মর্যাদা ও মানবিকতার কতদূর?

0
250

রাজধানীর পল্টন এলাকায় একটি বাসা থেকে জেসমিন বেগম নামে একজন গৃহকর্মীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধারের খবর আমাদের সেই পুরনো প্রশ্নটির সামনে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। তাদের জন্য মর্যাদা ও মানবিকতা কতদূর? গৃহকর্তা চিকিৎসক যদিও আলোচ্য ঘটনাটিকে ‘আত্মহত্যা’ হিসেবে দাবি করছেন; এ ধরনের দাবি অতীতে বিভিন্ন সময়ই আইন ও তদন্তের ধোপে নড়বড়ে হতে দেখেছি আমরা। আত্মহত্যা হলেও কী পরিস্থিতিতে এমন চরম পন্থা, খতিয়ে দেখার দাবি জানাই আমরা। বস্তুত গৃহকর্মীদের ওপর নানা ধরনের নির্যাতন আমাদের সমাজে নতুন নয়। আমরা জানি, নেহাত পেটের দায়ে পরের বাড়িতে কাজ করতে আসা শিশু ও প্রাপ্তবয়স্ক কর্মীরা গৃহকর্তা বা কর্ত্রীর বিচিত্র বীভৎসতার শিকার হয়ে থাকে। উদয়াস্ত নয়; আলো ফোটার আগ থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত গৃহকর্মীরা নিভৃত গৃহকোণে নীরবে কাজের বিনিময়ে উপযুক্ত মজুরি দূরে থাক, মানুষ হিসেবে প্রাপ্য মর্যাদাও সব সময় জোটে না। কিছুদিন আগে দেখেছি, আমাদের জাতীয় দলের একজন ক্রিকেটারের ঘরেও কীভাবে গৃহকর্মী নির্যাতিত হয়েছে। আমরা দেখতে চাইব, জেসমিনের হত্যা বা আত্মহত্যার জন্য দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হয়েছে। এ ক্ষেত্রে দরিদ্র পরিবার থেকে আসা গৃহকর্মীর পরিবার যেন গৃহকর্তা বা সংশ্লিষ্টদের প্রভাবের কাছে পরাজিত না হয়। কেবল জেসমিন ও তার পরিবারের ন্যায়বিচার প্রাপ্তির স্বার্থে নয়, বরং ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি এড়াতেও তা জরুরি। একই সঙ্গে গৃহকর্মীদের মর্যাদা ও অধিকার নিশ্চিত করতে রাষ্ট্রকেও এগিয়ে আসতে হবে। আমরা জানি, বিলম্বে হলেও সরকার ‘গৃহকর্মী সুরক্ষা ও কল্যাণনীতি-২০১৫’ গ্রহণ করেছে। এখন এর বাস্তবায়ন জরুরি। বস্তুত দেশের অন্যতম প্রধান অনানুষ্ঠানিক শ্রম খাতটি, যেখানে উল্লেখযোগ্য অংশ শিশুসহ কমবেশি ২০ লাখ জনশক্তি নিয়োজিত, তাদের অধিকার ও মর্যাদার প্রশ্নটি আমরা উপেক্ষা করতে পারি না। একই সঙ্গে আমরা দেখতে চাইব, কোনো গৃহকর্মীর ওপর নির্যাতন বা অন্যায়ের অভিযোগ উঠলে তা দ্রুততা, আন্তরিকতা ও কার্যকারিতার সঙ্গে খতিয়ে দেখা ও ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। সরকার ও প্রশাসনের পাশাপাশি সমাজকেও এগিয়ে আসতে হবে। উপযুক্ত আইনি ব্যবস্থা ও প্রতিকারের পাশাপাশি সমাজের মানবিকবোধ জাগ্রত করার উদ্যোগই পারে জেসমিনদের মতো গৃহকর্মীদের সুরক্ষা, মর্যাদা ও অধিকার নিশ্চিত করতে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here