মনিরামপুর থেকে হারিয়ে যাচ্ছে ফাগুন রাঙ্গানো শিমুল গাছ

0
578

উত্তম চক্রবর্ত্তী,স্টাফ রিপোটার: মাঘের শেষে ঝতুর রাজা বসন্তের আগমনি বার্তায় শুরু হয়েছে কোকিলের কুহু কুহু ডাক আর গাছে গাছে জেগে উঠেচে সবুজ পাতা ও মুকুল আর ফুল। আম, লিচু গাছে নতুন পাতা ওমুকুলণ দেখে বোঝা যায় শীত বিদায় নিয়ে আবার এলো ফাল্গুন এলো বসন্ত। ঝতুর রাজা বসন্তে গ্রামবাংলার প্রকৃতে রাঙিয়ে ফুটিয়ে তোলে শিমুল ফুল। নানা ছন্দে কবি সাহিত্যকদে লেখার খোরাক যোগাতো রক্ত লাল এই শিমুল ফুল। কিন্তু কালের পরিবর্তনে গ্রাম বাংলার প্রকৃতি থেকে এখন বিলুপ্তপ্রায় মূল্যবান শিমুল গাছ। তাই ফাল্গুনে রঙে রাঙানো রক্তলাল শিমুল গাছ খুব একটা চোখে পড়েনা। ইমরান হোসেন বলেন , আগে গ্রামবাংলার বিভিন্ন এলাকায় শিমুল গাছের বেশ ব্যাপকতা ছিল। এই শিমুল ঔষাধি গাছ হিসেবেও পরিচিত। গ্রামঅঞ্চালের মানুষ বিষ ফোড়াতে, আকের গুড় তৈরিতে শিমুলের রস ও কোষ্ঠ কাঠিণ্য নিরাময়ে গাছের মূলকে ব্যবহার করতো। বর্তমানে নানা কারণে তা হ্রাস পেয়েছে। শিমুল গাছ কেউ রোপন করেনা। এমনিতেই জন্মায়। দিনে দিনে বড় হয়ে একদিন বিশাল আকৃতি ধারণ করে । গ্রাম বাংলার এই শিমুল গাছ অর্থনৈতিক সমৃদ্ধ এনে দিত। হত দরিদ্রর মানুষের এই শিমুল গাছের তুলা কুড়িয়ে বিক্রি করতো। অনেকে নিজের গাছের তুলা দিয়ে বানাতো লেপ,তোষক, বালিশ। শিমুলের তুলা বিক্রি করে অনেকে স্বাবলম্বী হয়েছে, এমন নজিরও আছে বলে জানান তিনি। বড় ধরণের গাছ থেকে তুলা বিক্রি করে ৩/৪ হাজার টাকা আয় করা সম্ভব বলে উপজেলা বন বিভাগ সুত্রে জানায়, আগের তুলনায় এখন শিমুলের তুলার দাম অনেক বেড়ে গেছে। এর পরেও এই গাছ নিধন হচ্ছে প্রতিনিয়ত। যার কারণে গ্রাম-বাংলার বুক থেকে হারিয়ে যেতে বসেছে, অতি পরিচিত শিমুল গাছ। কাঠ ব্যবসায়ী শরিফুল ইসলাম বলেন, আগে বড় বড় গাছ কিনে নিত ম্যাচ ফ্যাক্টরীগুলো। বর্তমানে নৌকা, কবুতরের খোফ, ইমারতের শাটারিংয়ের কাজেও ব্যবহার করা হচ্ছে। এছাড়া ছোট ছোট গাছ নিধন করে পোড়ানো হচ্ছে ইটভাটা ও বেকারিগুলোতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here