মহাসড়কে বেআইনি যানবাহন ও দুর্ঘটনা

0
192

বাংলাদেশে প্রাকৃতিক দুর্যোগ নিত্যসঙ্গী হইলেও সাম্প্রতিক বত্সরগুলিতে দেখা যাইতেছে যে, প্রাকৃতিক দুর্যোগের তুলনায়ও সড়ক দুর্ঘটনায় বেশি মানুষ নিহত হইতেছে। জাতিসংঘে বাংলাদেশসহ সদস্যদেশগুলি অঙ্গীকার করিয়াছিল ২০১১ হইতে ২০২০ সালের মধ্যে সড়ক দুর্ঘটনা অর্ধেকে নামাইয়া আনিবে; কিন্তু বাংলাদেশে উল্টা দুর্ঘটনা ও হতাহতের সংখ্যা বাড়িতেছে। প্রতিদিন সড়ক দুর্ঘটনায় গড়ে ৬৪ জন নিহত হয়। বাংলাদেশ যাত্রীকল্যাণ সমিতির হিসাবেই দেখা যায় ২০১৫ সালে দেশে ৬ হাজার ৫৮১টি সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে। এইসকল দুর্ঘটনায় মারা গিয়াছেন ৮ হাজার ৬৪২ জন। আহত হইয়াছেন ২১ হাজার ৮৫৫ জন। সরকারিভাবে আইন প্রণয়ন এবং রাস্তায় গাড়ি চলাচলে অনেক নিয়ম যুক্ত করা হইলেও তাহা পালনে গাফিলতি এবং চালকদের যথাযথ প্রশিক্ষণের অভাবে সড়ক দুর্ঘটনা প্রতিদিনের সঙ্গী হইয়াছে। তবে, সড়ক দুর্ঘটনার আরেকটি বড় কারণ হইল, অনিবন্ধিত ফিটনেসবিহীন দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরি নসিমন, করিমন, ভটভটি ইত্যাদি তিন চাকার বাহন। ভারী ও দ্রুত গতির বাস-ট্রাকের পাশাপাশি এইগুলিও বেপরোয়াভাবে আমাদের মহাসড়কগুলিতে চলিতেছে। ফলে দুর্ঘটনা বাড়িতেছে।

তিন বত্সর পূর্বেই সমগ্র দেশের মহাসড়কগুলিতে ইজি-বাইক, নছিমন, করিমন, ভটভটিসহ অনিবন্ধিত গাড়ি চলাচল বন্ধে পদক্ষেপ লইতে সরকারকে নির্দেশ দিয়াছিলেন হাইকোর্ট। যাহারা এইসমস্ত নসিমন করিমন চালাইতেছে সেইসকল ড্রাইভার ও মালিকদের কেহ ধরা পড়িলে মোটর ভেহিকলস আইনের বিধান অনুযায়ী শাস্তিমূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করিতেও বলা হইয়াছিল; কিন্তু এই নির্দেশনা বাস্তবায়িত হয় নাই। রাস্তায় ইজি-বাইক, নছিমন, করিমনের মতো বেআইনি যানবাহন বন্ধ করিতে গেলে জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতারা হস্তক্ষেপ করেন বলিয়া অভিযোগ তুলিয়াছেন জেলা প্রশাসকেরা। তবে বেআইনি যানবাহন বন্ধের কাজে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ হইলে ফোন করিয়া সরাসরি জানাইতে জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দিয়াছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী। তিনি বেআইনি এইসকল যানবাহন বন্ধ করিতে বদ্ধপরিকর।

তবে বিষয়টি অন্যদিক দিয়াও ভাবা দরকার। আমাদের পরিবহন সংকট থাকায় মানুষ নিষিদ্ধ বাহনে চড়িতে বাধ্য হইতেছে। স্বল্পদূরত্বের যাত্রীদের যাতায়াতের জন্য এবং মালামাল পরিবহনের জন্য বিকল্প বাহনের অভাব রহিয়াছে। এইকথাও ভুলিলে চলিবে না যে নসিমন-করিমন জাতীয় যাত্রী ও মালামাল পরিবহনের বাহনগুলি গত দুই দশকে গ্রামীণ জনজীবনে ওতপ্রোতভাবে জড়াইয়া গিয়াছে এবং অর্থনীতিতে আমূল পরিবর্তন আনিয়াছে। ফলে চাহিলেই এইগুলির চলাচল একেবারে বন্ধ করিয়া দেওয়া সম্ভব নহে। বরং নজর দেওয়া দরকার এই পরিবহনগুলির মানোন্নয়নের দিকে। তাহা হইলে সড়ক দুর্ঘটনা কমিবে। তদুপরি আমাদের অধিকাংশ সড়ক দুই লেনের। গতি অনুযায়ী সড়কগুলিতে লেন সংখ্যা বাড়াইতে পারিলে এবং আলাদা-আলাদা গতির বাহনের জন্য ডিভাইডার থাকিলেও দুর্ঘটনা কমিয়া যাইবে। একদিকে গ্রামীণ জনজীবন ও অর্থনীতির কথা যেমন ভাবিতে হইবে, অন্যদিকে সড়ক দুর্ঘটনা কমাইয়া আনিতেও মনোযোগী হইতে হইবে। সকল দিক বিবেচনা করিয়া সুচিন্তিত পদক্ষেপই আমরা প্রত্যাশা করিব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here