মহম্মদপুরের এক চেয়ারম্যানের পকেটে শ্মশানের ২লাখ টাকা, আভিযোগ আরো বহু

0
201

বিশেষ প্রতিনিধি : মাগুরা উপজেলার ১নং বাবুখালী ইউনিয়নের বহলবাড়ীয়া মহা শ^শ্মানের উন্নয়নের জন্য বিগত অর্থ বছরের এডিপি’র দুই লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে এলাকার সনাতন ধর্মের বাসিন্দারা স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ে অভিযোগ দায়ের করেছেন। বাবুখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মীর সাজ্জাত আলী দূর্নীতির মাধ্যমে এডিপি’র সরকারি অর্থ আত্মসাতের বিরুদ্ধে এলাকাবাসী ফুসে উঠেছে। উক্ত চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে বাবুখালী বাজারের বিএডিসি’র মালিকানাধীন একটি ভবন ছিল। চেয়ারম্যন মীর সাজ্জাদ আলী ওই ভবন ভেঙ্গে রড,ইট বিক্রি করে দেয়। এছাড়া, উক্ত স্থানে পুনরায় দোকান ঘর নির্মাণ করে স্থানীয় বাসিন্দা ডাক্তার সরোয়ার,মফিজ,আজিম ও টিক্কা খানদের মাঝে মাথাপিছু ৫লাখ টাকা গ্রহন করে দোকান ঘর বরাদ্ধ দেয়। এছাড়া, বাবু খালী বাজারে সরকারী জমি দখল করে লাখ লাখ টাকা আত্মসাত পূর্বক চেয়ারম্যন বহাল তবিয়তে জীবন যাপন করছে।
এছাড়া,ওই জেলার মহম্মদপুর উপজেলার শিবরামপুর গ্রামের আবু নাছির,জমিন উদ্দিন অভিযোগে উল্লেখ করেন, মাগুরা জেলার মহম্মদপুর উপজেলার ১নং বাবুখালী ইউনিয়নের বহলবাড়ীয়া মহা শ^শ্মানের এক উন্নয়নের জন্য ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের এডিপির দুই লাখ টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়। উপজেলা পরিষদ থেকে উক্ত প্রকল্পের বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ১ নং ওয়ার্ডের মেম্বার রজব আলী। অথচ উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মীর সাজ্জাদ আলী মেম্বর রজব আলীর স্বাক্ষর জাল করে ও ভূয়া কাগজ পত্র দাখিল করে প্রকল্পের কোন কাজ কর্ম না করে সম্পূর্ন টাকা উত্তোলন পূর্বক আত্মসাত করে। এ ঘটনায় ওই এলাকার সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বাসিন্দাদের মধ্যে চরম ক্ষোভ ও হতাশা বিরাজ করছে। এলাকায় বাসী বিষয়টি সরেজমিনে দেখার জন্য স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রনালয়ে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। চেয়ারম্যান মীর সাজ্জাদ আলীর ০১৭৪৮৯৬২৯১৭ নম্বর মোবাইল ফোনে সাংবাদিকরা তার বিরুদ্ধে দূর্নীতির বিষয় জানতে চাইলে তিনি তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ সত্য নয় বলে দাবি করেন।