পর্যায় তারা সংঘবদ্ধ হয়ে পুলিশের উপর দেশীয় অস্ত্র, লাটি-সোটা, ইট ভাটা থেকে ইটের আদলা এনে বৃষ্টির বর্ষণের মতো ছুড়তে থাকে পুলিশের উপর। এঘটনায় পুলিশ জীবন বাঁচাতে কয়েক ডজন লাবার বুলেট ছুড়লে উভয় পক্ষের মধ্যে ৫০/৬০ জন নারী- পুরুষ ও পুলিশ আহত এবং জয়পুর গ্রামের ইব্রহিমের ছেলে ইট ভাটা শ্রমিক ও বিএনপির কর্মী আনিছুর রহমান পুলিশের গুলিতে নিহত হয়। এঘটনার পর থেকে জামায়াত ্ও বিএনপি লোকজন বেপরোয়া হয়ে জয়পুর, সমসকাটি, চান্দুঁয়া ্ও ঢাকুরিয়া গ্রাম গুলির শতাধিক আ’লীগ নেতা কর্মীদের বাড়ি ঘর ভাংচুর, লুটপাট ও গানপাউডার ছিটিয়ে অগ্নিসংযোগ করে কোটি কোটি টাকা ক্ষয় ক্ষতি করে। জামায়াত বিএনপির নিষ্ঠুর বরবরতার হাত থেকে রেহায় পাইনি গৃহপালিত হাসঁ, মুরগি, গরু, ছাগল, গোলাভরা ধান, ড্রাম ভরা চাউল, থালা বাটি, লেপ-তসখ। এমনকি ্ওই এলাকার বিদ্যুতের মিটার গুল ভেঙ্গে দিয়েছে তারা। এতান্ডবকারীদের হাত থেকে রেহায় পাইনি ঢাকুরিয়া-মণিরামপুর সড়কে থাকা দু’পাশের রাস্তার গাছ। ওই সময় এলাকায় পুলিশ পর্যন্ত তারা ঢুকতে দেয়নি। এসব ঘটনা স্ব-চোখে দেখার জন্য প্রতিদিন বিভিন্ন এলাকা থেকে শত শত নারী- পুরুষ আলমসাধু ও ভ্যান যোগে ওই নারকীয় তান্ডব দেখে তাদের দুই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি এবং দেখতে আসা লোকজন জামায়াত ও বিএনপি লোকদের ধীক্কার জানিয়েছিল। জয়পুর গ্রামের প্রবীণদের মধ্যে মোসলেম গাজী, হাশেম আলী গাজী বলেছেন, ১৯৭১ সালে ৯ মাস যুদ্ধ দেখেছি কিন্তু এমন ভয়াভহ ঘটনা আমরা দেখেনি। জয়পুরের এমন বিভিষীকাময় তান্ডবের ৪ বছর অতিবাহিত হলেও কোটি কোটি টাকা ক্ষতি হলেও সরকারি ভাবে সামান্য অর্থ পেয়েছেন। এছাড়া উপজেলা আ’লীগের মধ্যে রশি টানাটানির কারণে নগদ ৯ হাজার টাকা এবং ৩ বান্ডেল করে টিন দেয়া হয়েছে। উল্লেখ্য আ’লীগ প্রিয় মানুষেরা প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার দিকে আজও বুক ভরা আশা নিয়ে মুখিয়ে আছেন। ঢাকুরিয়া ইউনিয়ন আ’লীগ নেতা ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক বিশ্বাস জানান, দেশে বিভিন্ন জায়গায় জামায়াত বিএনপি আ’লীগ পরিবারের উপর যে পরিমাণ ক্ষয়-ক্ষতি হয়েছে তার চেয়ে বেশি দিয়েছে প্রধানমন্ত্রী। কিন্তু জয়পুর আ’লীগ ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার গুলো কোন অদৃশ্য কারণে তারা সরকারি কোন অনুদান পাচ্ছে না তা আমার জানা নেই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here