‘মফস্বলে থাকতে না চাইলে চাকরির দরকার নেই’

0
388

নিজস্ব প্রতিবেদক : যেসব চিকিৎসক মফস্বলের হাসপাতালে থাকতে চান না, মফস্বল ছেড়ে শহরে চলে আসেন, তাদের চাকরি করার দরকার নেই বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘যারা মফস্বলে থাকতে চায় না, তারা দয়া করে বিদায় নিয়ে বাড়ি চলে যাক। আমরা নতুন নিয়োগ দেবো।’
বৃহস্পতিবার (২৮ ডিসেম্বর) স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের রাজস্ব বাজেটের অর্থে সংগৃহীত সরকারি অ্যাম্বুলেন্স বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। জাপান থেকে আনা আধুনিক প্রযুক্তির অ্যাম্বুলেন্স দেওয়ার প্রথম ধাপে সাতটি অ্যাম্বুলেন্সের চাবি হস্তান্তর করা হয় এই অনুষ্ঠানে। এসময় জানানো হয়, পর্যায়ক্রমে দেশের বিভিন্ন হাসপাতাল ও কমিউনিটি ক্লিনিকে পাঁচশ অ্যাম্বুলেন্স দেওয়া হবে।
অনুষ্ঠানে চিকিৎসকদের মফস্বলে থাকতে না চাওয়ার প্রবণতার সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চিকিৎসকদের নিয়োগ দিচ্ছি। কিন্তু যখনই আমরা তাদের উপজেলায় পাঠাচ্ছি, তারা সেখানে থাকেন না। সরকারি চাকরি হলেই এ সমস্যাটা হয়। উপজেলায় পোস্টিং দিলেও তারা যেকোনোভাবে কায়দাকানুন করে ঢাকায় এসে বসে থাকবে।’ এমন চিকিৎসকদের হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ‘এভাবেই যদি কেউ চলে আসে, তাহলে তো তার আর চাকরি করার দরকার নেই। ঢাকায় বসে প্রাইভেট প্র্যাকটিস করলেই তো অনেক টাকা উপার্জন হয়।’
বলেন, ‘একটা সমস্যা আমি খুঁজে বের করেছি, সেটা আবাসিক সমস্যাটা। উপজেলায় গেলে সেখানে তাদের (চিকিৎসক) থাকার খুব একটা জায়গা নেই।’ এ কারণেই উপজেলা পর্যায়ের চিকিৎসকসহ সরকারি কর্মকর্তাদের আবাসন সমস্যা সমাধানে বহুতল ভবন নির্মাণ করতে এরই মধ্যে গণপূর্ত মন্ত্রণালয়কে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে বলেও জানান প্রধানমন্ত্রী।
স্বাস্থ্য সেবায় আওয়ামী লীগ সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা আমাদের দেশের মানুষের কাছে স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিচ্ছি। জনগণের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।’
অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম ও স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক। মন্ত্রী পরিষদের সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সিনিয়র সচিব, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিবসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here