মহাসড়কে মহাদুর্ভোগ

0
194

বরাবরের মতোই কত প্রস্তুতি, কত প্রতিশ্রুতি! কিন্তু সড়ক-মহাসড়ক সর্বত্রই সেই পুরাতন চিত্র। যানজটে রাজধানীর জীবনযাত্রা প্রায় স্থবির হইয়া রহিয়াছে গত কয়েকদিন যাবত্। সড়কপথে আনুষ্ঠানিকভাবে ঈদযাত্রা শুরু হইয়াছে গত বুধবার হইতে। শুরুতেই দুর্ভোগ। গাবতলী বাস টার্মিনালে ফুটপাত ও নর্দমার সংস্কার কাজ চলিতেছে। আষাঢ়ের বর্ষণ আর নর্দমার কাদাজলে অবস্থা এমন দাঁড়াইয়াছে যে যাত্রীদের বাসে উঠানামা করিবারও উপায় নাই। সেই সাথে রাজধানী হইতে বাহির হইবার ও রাজধানীতে প্রবেশের তিনটি মূল পথেই যথারীতি লাগিয়া আছে স্থায়ী যানজট। ফলে গাবতলী, মহাখালী ও সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল ছাড়িয়া মূল সড়কে উঠিতেই লাগিয়া যাইতেছে দীর্ঘ সময়। ঈদযাত্রার প্রথম দিনেই ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-সিলেট ও ঢাকা-টাঙ্গাইলসহ দেশের সকল মহাসড়কে যানজটের কারণে দুর্ভোগে পড়িতে হইয়াছে ঘরমুখো মানুষকে। সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ন্যূনতম ছয় কিলোমিটার হইতে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হইয়াছে কোথাও কোথাও। যানজটের একাধিক যৌক্তিক কারণ যে ছিল তাহা অস্বীকার করিবার উপায় নাই। কিন্তু ইহা প্রত্যাশিত ছিল যে অতীত অভিজ্ঞতার আলোকে এইবার দুর্ভোগের মাত্রা লঘু হইবে। কিন্তু তাহা হয় নাই। আর এই না হওয়ার দায় এড়াইতে পারিবেন না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

ইহা অনস্বীকার্য যে বিগত বত্সরগুলিতে অভাবনীয় অগ্রগতি সাধিত হইয়াছে দেশের সামগ্রিক যোগাযোগ ব্যবস্থায়। শুধু যে অবকাঠামোগত বিপুল উন্নয়ন ঘটিয়াছে তাহাই নহে, বাস-নৌযানের মতো জনপরিবহনেও আসিয়াছে চোখধাঁধানো পরিবর্তন। বদলাইতে শুরু করিয়াছে রেল যোগাযোগ ব্যবস্থাও। কিন্তু হতাশার বিষয় হইল, যানজট ও দুর্ঘটনা আমাদের পিছু ছাড়ে নাই। এইবার মহাসড়কে যানজটের যতগুলি কারণ জানা গিয়াছে তন্মধ্যে যে-দুইটি বিষয় সকল কিছুকে ছাপাইয়া উঠিয়াছে তাহা হইল— অব্যবস্থাপনা ও বিশৃঙ্খলা এবং সড়কের জরাজীর্ণ দশা। সংবাদপত্রে প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী, ২০ দশমিক ৪ শতাংশ মহাসড়ক এবং ৩০ দশমিক ৬৯ শতাংশ আঞ্চলিক সড়কের অবস্থাই অত্যন্ত শোচনীয়। রাস্তার অবস্থা খারাপ হইলে যানবাহনের গতি ধীর হইতে বাধ্য। তদুপরি, কোনো কোনো মহাসড়কে সড়ক প্রশস্তকরণ ও ফ্লাইওভার নির্মাণ কাজ চলার কারণেও স্বাভাবিক যান চলাচল ব্যাহত হইতেছে। ঈদ যে আসিতেছে কর্তৃপক্ষ তাহা জানিতেন। আর ঈদে যে সড়ক-মহাসড়কের ওপর যানবাহনের চাপ কয়েকগুণ বৃদ্ধি পাইবে তাহাও কোনো নূতন বিষয় নহে। এতদসত্ত্বেও তাহারা কেন যথেষ্ট আগেই যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করিলেন না তাহা আমাদের বোধগম্য নহে।

জানা যায়, ঈদের ছুটিতে প্রায় সোয়া কোটি মানুষ ঢাকা ও সংলগ্ন জেলাশহর ছাড়িয়া যায়। তাহাদের ৫৫ শতাংশই সড়কপথ ব্যবহার করিয়া থাকে। সঙ্গত কারণেই এই সময়ে সড়ক-মহাসড়কগুলিতে স্বাভাবিকের তুলনায় চাপ অনেক বাড়িয়া যায়। এই চাপ সামাল দিতে এমনিতেই যেখানে হিমশিম খাইবার কথা, সেখানে নানা ধরনের বাড়তি উপদ্রব যে যাত্রীসাধারণের জন্য বাড়তি দুর্ভোগ ডাকিয়া আনিবে তাহা বুঝিতে রকেটবিজ্ঞানী হইবার প্রয়োজন পড়ে না। আর সেই দুর্ভোগ যদি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের উদাসীনতাজনিত হয় তাহা দুর্ভাগ্যজনকই বলিতে হইবে। নানা প্রতিকূলতার মধ্যেও শিকড়ের টানে ঘরমুখো মানুষ ঈদশেষে আবার কর্মস্থলে ফিরিবেন। আমরা আশা করি, সমগ্র বিষয়টি বিবেচনায় রাখিয়া সম্ভাব্য জনদুর্ভোগ লাঘবে কর্তৃপক্ষ সর্বোচ্চ সতর্কতা অবলম্বন করিবেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here