মশার উপদ্রবে অতিষ্ঠ যশোরবাসী ।। ১৪ই মার্চ শুরু হবে অভিযান

0
75

ডি এইচ দিলসান : রাতে মশা। দিনেও মশা। মশার চরম অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে শহরবাসী। কোথাও এক মিনিটও নিরাপদে বসা যাচ্ছে না। মশার যন্ত্রনায় যখন অতিষ্ঠ যশোরবাসী তখন আশার কথা শুনালেন যশোর পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু। তিনি বলেন আগামী ১৪ই মার্চ থেকে শুরু হবে মশক নিধন অভিযান। তিনি বলেন খুব দ্রুত সময়ের মধ্যোই আমরা শহরকে মশামুক্ত করতে পারবো।
শীতে মশার উপদ্রব কম থাকলেও গরমে তা বৃদ্ধি পায়। গত কয়েক বছর মশা বৃদ্ধির সাথে সাথে মশাবাহিত রোগের প্রকোপও বেড়েছে। করোনার পাশাপাশি এখন ডেঙ্গুর ভয়ও জেঁকে বসছে। এ কারণে ডেঙ্গ্রর জন্য দায়ী এডিস মশার বংশ বিস্তার নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। আছে চিকুনগুনিয়াসহ অন্যান্য মশাবাহিত রোগে আক্রান্ত হওয়ার শঙ্কা। তাই নিজেদের প্রস্তুতির পাশাপাশি আগেভাগে মশক নিধনসহ মশাবাহিত রোগ প্রতিরোধে সংশ্লিষ্টদের ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলছেন পৌরবাসী।
শহরের বেজপাড়ার বাসিন্দা অর্পিনা রায় বলেন ‘বাসার ছয়তলায় থাকি, কিন্তু মশার যন্ত্রণা থেকে নিস্তার নাই। যশোর পৌরসভা কাজ করে বললেও সে কাজের ফল আমরা পাচ্ছি না।’ তিনি বলেন গরম শুরু থেকে মশার উপদ্রব শুরু হয়ে গেছে, কিন্তু এখন পর্যন্ত কোথাও মশক নিধন করেনি।
যশোর শহরের মিশনপাড়ার বাসিন্দা রহমত আলী বলেন, মশার সাংঘাতিক উপদ্রব বেড়েছে। এটি একটি অভিজাত এলাকা। সে হিসেবে আশা করেছিলাম হয়তো মশার উপদ্রব থেকে স্বস্তি পাব।’ তিনি বলেন, এ এলাকায় পৌরসভা নিয়মিত কাজ আছে। কিন্তু মশার উপদ্রব ঠেকাতে সে কাজ যথেষ্ট নয়।
যশোর পৌরসভার কঞ্জারভেন্সি সুপারভাইজার আলী হোসেন বলেন, ‘গত বছরের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে কাজ করবে যশোর পৌরসভা। কোথায় এডিস মশা বংশবিস্তার করে, ঘনত্ব বেশি, কোন বয়সের মানুষ এ রোগে আক্রান্ত হয় সে তথ্যগুলো এখন আমরা জানি। এসব তথ্য উপাত্ত কাজে লাগিয়ে আমরা কাজ করবো। তিনি বলেন আমরা শহরের প্রত্যেকটা ড্রেনে ফগার মেশিন চালাবো। একই সাথে যেখানে ঝোপঝাড় আর ডোবা জলাশয় আছে সেখানে অভিযান চলবে। এক কথায় শহরের প্রত্যেকটা কোনে, যেখানে যেখানে মশার বংশবিস্তার হয় সেখানে সেখানে মশা মারার অবিযান পরিচালিত হবে।