মহাজলাবদ্ধতা!

0
236

আধুনিক নগরীতে জলাবদ্ধতার কোন সুযোগ নেই। ঢাকা-চট্টগ্রামের মতো আমাদের মহানগরগুলো অপরিকল্পিতভাবে গড়ে ওঠায় এবং মরণাপন্ন দশায় উপনীত হওয়ার পরও সাবধানতা অবলম্বন করে যথাযথ পদক্ষেপ না নেয়ায় এগুলো এখন জলাবদ্ধতার শিকার। শুধু জলাবদ্ধতা না বলে এটাকে মহাজলাবদ্ধতা বললেই বোধ করি সঠিক হবে। অন্তত এ বছর বর্ষা মৌসুম শুরু হওয়ার পর ঢাকায় নতুন নতুন এলাকায় জলজট দেখা দেয়ায় এবং চট্টগ্রামে জলাবদ্ধতার রেকর্ড হওয়ায় এ কথা নির্দ্বিধায় বলা চলে। আমাদের চট্টগ্রাম অফিস জানাচ্ছে : আশ্বাসেই কাটছে যুগের পর যুগ। জলাবদ্ধতার অভিশাপ থেকে মুক্তি মিলছে না চট্টগ্রাম নগরবাসীর। বরং প্রতিবছরই বাড়ছে পানির উচ্চতা। প্লাবিত হচ্ছে নতুন নতুন এলাকা। এখন উঁচু এলাকাতেও পানি উঠছে। উঁচু-নিচু এলাকা সর্বত্র অথৈ পানিতে সয়লাব। কেন্দ্রীয় মহাপরিকল্পনা ও তার বাস্তবায়নই বাঁচাতে পারে চট্টলাবাসীদের।

মেয়রদের আমরা বলে থাকি নগরপিতা। মেয়র আসেন মেয়র যান, প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি ছড়ান। কিন্তু নগরীর সত্যিকারের পিতৃসুলভ দায়িত্ব পালন করতে তাদের দেখা যায় না। বর্তমান চট্টগ্রাম মেয়র ৩৬ দফা দিয়েছিলেন তার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিপত্রে। সেখানে জলাবদ্ধতা নিরসনই ছিল বিশেষ অগ্রাধিকার। এখন জলাবদ্ধতায় হাবুডুবু খাওয়া চাটগাঁর নাগরিকবৃন্দ কি বৃষ্টিকে দুষবেন, নাকি দুর্ভাগ্যকে! বন্দরনগরী চট্টগ্রামে ন্যূনতম ৩২টি সরকারী সংস্থা কাজ করে। পরিকল্পনাবিদরা বলছেন, এর প্রতিটি সংস্থাকেই মাস্টার প্ল্যান বা মহাপরিকল্পনার আওতায় আসতে বাধ্য করা হবে। নগরবাসী সেই আশায় আছেন, আগামীতে জলবন্দী দশা যদি ঘোচে তাদের।

রাজধানী ঢাকার কথা বলতে গেলে অনেক বিষয় সামনে চলে আসে। এর দুয়েকটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বরং সেগুলোই বলা যাক। একদিকে ঢাকার জলাশয় ও খালগুলোকে ভরাট করে বহুতল ভবন গড়ে তোলা হয়েছে, অন্যদিকে মহানগরীর চারপাশের নদীগুলোকে দখল-দূষণের মাধ্যমে অকার্যকর করে ফেলা হয়েছে। তাই স্বাভাবিক বৃষ্টিতে জল ধরে রাখা, জলের প্রবাহ এবং সর্বোপরি জলের গন্তব্যÑ সব এলোমেলো করে ফেলা হয়েছে। এক মহাবিপর্যস্ত পরিস্থিতি। ফলে কোন টেকনিকই আর কাজে আসছে না। এর ওপর রয়েছে অতিরিক্ত জনচাপ এবং যানের আধিক্য। জলাবদ্ধতার কারণে রাজধানীর যানজট দুঃসহ আকার ধারণ করে। জলাবদ্ধতা আর যানজটের কবলে পড়ে রাজধানীবাসীকে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়। বর্ষা মৌসুমেও রাজধানীর বহু সড়কে খোঁড়াখুঁড়ি চলছে। ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা দুর্বল হয়ে পড়েছে। রাজধানীবাসীর সেবায় নিয়োজিত একাধিক কর্তৃপক্ষের কাজে সমন্বয় নেই। এসব কারণে জলাবদ্ধতা নিরসনে নেয়া বিভিন্ন উদ্যোগ ফলপ্রসূও হচ্ছে না। বর্ষা মৌসুম ছাড়াই সামান্য বৃষ্টিতে রাজধানীতে জলাবদ্ধতা দেখা দেয়। কাজেই বর্ষা মৌসুমে টানা বৃষ্টির ভার যে রাজধানী বহন করতে পারবে না সেটা জানা কথা। প্রশ্ন হচ্ছে পরিত্রাণের উপায় কী?

জলাবদ্ধতার সমস্যা নিরসনে স্থায়ী এবং দীর্ঘমেয়াদী উদ্যোগ নেয়াটাই অধিক যুক্তিযুক্ত। এ জন্য প্রাকৃতিক জলাধার, খাল-বিল ও লেকের সংস্কার করে পানি ধারণক্ষমতা বৃদ্ধির দিকে মনোযোগ দিতে হবে। শহরে খোলা জায়গা বাড়ানোর কোন বিকল্প নেই। মাটি উন্মুক্ত রাখার ব্যবস্থা নিতে হবে, যাতে মাটির নিচে পানি পৌঁছতে পারে। পার্ক, লেক, পুকুরের সংখ্যা বাড়ানোও জরুরী। হাতিরঝিলের মতো আরও কয়েকটি উন্মুক্ত জলাশয় তৈরি করা গেলে নগরীর জলাবদ্ধতার সমস্যা কমে আসবে বলে মনে করেন পানি ও বন্যা ব্যবস্থাপনা বিশেষজ্ঞগণ। জলাবদ্ধতা নিরসনে সংশ্লিষ্ট সেবাদানকারী সংস্থাসমূহের সমন্বিত ও পরিকল্পিত পদক্ষেপ গ্রহণ অপরিহার্য হয়ে পড়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here